মালদ্বীপ জাতীয় জাদুঘর

মালদ্বীপ জাতীয় জাদুঘর মালদ্বীপের জাতীয় দিবসে প্রতিষ্ঠিত দেশের প্রথম জাতীয় জাদুঘর, যা ১৯৫২ সালের ১১ নভেম্বর[২] দেশটির তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ আমিন দিদি উদ্বোধন করে।

Old Malaafaiy lacquered কাঠের খাদ্য আচ্ছাদক from Thulhadhoo kept at the National Museum
Maldivian তারা,[১] ৩০ সমি cm উচ্চতা বিশিষ্ট etching on Porites coral stone from the ৮ম শতকের kept at the জাতীয় জাদুঘরে সংরক্ষিত মালে, মালদ্বীপ

সার-সংক্ষেপসম্পাদনা

ইতিহাস সংরক্ষণ এবং মালদ্বীপের জনগণের মধ্যে দেশপ্রেম সৃষ্টির উদ্দেশ্যে জাদুঘরে ঐতিহাসিক নিদর্শনাবলীর এক বিশাল সংগ্রহ রয়েছে, যেগুলো বৌদ্ধ যুগের রাজকীয় পাথরের বস্তুর পুরাতত্ত্বের টুকরো থেকে শুরু করে ইসলামী সাম্রাজ্যের শাসনের অন্তর্ভুক্ত।

এই জাদুঘরটি আগে মালদ্বীপের ভাষাবিজ্ঞান ও ঐতিহাসিক গবেষণা কেন্দ্র কর্তৃক পরিচালিত হতো। তবে ২০১০ সালের ২৮ এপ্রিল তারিখে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ নাশিদ কর্তৃক এই প্রতিষ্ঠানটিকে বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয় এবং জাদুঘরটির দায়িত্ব পর্যটন, কলা এবং সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে ন্যস্ত করার পাশাপাশি মালদ্বীপের ভাষাবিজ্ঞান ও ঐতিহাসিক গবেষণা কেন্দ্রের দায়িত্ব মালদ্বীপের উচ্চ শিক্ষা কলেজের নিকট হস্তান্তর করা হয়।[৩]

স্থাপনাসম্পাদনা

তিনটি তলা বিশিষ্ট জাদুঘরটি (পুরনো ভবন) মালতে অবস্থিত সুলতান পার্কের অভ্যন্তরে অবস্থিত, যা ১৬শ শতকের দিকে নির্মিত মালদ্বীপের রাজকীয় প্রাসাদ এলাকার একটি অংশ। দ্বিতল বিশিষ্ট আস-গোকুলু হলো প্রাসাদের একমাত্র অংশ যেটি ১৯৬৮ সালের আগুনে ধ্বংস হয়েছিলো।

জাদুঘরের নতুন ভবনটিও সুলতান পার্কে অবস্থিত। এই ভবনটির নকশা প্রণয়ন, নির্মাণ এবং অর্থায়ন কর হয়েছে চীনা সরকার কর্তৃক। ভবনটি ২০১০ সালের [১০ জুলাই চীনা সরকার মালদ্বীপ সরকারকে উপহার দেয়; কিন্তু আনুষ্ঠানিকভাবে এই ভবনটিকে জাতীয় জাদুঘর হিসেবে ঘোষণা এবং উদ্বোধন করা হয় আরো দুই সপ্তাহ পরে, ২০১০ সালের ২৬ জুলাই তারিখে, মালদ্বীপের স্বাধীনতা দিবসের দিন।

জাদুঘরটির অভ্যন্তরভাগটি সুলতানী আমল থেকেই সংরক্ষিত হিসাবে রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে হস্ত-লিখিত কোরআন, যেগুলো ভবনের দেয়ালের গায়ে খোদাই করা আছে।

সংগ্রহসম্পাদনা

জাদুঘরটিতে বিপুুল প্রাচীন নিদর্শন প্রদর্শিত হয়, যার মধ্যে রয়েছে প্রাক-ইসলামী যুগের দ্রব্যাদী, রাজকীয় রোদাচ্ছাদন এবং আসবাব পত্র, পোষাক ও পাদুকা, মুদ্রা, অলংকার, যুদ্ধাস্ত্র এবং যুদ্ধের সাজ-পোষাক।

অন্যান্য নিদর্শন হিসাবে আরো অন্তর্ভুক্ত আছে বস্ত্রাদি, যেমন বিশেষ অনুষ্ঠানের জন্য ব্যবহৃত পোষাক, পাগড়ী, চকচকে চপ্পল এবং কোমরবন্ধনী, মাদুুর এবং অন্যান্য সৃজনশীল সূচীকর্ম।

সময়সূচীসম্পাদনা

জাদুঘরটি রবিবার হতে শণিবার, সাপ্তাহে ছয়দিন, মালদ্বীপের স্থানীয় সময় সকাল ১০.০০টা হতে বিকাল ৪.০০টা পর্যন্ত খোলা থাকে এবং শুক্রবার সাপ্তাহিক বন্ধ থাকে।

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Xavier Romero-Frias (১৯৯৯)। The Maldive Islanders, A Study of the Popular Culture of an Ancient Ocean Kingdom। Barcelona। আইএসবিএন 84-7254-801-5 
  2. Maldives Tourist Attractions - National Museum Maldives
  3. "President abolishes National Centre for Linguistic and Historical Research"Miadu। ২৮ এপ্রিল ২০১০। ১৯ আগস্ট ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৪  |প্রকাশক= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

৪°১০′৩০″ উত্তর ৭৩°৩০′৩২″ পূর্ব / ৪.১৭৫০০° উত্তর ৭৩.৫০৮৮৯° পূর্ব / 4.17500; 73.50889স্থানাঙ্ক: ৪°১০′৩০″ উত্তর ৭৩°৩০′৩২″ পূর্ব / ৪.১৭৫০০° উত্তর ৭৩.৫০৮৮৯° পূর্ব / 4.17500; 73.50889

টেমপ্লেট:Maldives topics