প্রধান মেনু খুলুন

ভারতীয় নৌবাহিনীর ডুবোজাহাজসমূহ

উইকিমিডিয়ার তালিকা নিবন্ধ

সচল ডুবোজাহাজসম্পাদনা

শ্রেণী ছবি ধরন সাবমেরিনের নাম উৎস ওজন[ক] নোট
পারমাণবিক ডুবোজাহাজ (২টি পরিসেবায়)
চক্র (আকুলা II) শ্রেণী   আক্রমনকারী সাবমেরিন (এসএসবএন) আইএনএস চক্র (এস৭১)   রাশিয়া ১২,৭৭০ টন ২০১২ সালে রাশিয়া থেকে ১০ বছরের চুক্তিতে লিজ নেওয়া হয়েছিল।
অরিহন্ত শ্রেণী   ব্যালেস্টিক মিসাইল সাবমেরিন (এসএসবিএন) আইএনএস অরিহন্ত   ভারত ৬,০০০ টন আগস্ট ২০১৬ সালে নিযুক্ত হয়েছে।[১]
ডিজেল-বিদ্যুৎ চালিত সাবমেরিন (১৩টি পরিসেবায়)
সিন্ধুঘোষ শ্রেণী   আক্রমণকারী ডুবোজাহাজ আইএনএস সিন্ধুঘোষ (এস৫৫)
আইএনএস সিন্ধুধভাজ (এস৫৬)
আইএনএস সিন্ধুরাজ (এস৫৭)
আইএনএস সিন্ধুবীর (এস৫৮)
আইএনএস সিন্ধুরত্ন (এস৫৯)
আইএনএস সিন্ধুকেশরী (এস৬০)
আইএনএস সিন্ধুকীর্তি (এস৬১)
আইএনএস সিন্ধুবিজয় (এস৬২)
আইএনএস সিন্ধুরাষ্ট্র (এস৬৫)
  সোভিয়েত ইউনিয়ন ৩,০৭৬ টন এস৬৩ সিন্ধুরাকশাক ১৪ই আগস্ট ২০১৩ সালে বিস্ফোরিত হয় এবং ডুবে যায়। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এটা "অত্যন্ত অসম্ভাব্য" যে এটি সক্রিয় সার্ভিস ফিরে আসতে হবে,[২] যদিও একে জুন ২০১৪ সালে উদ্ধার হয়েছিল।[৩]
শিশুমার শ্রেণী   আক্রমণকারী ডুবোজাহাজ আইএনএস শিশুমার (এস৪৪)
আইএনএস শঙ্কুশ (এস৪৫)
আইএনএস শালকি (এস৪৬)
আইএনএস শংকূল (এস৪৭)
  জার্মানি ১,৮৫০ টন সার্ভিস জীবন বাড়ানো জন্য উন্নয়ন করা হয়েছে।[৪]
কালভারি-শ্রেণীর ডুবোজাহাজ আক্রমণকারী ডুবোজাহাজ আইএনএস কালভারি (এস৫০)   ফ্রান্স
  ভারত
১,৫৬৫ টন ২০১৭-এর ডিসেম্বর-এ নৌবাহিনীতে যুক্ত করা হয়।

সমুদ্র পরীক্ষা চলন্তসম্পাদনা

শ্রেণী ছবি ধরন জাহাজের নাম উৎস ওজন[ক] তথ্য
পারমাণবিক ডুবোজাহাজ
অরিহন্ত শ্রেণী ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ডুবোজাহাজ আইএনএস অরিঘাট (এস)
  ভারত ৬,০০০ টন
ডিজেল-বিদ্যুৎ চালিত ডুবোজাহাজ (১টি নির্মানাধীন)
কালভারি শ্রেণী   আক্রমণকারী ডুবোজাহাজ আইএনএস খান্ডেরি (এস৫১)[৫] টেমপ্লেট:FR
  ভারত
১,৫৬৫ টন অবশিষ্ট জাহাজ হস্তান্তর এবং কমিশন ২০১৮-২০২০ সালে আশা করা হয়।[৬]

নির্মানাধীনসম্পাদনা

শ্রেণী ছবি ধরন জাহাজের নাম উৎস ওজন[ক] তথ্য
পারমাণবিক ডুবোজাহাজ
অরিহন্ত শ্রেণী   ব্যালিস্টিক মিসাইল সাবমেরিন (এসএসবএন) আইএনএস ' (এস ৭৫)
আইএনএস ' (এস ৭৬)
  ভারত ৬,০০০ টন নেতৃত্ব জলযান 'অরিহন্ত' আগস্ট ২০১৬ সালে কমিশন।[১][৭]
ডিজেল-বিদ্যুৎ চালিত ডুবোজাহাজ (৬টি নির্মানাধীন)
কালভারি শ্রেণী   আক্রমণকারী ডুবোজাহাজ এস ৫২
এস ৫৩
এস ৫৪
এস ৫৫
টেমপ্লেট:FR
  ভারত
১,৫৬৫ টন অবশিষ্ট জাহাজ হস্তান্তর এবং কমিশন ২০১৮-২০২০ সালে আশা করা হয়।[৬]

নিষ্ক্রিত সাবমেরিনসম্পাদনা

শ্রেণী জাহাজ উৎস কমিশনড ডেকমিশনড ওজন[ক] নোট
পরমাণু-ক্ষমতাপ্রাপ্ত আক্রমণকারী সাবমেরিন
টেমপ্লেট:Sclass2- আইএনএস চাক্রা (কে-৪৩)   সোভিয়েত ইউনিয়ন ১লা সেপ্টেম্বর ১৯৮৭ জানুয়ারি ১৯৯১ ৫,০০০ টন Leased for 10 years but returned to Soviet Union in 1991 after 3 years. Decommissioned and scrapped 1992.
ডিজেল-ইলেকট্রিক সাবমেরিন (১৩টি সার্ভিসে)
কালভারি শ্রেণী আইএনএস কালভারি (এস২৩)
আইএনএস খান্দেরি (এস২২)
আইএনএস কারাঞ্জ (এস২১)
আইএনএস কুরসুরা (এস২০)
  সোভিয়েত ইউনিয়ন ৮ই ডিসেম্বর ১৯৬৭
৬ই ডিসেম্বর ১৯৬৮
৪ঠা সেপ্টেম্বর ১৯৬৯
১৮ই ডিসেম্বর ১৯৬৯
৩১শে মে ১৯৯৬
১৮ই অক্টোবর ১৯৮৯
১লা অগাস্ট ২০০৩
২৭শে সেপ্টেম্বর ২০০১
২,৪৭৫ টন Sail on display
Sail on display
অজানা
জাদুঘরে
ভেলা শ্রেণী আইএনএস ভেলা (এস৪০)
আইএনএস ভাগির (এস৪১)
আইএনএস ভালি (এস৪২)
আইএনএস ভাগশের (এস৪৩)
  সোভিয়েত ইউনিয়ন ৩১শে অগাস্ট ১৯৭৩
৩রা নভেম্বর ১৯৭৩
১০ই অগাস্ট ১৯৭৪
২৬শে ডিসেম্বর ১৯৭৪
২৫শে জুন ২০১০
৭ই জুন ২০০১
৯ই ডিসেম্বর ২০১০
৩০শে এপ্রিল ১৯৯৭
২,৪৭৫ টন অজানা
অজানা
জাদুঘরে সংরক্ষিত হবে
অজানা
 
INS Kursura museum ship

পাদটীকাসম্পাদনা

  1. Displacement when submerged

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Now, India has a nuclear triad"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ১৬ই জানুয়ারি ২০১৭  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  2. Indian navy's submarine woes 14 August 2013
  3. Manish K Pathak (7 June 2014)। "INS Sindhurakshak finally brought to surface"DNA। সংগ্রহের তারিখ ১৬ই জানুয়ারি ২০১৭  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  4. S. Anandan (3 December 2013)। "Navy to extend life of six ageing submarines"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ১৬ই জানুয়ারি ২০১৭  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  5. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; deccanherald.com নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  6. "INS Kalvari sea trials begin today: All you need to know about the attack submarine"। Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ১৬ই জানুয়ারি ২০১৭  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  7. "Satisfied with nuclear sub Arihant trials: Navy Chief"