রামানুজ (১০১৭-১১৩৭) ছিলেন একজন ধর্মতাত্ত্বিক ও দার্শনিক। তিনি শ্রী রামানুচার্য, উপাধ্যায়, লক্ষ্মণ মুনি নামেও পরিচিত। সাধারণভাবে হিন্দুরা তাকে হিন্দু দর্শনের বিশিষ্টাদ্বৈত বেদান্তের প্রধান ব্যাখ্যাদানকারী হিসেবে দেখেন।[২]

রামানুচার্য
Ramanujacharya.jpg
জন্মআইয়ালভার,[১]
১০১৭ খ্রিস্টাব্দ
শ্রীপুরবুদুর, তামিলনাড়ু, ভারত
মৃত্যু১১৩৭ খ্রিস্টাব্দ
শ্রী রঙ্গম, তামিলনাড়ু, ভারত
আখ্যা আম্বরুমান্নার , উদাইয়াওয়ার , (সন্ন্যাসী রাজা))
দর্শনবিশিষ্টাদ্বৈত বেদান্ত
সাহিত্য কর্মবেদান্ত সংগ্রহম, শ্রী ভাষ্যম, গীতা ভাষ্যম সহ ৯ টি সংস্কৃত গ্রন্থ

বৈষ্ণব আচার্য রামানুজাচার্যের শিষ্য রামানন্দ । যার শিষ্য ছিলেন কবির ও সুরদাস। রামানুজ বেদান্ত‌ দর্শনের উপর ভিত্তি করে তাঁর নতুন দর্শন বিশিষ্টাদ্বৈত বেদান্ত রচনা করেছিলেন।বেদান্ত‌ ছাড়াও রামানুজাচার্য সপ্তম-দশম শতকের মরমী ও ভক্ত আলওয়ার সাধুদের ভক্তি দর্শনের এবং দক্ষিণের পঞ্চরাত্র ঐতিহ্যের ভিত্তি তৈরি করেছিলেন।

সংক্ষিপ্ত জীবনীসম্পাদনা

রামানুজ ১০১৭ খ্রিস্টাব্দে দক্ষিণ ভারতের তামিলনাড়ুতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। ছোটবেলায় তিনি তাঁর গুরু যাদব প্রকাশের কাছ থেকে বেদ শেখার জন্য কাঞ্চি গিয়েছিলেন। রামানুজাচার্য ছিলেন আলওয়ার সন্ত যমুনাচার্যের প্রধান শিষ্য। গুরুর ইচ্ছানুসারে রামানুজ তিনটি বিশেষ কাজ করার অঙ্গীকার করেছিলেন ।তিনি ব্রহ্মসূত্র, বিষ্ণু সহস্রনাম এবং দিব্য প্রবন্ধধামের ভাষ্য রচনা করেছিলেন। তিনি গৃহ ত্যাগ করেন এবং শ্রীরঙ্গমের জ্যোতিরাজ নামে এক সন্ন্যাসীর কাছ থেকে দীক্ষা নেন।

রামানুজ মহীশূরের শ্রীরঙ্গম থেকে শালিগ্রাম নামক স্থানে চলে এসেছিলেন। রামানুজ সেই অঞ্চলে বারো বছর বৈষ্ণব মত প্রচার করেছিলেন। এর পরে বৈষ্ণব মত প্রচারের জন্য তিনি পুরো ভারত ভ্রমণ করেছিলেন। ১১৩৩ খ্রিস্টাব্দে তিনি ১২০ বছর পূর্ণ করেন এবং ব্রাহ্মণ হন।

যদিও তিনি বহু গ্রন্থ রচনা করেছিলেন, তবে ব্রহ্মসূত্রের ভাষ্যে রচিত তাঁর দুটি বই সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হয়েছিল - শ্রীভাষ্যম এবং বেদান্ত সংগ্রহ।

স্বতন্ত্র দর্শনসম্পাদনা

রামানুজাচার্যের দর্শনে শক্তি বা ঈশ্বরের সাথে তিনটি স্তর বিবেচনা করা হয়েছে - ব্রহ্ম অর্থাৎ ঈশ্বর, চিত অর্থাৎ আত্মা এবং প্রাকৃত অর্থাৎ প্রকৃতি।

প্রকৃতপক্ষে, এই মন ব্রহ্ম বা ঈশ্বরের, অর্থাৎ আত্মা এবং অতীত থেকে পৃথক নয়। যা ব্রহ্ম বা ঈশ্বরের প্রকৃতি। তবে এগুলি ব্রহ্মের দুটি রূপ এবং ব্রহ্ম বা ঈশ্বরের উপর নির্ভরশীল। প্রকৃতপক্ষে, এটি রামানুচার্যের বিশিষ্টাদ্বৈত বেদান্তের মূলনীতি।

দেহ ও আত্মা পৃথক নয় । দেহ নিজের উদ্দেশ্য সাধনের জন্য যেমন কাজ করে, তেমনি ব্রহ্ম বা ঈশ্বর ব্যতীত মন এবং অমোঘ উপাদানগুলির অস্তিত্বও নেই। এগুলি ব্রহ্ম বা ঈশ্বরের দেহ এবং ব্রহ্ম বা ঈশ্বর তাদের আত্মার মতো।

ভক্তিসম্পাদনা

রামানুজের মতে ভক্তির অর্থ আরাধনা বা কীর্তন-ভজন নয় বরং ঈশ্বরের ধ্যান করা বা প্রার্থনা করা। সামাজিক দৃষ্টিকোণ থেকে রামানুচার্য ভক্তিকে বর্ণ ও শ্রেণি থেকে পৃথক এবং সকলের পক্ষে সম্ভব বলে বিবেচনা করেছিলেন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; names R নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  2. (Bartley 2002, পৃ. 1), (Carman 1974, পৃ. 24)