মাসিক আল কাউসার

একটি ইসলামি পত্রিকা

মাসিক আল কাউসার বাংলাদেশ থেকে বাংলা ভাষায় প্রকাশিত বহুল প্রচারিত একটি গবেষণাধর্মী মাসিক ইসলামি পত্রিকা। ২০০৫ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে এর প্রকাশনা শুরু হয়। এটি উচ্চতর শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান মারকাযুদ দাওয়াহ আল ইসলামিয়া, ঢাকার মুখপত্র। এ পত্রিকায় সাধারণত বিভিন্ন ইসলামি প্রবন্ধ, মাসলা-মাসায়েল, সমকালীন যুগ জিজ্ঞাসার জবাব প্রভৃতি নিয়ে লেখা হয়।

মাসিক আল কাউসার  
আল কাউসারের প্রচ্ছদ.jpg
একটি সংখ্যার প্রচ্ছদ
ভাষাবাংলা
সম্পাদকআবুল হাসান মুহাম্মদ আবদুল্লাহ
প্রকাশনা বিবরণ
প্রকাশক
মারকাযুদ দাওয়াহ আল ইসলামিয়া, ঢাকা
সংযোগ
মাসিক আল কাউসারের লোগো

বিবরণসম্পাদনা

এটি গবেষণামূলক উচ্চতর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মারকাযুদ দাওয়াহ আল ইসলামিয়া, ঢাকার মুখপত্র। ইসলামি শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ফিকহ সম্প্রসারণের লক্ষ্য নিয়ে ২০০৫ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে মিরপুর, ঢাকায় এটি প্রতিষ্ঠা লাভ করে। বছরে পত্রিকাটির ১১ টি সংখ্যা প্রকাশিত হয়। প্রতি বছর শাবান ও রমজান সংখ্যা একত্রে প্রকাশিত হয়। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই আবুল হাসান মুহাম্মদ আবদুল্লাহ এর সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এর প্রতিষ্ঠাকালীন উপদেষ্টা ছিলেন আবদুল হাই পাহাড়পুরী এবং তত্ত্বাবধায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন মুহাম্মদ আব্দুল মালেক। এ পত্রিকাটির কার্যালয় ৩০/১৩, পল্লবী, মিরপুর-১২, ঢাকা-১২১৬-তে অবস্থিত। ২০০৯ সালের ডিসেম্বর থেকে পত্রিকাটির ওয়েব সংস্করণ চালু হয়েছে। আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে ইসলামের শিক্ষা প্রচারের লক্ষ্যে এটির ইংরেজির সংস্করণ চালু প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ পত্রিকাটিতে সাধারণত উল্লেখযোগ্য মুফতি, আলেমদের লেখনী, প্রবন্ধ, ফতুয়া প্রকাশিত হয়ে থাকে। তার মধ্যে রয়েছেন আবুল হাসান আলী নদভী, মুহাম্মদ রফি উসমানি, মুহাম্মদ তাকি উসমানি, আবু তাহের মেসবাহ, আবুল হাসান মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ, মুহাম্মদ আব্দুল মালেক প্রমুখ। এ পত্রিকায় বিভিন্ন ইসলামি প্রবন্ধ, মাসলা মাসায়েল, সমকালীন যুগ জিজ্ঞাসার জবাব প্রভৃতি নিয়ে লেখা হয়।[১][২][৩][৪][৫]

নিয়মিত আয়োজনসম্পাদনা

পত্রিকাটির নিয়মিত আয়োজনের মধ্যে রয়েছে:[৬]

  1. সম্পাদকীয়
  2. মারকাযের দিনরাত: এই বিভাগে মারকাযুদ দাওয়ার বিভিন্ন উল্লেখযােগ্য ঘটনা বা সেমিনারের সংক্ষিপ্ত বিবরণ থাকে।
  3. প্রচলিত ভুল: এই বিভাগে সমাজে প্রচলিত বিভিন্ন কুসংস্কার নিয়ে আলােচনা করা হয়।
  4. আপনি যা জানতে চেয়েছেন: মারকাযুদ দাওয়াহ আল ইসলামিয়া থেকে প্রদান করা বিভিন্ন সমস্যার ইসলামি সমাধানগুলাে প্রকাশ করা হয়।
  5. শিক্ষার্থীদের পাতা: কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্ন ও তার সমাধান প্রকাশিত হয়।
  6. শিক্ষা পরামর্শ: এই বিভাগে কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের পড়াশােনা ও অন্যান্য বিষয়ে দিকনির্দেশনা মূলক বিভিন্ন প্রবন্ধ-সাক্ষাৎকার প্রকাশ করা হয়।
  7. শিশু-কিশাের
  8. পর্দানশীন
  9. পাঠকের পাতা
  10. ফিলহাল: এই বিভাগে সাম্প্রতিক ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ঘটনা ও ইস্যু নিয়ে আলােচনা করা হয়।

প্রকাশনাসম্পাদনা

পত্রিকাটির বিভিন্ন প্রবন্ধ সংকলিত হয়ে কিছু স্বতন্ত্র পুস্তকও প্রকাশিত হয়েছে। তার মধ্যে রয়েছে:

  • প্রচলিত ভুল [৭]
  • নির্বাচিত প্রবন্ধ - ১, ২ [৮]
  • তালিবানে ইলম পথ ও পাথেয় ইত্যাদি [৯]

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. শাকিল, সালমান তারেক (১৮ ডিসেম্বর ২০১৫)। "বিজয়ের মাসে কওমি পত্রিকায় উপেক্ষিত মুক্তিযোদ্ধারা"বাংলা ট্রিবিউন। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৬-০২ 
  2. আবুল কালাম সিদ্দীক, কাজী (২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। "বাংলা চর্চায় এগিয়ে যাচ্ছেন কওমি আলেমরা"বাংলানিউজ২৪.কম। সংগ্রহের তারিখ ২ জুন ২০২১ 
  3. গোলাম ছরোয়ার, মুহা. (নভেম্বর ২০১৩)। "বাংলা ভাষায় ফিকহ চর্চা (১৯৪৭-২০০৬): স্বরূপ ও বৈশিষ্ঠ্য বিচার (ফিকহ চর্চায় পত্র-পত্রিকা)" (PDF)পিএইচডি অভিসন্দর্ভ, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়: ৩৬১। সংগ্রহের তারিখ ২ জুন ২০২১ 
  4. খালিদ হোসেন, আ ফ ম (১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০)। "কওমি মাদরাসায় বাংলা ভাষাচর্চা"নয়া দিগন্ত। সংগ্রহের তারিখ ২ জুন ২০২১ 
  5. "সারাদেশের নিবন্ধিত পত্র-পত্রিকার পরিসংখ্যান"চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তর। ২০ জানুয়ারি ২০২১। পৃষ্ঠা ২৭। 
  6. সূচিপত্র থেকে সংগৃহীত।
  7. "প্রচলিত ভুল"রকমারি। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৬-০২ 
  8. "নির্বাচিত প্রবন্ধ - ১"বইবাজার। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৬-০২ 
  9. "তালিবানে ইলম পথ ও পাথেয়"রকমারি। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৬-০২ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা