মিরপুর, আজাদ কাশ্মীর

মিরপুর (উর্দু, পাঞ্জাবি: مِيرپُور) পাকিস্তান শাসিত আজাদ কাশ্মীরের বৃহত্তম শহর ও মিরপুর জেলার সদর। শহরটি নতুন মিরপুর শহর নামেই বেশি পরিচিত।[১][২]

মিরপুর
میر پور
নতুন মিরপুর শহর
Chowk-shaheedan.jpg
মিরপুর আজাদ কাশ্মীর-এ অবস্থিত
মিরপুর
মিরপুর
মিরপুর পাকিস্তান-এ অবস্থিত
মিরপুর
মিরপুর
স্থানাঙ্ক: ৩৩°৯′ উত্তর ৭৩°৪৪′ পূর্ব / ৩৩.১৫০° উত্তর ৭৩.৭৩৩° পূর্ব / 33.150; 73.733স্থানাঙ্ক: ৩৩°৯′ উত্তর ৭৩°৪৪′ পূর্ব / ৩৩.১৫০° উত্তর ৭৩.৭৩৩° পূর্ব / 33.150; 73.733
দেশ পাকিস্তান
অঞ্চল আজাদ কাশ্মীর
জেলামিরপুর জেলা
আয়তন
 • মোট১,০১০ বর্গকিমি (৩৯০ বর্গমাইল)
উচ্চতা৪৫৮ মিটার (১,৫০৩ ফুট)
জনসংখ্যা (২০১৫)
 • মোট৭,৫৪,৪৮২
 • জনঘনত্ব৭৪৬/বর্গকিমি (১,৯৩০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলপিএসটি (ইউটিসি+৫)
কলিং কোড০৫৮২৭
নগরের সংখ্যান
ইউনিয়ন কাউন্সিলের সংখ্যা২১

ইতিহাসসম্পাদনা

বর্তমানের মিরপুর অঞ্চলটি দক্ষিণ এশিয়ায় আগ্রাসন এবং এ অঞ্চলে বহিরাগতদের আক্রমণ ও বিজয়ে সর্বদা একটি প্রধান চৌরাস্তা হয়ে দাঁড়িয়েছিল এবং সময়ের সাথে সাথে বিভিন্ন সাম্রাজ্যের একটি অংশ গঠন করেছিল যার মধ্যে রয়েছে আলেকজান্ডার, গন্ধার রাজ্য, মৌর্য সাম্রাজ্য, কুশন সাম্রাজ্য, গজনি সালতানাত, দিল্লি সালতানাত এবং মুগল সাম্রাজ্য অন্যতম।

মিরপুর শহরটি ১৬৪০ খ্রিস্টাব্দ বা ১০৫০ হিজরীর দিকে ঘাখরের প্রধান মিরন শাহ গাজী প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন।

শিক্ষাসম্পাদনা

শিক্ষার মাধ্যম হিসাবে ইংরেজি ভাষার ব্যবহার এখানে ব্যাপক। কিছুদিন আগে মিরপুর তথা আজাদ কাশ্মীরের উচ্চ শিক্ষার জন্য একটিমাত্র প্রতিষ্ঠান (আজাদ জম্মু ও কাশ্মীর বিশ্ববিদ্যালয় মুজাফ্ফরাবাদ) ছিল। কিন্তু গত এক দশক ধরে এখানে শিক্ষা ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নতি হয়েছে, প্রতিষ্ঠিত হয়েছে মিরপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, অ্যাকসন কলেজ অব হেল্থ সায়েন্স (ফার্মেসি কলেজ), মোহতারা বেনজির ভুট্টো শহীদ মেডিকেল কলেজ।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

যোগাযোগসম্পাদনা

মিরপুরে যোগাযোগের ক্ষেতে স্বল্প ভ্রমণের জন্য সিএনজি চালিত অটোরিকশা খুবই জনপ্রিয়। মিরপুরের সাথে আজাদ কাশ্মীরের অন্য গুরুত্বপূর্ণ শহর ভিমবার, জাটলান, কোটলি খইরাত্তা এবং পাকিস্তানের অন্যতম শহর গুজরাট, ঝেলুম, লাহোর ও রাওলাপিন্ডির সাথে সড়ক যোগাযোগ রয়েছে। মিরপুরে কোন রেলওয়ে লাইন বা রেলস্টেশন নাই। সবচেয়ে নিকটতম রেলস্টেশন হল মঙ্গলা রেলস্টেশন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Jul 20, 2005 12:00am (২০০৫-০৭-২০)। "Introspection grips British Muslims - Newspaper" (ইংরেজি ভাষায়)। Dawn.Com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-১৩ 
  2. "Azad Kashmir - The home of British Kashmiris" (PDF)Kashmiri Development Foundation। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ২৩, ২০১৭ 

গ্রন্থপঞ্জিসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা