ভগাঙ্কুর

স্ত্রী যৌনাঙ্গ

ভগাঙ্কুর হল একটি যৌন অঙ্গ যা স্তন্যপায়ী প্রাণী, উটপাখি এবং সীমিত সংখ্যক অন্যান্য প্রাণীতে থাকে। মানুষের ভগাঙ্কুরের দৃশ্যমান অংশ শিশ্নাগ্র একটি ছোটো বোতামের মতো অংশ যা মূত্রনালী উন্মুক্ত অংশের উপরে এবং ক্ষুদ্রোষ্ঠ(লেবিয়া মাইনরা) এর সম্মুখ সংযোগস্থলে। ভগাঙ্কুর পুরুষ শিশ্ন সমতুল্য তবে এতে সাধারণত মূত্রনালী খোলা থাকেনা। বেশিরভাগ প্রজাতিতে ভগাঙ্কুর কোনো প্রজনন কার্যের অংশ নয়। যদিও কিছু প্রাণী ভগাঙ্কুরের মধ্য দিয়ে প্রস্রাব করে বা এটি প্রজননগতভাবে ব্যবহার করে, যেমন: চিতল হায়েনা। যাদের বড় ভগাঙ্কুর রয়েছে যেটির মাধ্যমে প্রস্রাব করে, সঙ্গম করে এবং অঙ্গের মাধ্যমে জন্ম দেয়। এছাড়াও বড় ভগাঙ্কুর অন্যান্য স্তন্যপায়ী প্রাণী, যেমন: লেমুরমাকড়সা বানরেও বিদ্যমান।

ভগাঙ্কুর
যৌনিদ্বার, ভগাঙ্কুরীয় আবরণ এবং ক্ষুদ্রোষ্ঠ রেখা হিসাবে নির্দেশিত। ভগাঙ্কুর দৃশ্যমান অংশ থেকে তলপেটের নিম্নাংশের হাড়ের নিচের একটি বিন্দু পর্যন্ত বিস্তৃত।
বিস্তারিত
পূর্বভ্রূণযৌনাঙ্গের টিউবারকল
ধমনীভগাঙ্কুরের পৃষ্ঠীয় ধমনী, ভগাঙ্কুরের গভীর ধমনী
শিরাভগাঙ্কুরের পৃষ্ঠীয় শিরা, ভগাঙ্কুরের গভীর পৃষ্ঠীয় শিরা
স্নায়ুভগাঙ্কুরের পৃষ্ঠীয় স্নায়ু
শনাক্তকারী
লাতিনClitoris (ক্লিটোরিস)
মে-এসএইচD002987
টিএ৯৮A09.2.02.001
টিএ২3565
এফএমএFMA:9909
শারীরস্থান পরিভাষা

ভগাঙ্কুর হল মানব নারীদেহের সবচেয়ে সংবেদনশীল কামোদ্দীপক অঙ্গ এবং সাধারণত যৌন আনন্দের প্রাথমিক শারীরবৃত্তীয় উৎস। মানুষ এবং অন্যান্য স্তন্যপায়ী প্রাণীদের মধ্যে, এটি যৌনাঙ্গের টিউবারকল(শিশ্নাগ্র) নামক ভ্রূণের অগ্রভাগ থেকে বিকাশ লাভ করে। প্রাথমিকভাবে অপরিবর্তিত এন্ড্রোজেন (যা প্রাথমিকভাবে পুরুষালী হরমোন) এর প্রকটতার উপর নির্ভর করে প্রজনন ব্যবস্থার বিকাশের সময় শিশ্ন বা ভগাঙ্কুরে পরিণত হয়। ভগাঙ্কুর একটি জটিল গঠন, এর আকার এবং সংবেদনশীলতা পরিবর্তিত হতে পারে। মানুষের ভগাঙ্কুরের শিশ্নাগ্র(মাথা) মোটামুটি একটি মটরের দানার আকার-আকৃতি। অনুমান করা হয় ৮,০০০-১০,০০০-এর বেশি সংবেদনশীল স্নায়ু এত উন্মুক্ত। [১]

যৌনতাত্ত্বিক, চিকিৎসা এবং মনস্তাত্ত্বিক বিতর্কে ভগাঙ্কুর সামাজিক নির্মাণবাদী বিশ্লেষণ ও গবেষণার বিষয়। এই ধরনের আলোচনা শারীরবৃত্তীয় নির্ভুলতা, লিঙ্গ বৈষম্য, মহিলাদের যৌনাঙ্গের অঙ্গচ্ছেদ, রাগমোচনের কারণ এবং জি-স্পটের জন্য তাদের শারীরবৃত্তীয় ব্যাখ্যা থেকে শুরু হয়। যদিও মানুষের মধ্যে ভগাঙ্কুরের একমাত্র পরিচিত উদ্দেশ্য হল যৌন আনন্দ প্রদান করা। ভগাঙ্কুরটি নিষ্ক্রিয় অঙ্গ কিনা নাকি একটি অভিযোজন অথবা প্রজনন কাজ করে তা নিয়ে বেশ বিতর্ক হয়েছে। ভগাঙ্কুরের সামাজিক উপলব্ধিগুলির মধ্যে রয়েছে মহিলাদের যৌন আনন্দে এর ভূমিকার তাৎপর্য, এর প্রকৃত আকার, গভীরতা সম্পর্কে অনুমান এবং যৌনাঙ্গের পরিবর্তন সংক্রান্ত বিভিন্ন বিশ্বাস যেমন ভগাঙ্কুর বৃদ্ধি, ভগাঙ্কুর ভেদ করা এবং ভগাঙ্কুর ছিদ্র প্রভৃতি। যৌনাঙ্গের গঠন ও আকার-আকৃতি কৃত্রিমভাবে পরিবর্তন নান্দনিকতা, চিকিৎসা বা সাংস্কৃতিক কারণে হয়ে থাকে।

ভগাঙ্কুর সম্পর্কীত জ্ঞান অঙ্গটির সাংস্কৃতিক উপলব্ধি দ্বারা উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবিত হয়। অধ্যয়নগুলিতে বলা হয় যে অন্যান্য যৌন অঙ্গগুলির তুলনায় এর অস্তিত্ব,শারীরস্থান সম্পর্কে জ্ঞান খুব কম এবং এটি সম্পর্কে আরও শিক্ষা নারীদেহের যৌন আনন্দের সাথে সম্পর্কিত সামাজিক কলঙ্ক দূর করতে সাহায্য করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ: সাধারণভাবে ভগাঙ্কুর এবং ভালভা(যৌনিদ্বার) দৃশ্যত অদৃশ্যমান, হস্তমৈথুন ট্যাবু অথবা পুরুষদের মহিলাদের যৌন উত্তেজনা নিয়ন্ত্রণ আয়ত্ত করবে প্রভৃতি।

ব্যুৎপত্তি সম্পাদনা

অক্সফোর্ড ইংরেজি অভিধানে বলা হয়েছে যে ভগাঙ্কুর শব্দের উৎপত্তি সম্ভবত প্রাচীন গ্রীক κλειτορίς, kleitoris যা সম্ভবত ক্রিয়াবাচক শব্দ κλείειν বা kleiein থেকে উদ্ভূত যার বাংলা অর্থ "বন্ধ করতে"। ক্লিটোরিস শব্দটির গ্রীক ‘চাবিকাঠি’ বুঝাতেও ব্যবহৃত হয় আর "প্রাচীন শারীরতত্ত্ববিদরা এটিকে নারী যৌনতার চাবিকাঠি বলে মনে করেন।" চাবিকাঠি ছাড়াও, অনলাইন ব্যুৎপত্তি অভিধানে অন্যান্য গ্রীক শব্দের ব্যুৎপত্তির জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে একটি বিশেষ্য যার অর্থ "ছিটকিনি(Latch)" বা "হুক(Hook)"; একটি ক্রিয়া যার অর্থ "হুড়কা দেত্তয়া বা শিথিল করা", "সুড়সুড়ি দেওয়া" (ভগাঙ্কুরের একটি জার্মান প্রতিশব্দ হল ডার কিটজলার, "দ্য টিক্লার"), যদিও এই ক্রিয়াটি সম্ভবত "ভগাঙ্কুর" থেকে উদ্ভূত; এবং একটি শব্দ যার অর্থ "একটি পাহাড়ের পাশে", একই মূল থেকে উদ্ভুত শব্দ "ক্লাইম্যাক্স"(Climax)। অক্সফোর্ড ইংলিশ ডিকশনারী আরও বলে যে সংক্ষিপ্ত রূপ "ক্লিট(Clit)" যা প্রথমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ব্যবহার করা হয়েছিল ১৯৫৮ সালে একটি মুদ্রণে। তখন পর্যন্ত সাধারণ সংক্ষিপ্ত রূপটি ছিল "ক্লিট(Clit)"।

ভগাঙ্কুর(Clitoris) এর বহুবচন রূপ হল ইংরেজিতে ক্লিটোরাইজেস(clitorises) এবং ল্যাটিন ভাষায় ক্লিটোরাইডস(clitorides) । ল্যাটিন সম্বন্ধপদীয় কারকবিশেষ হল ভগাঙ্কুর, যেমন " গ্লান্স ক্লাইটোরিডিস (glans clitoridis)"। চিকিৎসা ও যৌনতাত্ত্বিক সাহিত্যে ভগাঙ্কুরকে কখনও কখনও "মহিলা লিঙ্গ" বা ছদ্ম-শিশ্ন হিসাবে উল্লেখ করা হয় এবং ক্লিটোরিস শব্দটি সাধারণত এককভাবে গ্লানসকে(শিশ্নাগ্র) বোঝাতে ব্যবহৃত হয়; আংশিকভাবে এই কারণে অঙ্গটির জন্য বিভিন্ন পদ রয়েছে যা ঐতিহাসিকভাবে এর শারীরস্থানকে বিভ্রান্ত করেছে ।

গঠন সম্পাদনা

বিকাশ সম্পাদনা

 
ভগাঙ্কুরের বিকাশের পর্যায়সমূহ

স্তন্যপায়ী প্রাণীদের যৌন পার্থক্য নির্ধারণ করা হয় শুক্রাণু দ্বারা। যা একটি X বা একটি Y (পুরুষ) ক্রোমোজোম বহন করে। Y ক্রোমোজোমে একটি লিঙ্গ-নির্ধারক জিন থাকে যা প্রোটিন টেস্টিস নির্ণয়কারী ফ্যাক্টর এর জন্য একটি ট্রান্সক্রিপশন ফ্যাক্টরকে এনকোড(গুপ্তপ্রণালীতে রচনা) করে এবং পুরুষালী ভ্রূণের বিকাশের জন্য টেস্টোস্টেরন এবং অ্যান্টি-মুলেরিয়ান হরমোন তৈরির সূত্রপাত করে। গর্ভধারণের প্রায় আট বা নয় সপ্তাহ পরে এই পার্থক্য দেখা য্য়। কিছু সূত্র জানায় যে এটি দ্বাদশ সপ্তাহ পর্যন্তও চলতে থাকে। অন্যরা বলে যে এটি ত্রয়োদশ সপ্তাহের মধ্যে স্পষ্টভাবে প্রতীয়মান হয় এবং যৌন অঙ্গসমূহ ষোড়শ সপ্তাহের মধ্যে সম্পূর্ণরূপে বিকশিত হতে থাকে।

ভগাঙ্কুরটি ভ্রূণের ফ্যালিক উপবৃদ্ধি থেকে বিকশিত হয় যাকে জেনিটাল টিউবারকল(জনন স্ফীতির অংশ) বলা হয়। প্রাথমিকভাবে অপরিবর্তিত এন্ড্রোজেন (যা প্রাথমিকভাবে পুরুষ হরমোন) এর উপর নির্ভর করে প্রজনন ব্যবস্থার বিকাশের সময় ভগাঙ্কুর বা শিশ্নে বিকশিত হয়। ভগাঙ্কুরগুলি একই টিস্যু থেকে তৈরি হয় যা শিশ্নের মুন্ড, শিশ্ন হয়ে যায় এবং এই ভাগ করা ভ্রূণের উৎপত্তি এই দুটি অঙ্গকে সমজাতীয় করে তোলে।

টেস্টোস্টেরনের কারণে যৌনাঙ্গের টিউবারকল(জনন স্ফীতির অংশ) লম্বা হয়ে লিঙ্গ গঠন করে। মূত্র ও জননাঙ্গভাঁজগুলির সংমিশ্রণ দ্বারা  দীর্ঘায়িত টাকু আকৃতির কাঠামো যা যৌনাঙ্গের টিউবারকলের পেটের দিকে মূত্রনালিস্থ খাঁজ গঠন করে  ইউরোজেনিটাল সিনাস সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হয়ে যায় এবং স্পঞ্জি মূত্রনালী তৈরি করে আর অন্ডকোষ ও অন্ডকোষীয় স্ফীত অংশ(Labioscrotal swelling) একত্রিত হয়ে অন্ডকোষ বা অন্ডথলি গঠন করে। টেস্টোস্টেরনের অনুপস্থিতিতে যৌনাঙ্গের টিউবারকল ভগাঙ্কুরে পরিণত হয়। জননেন্দ্রির প্রাথমিকভাবে দ্রুত বৃদ্ধি ধীরে ধীরে ধীর হয়ে যায় এবং ভগাঙ্কুর তৈরি হয়। ইউরোজেনিটাল সাইনাস যোনিপথের ভেস্টিবুল হিসাবে টিকে থাকে। দুটি ইউরোজেনিটাল ভাঁজ ল্যাবিয়া মাইনোরা গঠন করে এবং ল্যাবিওসক্রোটাল স্ফীতঅংশগুলি ল্যাবিয়া মেজোরা গঠনের জন্য প্রসারিত হয় যা নারীদের যৌনাঙ্গ সম্পূর্ণ করে। ক্লিটোরোমেগালি হল একটি বিরল অবস্থা যা গড় অ্যান্ড্রোজেন প্রকটের চেয়ে বেশি হতে পারে।

শারীরস্থান ও ইতিহাসতত্ত্ব সম্পাদনা

সাধারণত সম্পাদনা

 
জরায়ু ও মূত্রথলির সংলগ্ন অঙ্গসমূহের সাথে খাড়া অবস্থায় ভগাঙ্কুরের প্রথম থ্রিডি চিত্র যেটি হেলেন ও'কনেল এমআরআই ব্যবহার করে তৈরি করেন।
 
ভগাঙ্কুর; গভীর ব্যবচ্ছেদ

ভগাঙ্কুরে বাহ্যিক এবং অভ্যন্তরীণ উপাদান থাকে। এটি শিশ্নাগ্র, শরীর (যা কর্পোরা ক্যাভারনোসা নামে পরিচিত দুটি ইরেক্টাইল কাঠামোর সমন্বয়ে গঠিত) এবং দুটি ক্রুরা ("পা") নিয়ে গঠিত। এটি ল্যাবিয়া মাইনরা (অভ্যন্তরীণ ঠোঁট) দ্বারা গঠিত একটি ফণা বা আবরণ রয়েছে। এটিতে ভেস্টিবুলার বা ক্লিটোরাল কন্দ রয়েছে। ভগাঙ্কুরের ফ্রেনুলাম হল গ্ল্যান্সের নীচের পৃষ্ঠের একটি টিস্যুর ছোট ভাঁজ এবং এটি ল্যাবিয়া মাইনরার দুটি মধ্যবর্তী অংশ থেকে উদ্ভুত। ভগাঙ্কুরীয় অঙ্গ শ্যাফ্ট (সরু হাতলের মত অংশ বা দুটি পায়ের মত অংশ)। অন্যদিকে শিশ্নাগ্র এবং শরীরের মধ্যে ভগাঙ্কুরের দৈর্ঘ্যকেও শ্যাফ্ট হিসাবে উল্লেখ করা যেতে পারে। শ্যাফ্ট গ্ল্যানগুলিকে অবলম্বন করে। এর আকৃতিটি ভগাঙ্কুরীয় আবরণের মাধ্যমে দেখা এবং অনুভব করা যায়।

বিভিন্ন গবেষণা ইঙ্গিত করে যে ভগাঙ্কুরীয় টিস্যু যোনির পূর্ববর্তী প্রাচীরের মধ্যে প্রসারিত। সেনায়াল ও অন্যান্যরা বলেছেন যে ভগাঙ্কুর কলাস্থানবিদ্যার মূল্যায়নে, "বিশেষ করে কর্পোরা ক্যাভারনোসার অসম্পূর্ণ কারণ বহু বছর ধরে ভগাঙ্কুরকে একটি প্রাথমিক এবং অকার্যকর অঙ্গ হিসাবে বিবেচনা করা হত।" তারা আরও বলেন যে বাস্কিন এবং সহকর্মীরা ম্যাসন ক্রোম স্টেনিং এর পরে ইমেজিং সফ্টওয়্যার ব্যবহার করে ব্যবচ্ছেদের পরে ভগাঙ্কুরের পুরুষালিকরণ পরীক্ষা করেছেন। ধারাবাহিক ছিন্ন করা নমুনাগুলি একসাথে রেখেছিলেন; এটি প্রকাশ করে যে ভগাঙ্কুরের স্নায়ুগুলি পুরো ভগাঙ্কুরীয় বডি (কর্পাস) ঘিরে রাখে।

ভগাঙ্কুর, ভেস্টিবুলার বাল্ব(যোনির প্রবেশ পথের দু’পাশের বড় দুটি থলের মত অংশ), ল্যাবিয়া মাইনরা(ক্ষুদ্রোষ্ঠ) এবং মূত্রনালীতে দুটি হিস্টোলজিক্যালভাবে(কলাসংস্থানবিদ্যায়) স্বতন্ত্র ধরনের ভাস্কুলার টিস্যু ( রক্তনালীর সাথে সম্পর্কিত টিস্যু) জড়িত, যার মধ্যে প্রথমটি ট্র্যাবিকুলেটেড, ইরেক্টাইল টিস্যু ক্যাভারনাস স্নায়ু দ্বারা উদ্ভূত। ট্র্যাবিকুলেটেড টিস্যু একটি স্পঞ্জি চেহারা আছে; রক্তের সাথে, এটি ভগাঙ্কুর এবং বাল্বের বড়, প্রসারিত ভাস্কুলার স্থান পূরণ করে। ভাস্কুলার এলাকার এপিথেলিয়ামের নীচে মসৃণ পেশী থাকে। ইয়াং এট আল-এর গবেষণা দ্বারা নির্দেশিত হয় এটিও হতে পারে ইউরেথ্রাল লুমেন (মূত্রনালীর অভ্যন্তরীণ খোলা স্থান বা গহ্বর), যা স্পঞ্জি টিস্যু দ্বারা বেষ্টিত, সেখানে টিস্যু রয়েছে যা "ভাস্কুলার টিস্যু থেকে সম্পূর্ণরূপে পৃথক। ভগাঙ্কুর ও বাল্ব(সবচেয়ে স্ফীত থলির মত অংশ দুটি) এবং ম্যাক্রোস্কোপিক পর্যবেক্ষণে ধ্বংসপ্রাপ্ত টিস্যুর চেয়ে ফ্যাকাশে। দ্বিতীয় ধরনের ভাস্কুলার টিস্যু হল নন-ইরেক্টাইল যা রক্তনালীগুলি নিয়ে গঠিত হতে পারে যা একটি তন্তুযুক্ত ম্যাট্রিক্সের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে এবং শুধুমাত্র ন্যূনতম পরিমাণে মসৃণ পেশী থাকে।

গ্লানস(শিশ্নাগ্র) এবং শরীর সম্পাদনা

 
একটি আংশিকভাবে উন্মুক্ত ক্লিটোরাল গ্লানস বা ভগাঙ্কুরীয় শিশ্নাগ্র, যা ক্লিটোরাল হুডের(ভগাঙ্কুরীয় আবরণ) সাথে সামঞ্জস্যে অল্প ক্ষেত্রের কারণে সম্পূর্ণরূপে প্রকাশ করা যায় না

গ্ল্যানগুলি (স্নায়ু মুখ) একটি তন্তুময় রক্তনালী হিসাবে ভগাঙ্কুরীয় গাত্রের ডগায় বিদ্যমান থাকে । এটি সাধারণত একটি মটরের আকার-আকৃতির হয়। এটি কখনও কখনও অনেক বড় বা ছোট হয়। ক্লিটোরাল গ্ল্যান্স বা ভগাঙ্কুরীয় শিশ্নাগ্র ও সম্পূর্ণ ভগাঙ্কুরে অনুমান করা হয় ৮,০০০-১০,০০০-এরও বেশি সংবেদনশীল স্নায়ু উন্মুক্ত। [১] শিশ্নাগ্র ইরেক্টাইল(উন্নয়নক্ষম) বা অ-ইরেক্টাইল(অ-উন্নয়নক্ষম) টিস্যু দিয়ে গঠিত কিনা তা নিয়ে গবেষণা দ্বন্দ্ব চলছে। যদিও ভগাঙ্কুর যৌন উত্তেজনার সময় রক্তে পরিপূর্ণ হয়ে যায় যার ফলে ভগাঙ্কুর উত্থান ঘটে।

গ্ল্যান্স বা শিশ্নাগ্র সম্পর্কে অন্যান্য বর্ণনায় দাবি করা হয়েছে যে এটি ইরেক্টাইল(উন্নয়নক্ষম) টিস্যু দিয়ে গঠিত এবং ইরেক্টাইল টিস্যু ল্যাবিয়া মাইনরার(ক্ষুদ্রোষ্ঠ) মধ্যে উপস্থিত রয়েছে। শিশ্নাগ্রগুলিকে গ্রন্থিযুক্ত সংবহনতান্ত্রিক মাধ্যম হিসাবে উল্লেখ করা যেতে পারে যা ক্লিটোরাল(ভগাঙ্কুরীয়) দেহের মতো নয়, মাধ্যমগুলি শরীর এবং ক্রুরার চেয়ে মসৃণ পেশী দ্বারা বেশি আলাদা করা হয়। চর্বিযুক্ত টিস্যু ল্যাবিয়া মাইনোরা বা ক্ষুদ্রোষ্ঠে অনুপস্থিত, তবে অঙ্গটিকে ঘন সংযোগকারী টিস্যু, ইরেক্টাইল টিস্যু এবং স্হিতিস্থাপক তন্তু দ্বারা গঠিত হিসাবে বর্ণনা করা যেতে পারে।

 
ভগাঙ্কুরের বাহ্যিক এবং অভ্যন্তরীণ অংশ সহ ভালভা বা যৌনিদ্বারের গঠন
 

ভগাঙ্কুরীয় অঙ্গ বা বডি একটি উইশবোন (V আকৃতির গঠন) গঠন করে যাতে কর্পোরা ক্যাভারনোসা (ভগাঙ্কুরীয় দু’পায়ের মত অংশ) থাকে । ইরেক্টাইল(উন্নয়নক্ষম) টিস্যুর একজোড়া স্পঞ্জের মতো অঞ্চলে ভগাঙ্কুর উত্থানের সময় ভগাঙ্কুরের বেশিরভাগ রক্ত থাকে। ভগাঙ্কুরীয় অঙ্গ গঠনকারী দুটি কর্পোরা(পা বা হাতলের মত দুটি অংশ) পুরু তন্তু-স্থিতিস্থাপক ঝিল্লি বা আবরণ অ্যালবুগিনিয়া দ্বারা বেষ্টিত, যার আক্ষরিক অর্থ "সাদা আচ্ছাদন", সংযোগকারী টিস্যু। এই কর্পোরাগুলি একটি তন্তুময় পেকটিনিফর্ম সেপ্টাম দ্বারা মধ্যরেখায় একে অপরের থেকে অসম্পূর্ণভাবে পৃথক হয় - কর্পোরা ক্যাভারনোসার(ভগাঙ্কুরীয় দুটি পা বা হাতলের মত অংশ) মধ্যে প্রসারিত সংযোগকারী টিস্যুর একটি কম্বলিক(ঝুঁটির মত) ব্যান্ড(ফিতের মত গঠন)।


ভগাঙ্কুরীয় শিশ্নাগ্রের আকার বা সামগ্রিকভাবে ভগাঙ্কুর একজন মহিলার বয়স, উচ্চতা, ওজন, হরমোনের গর্ভনিরোধক ব্যবহার বা মেনোপজ-পরবর্তী হওয়ার মধ্যে কোনও চিহ্নিত সম্পর্ক নেই। যদিও যে মহিলারা ইতিমধ্যেই সন্তান জন্ম দিয়েছে তাদের ভগাঙ্কুর উল্লেখযোগ্যভাবে বড় হতে পারে। ভগাঙ্কুরের পরিমাপ সেন্টিমিটার (সেমি) এবং মিলিমিটার (মিমি) পরিমাপ এর আকারের ভিন্নতা দেখায়। ভগাঙ্কুরীয় শিশ্নাগ্র সাধারণত ১-২ সেন্টিমিটার হয় এবং সাধারণত ৪-৫ মিমি অনুমান করা হচ্ছে অনুপ্রস্থ এবং অনুদৈর্ঘ্য সমতল উভয় ক্ষেত্রে।

১৯৯২ সালের একটি গবেষণায় উপসংহারে বলা হয়েছে যে শিশ্নাগ্র এবং অঙ্গ সহ মোট ভগাঙ্কুরীয় দৈর্ঘ্য ১৬.০ ± ৪.৩ মিমি (০.৬৩ ± ০.১৭ ইঞ্চি), যেখানে ১৬ মিমি (০.৬৩ ইঞ্চি) গড় এবং ৪.৩ মিমি (০.১৭ ইঞ্চি) হল প্রমিত বিচ্যুতি। অন্যান্য গবেষণার বিষয়ে লন্ডনের এলিজাবেথ গ্যারেট অ্যান্ডারসন এবং প্রসূতি হাসপাতালের গবেষকরা ২০০৩ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত ১৮ থেকে ৫০ বছর বয়সী ৫০ জন মহিলার ল্যাবিয়া এবং অন্যান্য যৌনাঙ্গের গঠন পরিমাপ করেন। ক্লিটোরাল গ্ল্যান্সের বা ভগাঙ্কুরীয় শিশ্নাগ্র ছিল ৩-১০মিমি পরিসরের এবং গড়ে ৫.৫ মিমি। অন্যান্য গবেষণা ইঙ্গিত করে যে ক্লিটোরাল বডি বা ভগাঙ্কুরীয় অঙ্গ দৈর্ঘ্যে ৫–৭ সেন্টিমিটার (২.০–২.৮ ইঞ্চি)। যখন ক্লিটোরাল বডি বা ভগাঙ্কুরীয় অঙ্গ এবং ক্রুরা (পা বা হাতলের মত দুটি অংশ) একসাথে দৈর্ঘ্য ১০ সেন্টিমিটার (৩.৯ ইঞ্চি) হতে পারে বা তার বেশি ।

আবরণ বা ঘোমটা সম্পাদনা

 
বিভিন্ন প্রাপ্তবয়স্ক মহিলাদের মধ্যে ক্লিটোরাল হুডের বা ভগাঙ্কুরীয় আবরণের আকার এবং চেহারাতে একটি স্বাভাবিক শারীরবৃত্তীয় তারতম্য রয়েছে: কিছু মহিলাদের মধ্যে এটি সম্পূর্ণরূপে ল্যাবিয়া মেজোরা(বৃহদোষ্ঠ) দ্বারা আবৃত থাকে এবং এটি স্পষ্টভাবে দৃশ্যমান।
 
(1)ক্লিটোরাল হুড বা ভগাঙ্কুরীয় আবরণ, (2)ভগাঙ্কুর ও (3) লেবিয়া নীচের দিকে আলাদাভাবে পাপড়ির মত ছড়িয়ে আছে।

লেবিয়া ম্যাজোরা বা প্রধান ওষ্ঠ সামনের ক্লিটোরাল হুড দৃশ্যমান, যেখানে ল্যাবিয়া মেজোরা (বাহ্যিক ঠোঁট) এর প্রান্তগুলি পিউবিক মাউন্ডের গোড়ায় মিলিত হয়; এটি আংশিকভাবে ল্যাবিয়া মাইনোরা (অভ্যন্তরীণ ঠোঁট) এর বহিরাগত ভাঁজের উপরের অংশের সংমিশ্রণ দ্বারা গঠিত হয় এবং গ্লানস এবং বাহ্যিক খাদকে ঢেকে রাখে। সম্পূর্ণরূপে ঢেকে থাকা থেকে সম্পূর্ণরূপে উন্মুক্ত হওয়া পর্যন্ত কতটা গ্লানস ফণা থেকে বেরিয়ে আসে এবং কতটা তার দ্বারা আবৃত থাকে তার মধ্যে যথেষ্ট পার্থক্য রয়েছে, এবং ল্যাবিয়া মাইনোরার টিস্যুও গ্ল্যানের গোড়াকে ঘিরে রাখে।

কাজ সম্পাদনা

ভগাঙ্কুরে অনেক স্নায়ুর প্রান্ত সম্মিলিত এবং এটি মানব নারীর সবচেয়ে সংবেদনশীল কামোদ্দীপক অংশ যা মানব নারীর যৌন আনন্দের প্রাথমিক শারীরবৃত্তীয় উৎস। যখন যৌন উত্তেজনা তৈরী হয় এটি মহিলাদের যৌন উত্তেজনাকে উস্কে দিতে পারে। যৌন উদ্দীপনা, উত্তেজনা সহ, মানসিক উদ্দীপনা, যৌন সঙ্গীর সাথে ফোরপ্লে(যৌন পরিতোষের জন্য শরীরকে উদ্দীপিত করা) বা হস্তমৈথুনের ফলে এটি উত্তেজিত হতে পারে এবং এতে রাগমোচন হতে পারে। অঙ্গটির সবচেয়ে কার্যকরী যৌন উদ্দীপনা সাধারণত অঙ্গুলিসঞ্চালন বা মুখমৈথুনের মাধ্যমে হয়। যৌন প্রবেশক্রিয়ার ক্ষেত্রে এই ক্রিয়াকলাপগুলি অতিরিক্ত বা সহায়ক ভগাঙ্কুরীয় উদ্দীপনা হিসাবেও উল্লেখ করা যেতে পারে।

আরও দেখুন সম্পাদনা

  • ক্লিটোরাল পাম্প
  • ক্লিটোরিয়া, এক প্রকার ক্রান্তীয় উদ্ভিদ
  • ক্লিটোরেইড, একটি অলাভজনক সংস্থা যা মহিলাদের যৌনাঙ্গ বিকৃতির বিরুদ্ধে কাজ করে৷
  • মানব যৌনতা বিবর্তন

মন্তব্য সম্পাদনা

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; ohsu/10-000-nerve নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি