প্রধান মেনু খুলুন

ভাটপাড়া ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের উত্তর ২৪ পরগণা জেলার একটি শহর ও পৌরসভা এলাকা।

ভাটপাড়া
ভাটপাড়া
স্থানাঙ্ক: ২২°৫২′ উত্তর ৮৮°২৫′ পূর্ব / ২২.৮৭° উত্তর ৮৮.৪১° পূর্ব / 22.87; 88.41
জনসংখ্যা (২০০১)
 • মোট৪,৪১,৯৫৬

পরিচ্ছেদসমূহ

নামকরণসম্পাদনা

ভাটপাড়া নামটি এসেছে স্থানীয় 'ভাট' শ্রেণীর ব্যক্তিবর্গ বা 'ভাঁট' গাছের বাহুল্যের কারণে। ১৪৯৫-৯৬ খ্রিস্টাব্দে রচিত বিপ্রদাস পিপিলাইয়ের 'মনসাবিজয়' কাব্যে এই স্থানের নাম ভাটপাড়া হিসাবেই উল্লিখিত হয়েছে। ১৭শ শতকের শেষের দিকে সিদ্ধপুরুষ নারায়ণ ঠাকুর ভাটপাড়া গ্রামে পাশ্চাত্য বৈদিক সমাজের প্রতিষ্ঠা করেন। পরবর্তীকালে, ভাটপাড়ার সংস্কৃত পণ্ডিতসমাজের মুখে এই স্থান ভট্টপল্লী' নামে পরিচিতি লাভ করে।

এই স্থানের নামপরিচয় সম্বলিত পণ্ডিত পঞ্চানন তর্করত্নের একটি শ্লোক নিম্নরূপ:

বাশিষ্ঠাদৈ দ্বিজবুধববৈ শোভিতো ভট্টপল্লী নামগ্রামঃ সুরসবিদভিষ্যনন্দন প্রত্যগন্তঃ।

[১]

সাংস্কৃতিক ইতিহাসসম্পাদনা

ভাটপাড়ায় তন্ত্রযুগের ডাকাতে কালী জয়চণ্ডী বিখ্যাত। মধু, গৌরী বেদে প্রভৃতি দুর্ধর্ষ ডাকাতরা একসময় এখানে নরবলি দিত। ভাটপাড়ায় এক বৃক্ষতলে পঞ্চানন ঠাকুরের মূর্তি বিরাজমান। এখানকার প্রধান উৎসবগুলি হল পঞ্চমদোল, জয়চণ্ডীর নবমীর দোল, রামনবমী, শ্রীপঞ্চমী, কাঁকিনাড়ার মানিকপীরের মেলা ইত্যাদি। এছাড়া, বাঁশুলি ও ধর্মপূজা হয়ে থাকে। একসময় মনসাপূজায় 'ঝাঁপান উৎসব' হত এবং সেখানে সাপুড়ে ও ওঝাদের মধ্যে বাণমারামারি চলত।

এখানকার সংস্কৃত পণ্ডিতদের প্রতিষ্ঠিত বেশকিছু শিবমন্দির বর্তমান। যথা: ১৭২৭-২৮ খ্রিস্টাব্দে বীরেশ্বর ন্যায়ালঙ্কার স্থাপিত দুটি 'বাংলা' রীতির শিবমন্দির, ১৭৩৭-৩৮ খ্রিস্টাব্দে ভাঙা-বাঁধাঘাটে বাণেশ্বর পঞ্চানন স্থাপিত দুটি 'বাংলা' রীতির শিবমন্দির, ১৭৭৩-৭৪ খ্রিস্টাব্দে রামকান্ত সার্বভৌম স্থাপিত একটি 'নবরত্ন' রীতির শিবমন্দির, ১৭৬৯-৭০ খ্রিস্টাব্দে রামকান্ত সার্বভৌম স্থাপিত একটি 'পঞ্চরত্ন' রীতির শিবমন্দির, ১৮০২-০৩ খ্রিস্টাব্দে রামশঙ্কর তর্কবাগীশ স্থাপিত দুটি 'পঞ্চরত্ন' রীতির শিবমন্দির এবং ১৮১৯-২০ খ্রিস্টাব্দে ভোলানাথ ঠাকুর স্থাপিত একটি 'নবরত্ন' রীতির শিবমন্দির।[১]

ভৌগোলিক উপাত্তসম্পাদনা

শহরটির অবস্থানের অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমাংশ হলো ২২°৫২′ উত্তর ৮৮°২৫′ পূর্ব / ২২.৮৭° উত্তর ৮৮.৪১° পূর্ব / 22.87; 88.41[২] সমূদ্র সমতল হতে এর গড় উচ্চতা হল ১২ মিটার (৩৯ ফুট)।

জনসংখ্যার উপাত্তসম্পাদনা

ভারতের ২০০১ সালের আদমশুমারি অনুসারে ভাটপাড়া শহরের জনসংখ্যা হল ৪৪১,৯৫৬ জন।[৩] এর মধ্যে পুরুষ ৫৫% এবং নারী ৪৫%।

এখানে সাক্ষরতার হার ৭২%। পুরুষদের মধ্যে সাক্ষরতার হার ৭৮% এবং নারীদের মধ্যে এই হার ৬৬%। সারা ভারতের সাক্ষরতার হার ৫৯.৫%, তারচেয়ে ভাটপাড়ার সাক্ষরতার হার বেশি।

এই শহরের জনসংখ্যার ৯% হলো ৬ বছর বা তার কম বয়সী।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. ঘোষ, বিনয়, "পশ্চিমবঙ্গের সংস্কৃতি", তৃতীয় খন্ড, প্রথম সংস্করণ, প্রকাশ ভবন।
  2. "Bhatpara"Falling Rain Genomics, Inc (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২৫, ২০০৬ 
  3. "ভারতের ২০০১ সালের আদমশুমারি" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২৫, ২০০৬ 

টেমপ্লেট:উত্তর চব্বিশ পরগনা