যোগেশ ব্রহ্মচারী

যোগেশ ব্রহ্মচারী (২৮ ফেব্রুয়ারি, ১৮৯৫ ― ১৯৮৩)[১] একজন বাঙালি স্বাধীনতা সংগ্রামী ও সাধক।

জীবনীসম্পাদনা

যোগেশ ব্রহ্মচারী ১৮৯৫ সালে ব্রিটিশ ভারতেচট্টগ্রামের গুজরা নয়াপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পিতার নাম আচার্য শ্রীল পূর্ণচন্দ্র ভট্টাচার্য, মাতা শ্রীশ্রী বামাসুন্দরী দেবী। ১৯০৪ সালে বিশ্বেশ্বরী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হন তিনি। সহপাঠী ছিলেন বিপ্লবী সূর্য সেন[২] ছাত্রাবস্থায় বিপ্লবী আন্দোলনে যোগ দেন। জামির আলি ছদ্মনামে অনেক দুঃসাহসিক কাজ করেছেন। লাভ করেছেন মহাত্মা গান্ধীর সাহচর্য্য। ১৯২০ সালে এম এ পাশ করেন। ১৯২২ সালে শ্রীমতী নেলী সেনগুপ্তার সহযোগিতায় লন্ডনে ব্যারিস্টারি পড়তে যান জাহাজের খালাসির ছদ্মবেশে। ধর্মের প্রচার কার্য্যে ইউরোপের বিভিন্ন দেশ ভ্রমণ করেন। রাশিয়ায় গিয়ে লেনিনের সাথেও সাক্ষাৎ করেছিলেন তিনি। হিমালয় পরিভ্রমণ করেছেন। ১৯২৩ সালে দেশে ফিরে আসেন। ১৯২৬ সালে শ্রীশ্রীকুলদানন্দ ব্রহ্মচারীর কাছে দীক্ষা গ্রহণ করে অচলানন্দ নাম নেন ও আশ্রম প্রতিষ্ঠা করেন। তার রচিত গ্রন্থ তোমার হাতে আমার বীণা[৩] তিনি কলকাতার বালিগঞ্জ স্টেশন রোডে গ্রাম্য যোগাশ্রম-এর প্রতিষ্ঠা করেন।[৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Mukhopādhyāẏa, Pratāpa (১৯৯২)। Rabīndranātha, Caṭṭagrāma, ebaṃ। Praiti Prakāśana। 
  2. "Jogeshkrishna Yogashram"www.sonamukhiyogashram.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২৮ 
  3. দ্বিতীয় খন্ড (২০০৪)। সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান। কলকাতা: সাহিত্য সংসদ। পৃষ্ঠা ২৮৫। 
  4. Nagendranātha (Maharshi) (১৯৭৮)। Srisrinagendra-upadesamrta। Srisri Nagendra Matha।