প্রথম বায়েজীদ: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
(লিঙ্কের পরামর্শ: ৮টি লিঙ্ক যুক্ত করা হয়েছে।)
সম্পাদনা সারাংশ নেই
| regent =
| reg-type =
| successor = [[উসমানীয় গৃহযুদ্ধঅন্তবর্তীকাল|''গৃহযুদ্ধঅন্তবর্তীকাল'']] (১৪০২ – ১৪১৩)<br />[[প্রথম মুহাম্মদ (উসমানীয় সুলতান)|প্রথম মুহাম্মদ]]
| suc-type = উত্তরসূরি
| spouse = দাওলাত খাতুন<br/>হাফসা খাতুন<br/>দেসপিনা খাতুন<br/>মারিয়া খাতুন
| signature = Tughra of Bayezid I.JPG
}}
'''প্রথম বায়েজীদ''' ({{lang-ota|بايزيد اول}},''বা‌য়েজীদ-ই-আউওয়াল''(ডাকনাম= ''ইলদিরিম'') (উসমানীয় তুর্কি: ییلدیرم), "'''বজ্রপাত বা বজ্রকঠিন।<sanjak e osman &sultan kahini><ref>http://www.britannica.com/biography/Bayezid-I</ref>'''") (৯ জানুয়ারি ১৩৬০ – ৮ মার্চ ১৪০৩) ছিলেন উসমানীয় সুলতান। তিনি ১৩৮৯ থেকে ১৪০২ সাল পর্যন্ত শাসন করেছেন। তিনি সুলতান [[প্রথম মুরাদ]] ও গুলচিচেক খাতুনের পুত্র।<ref name=Lowry>Lowry, Heath W. (2003) ''The Nature of the Early Ottoman State''. Albany, NY: State University of New York Press, p. 153</ref><ref name=Runciman>Runciman, Steven ''The Fall of Constantinople''. Cambridge: Cambridge University Press, p. 36</ref> তিনি একটি সুবিশাল সেনাবাহিনী গড়ে তোলেন। তিনি কনস্টান্টিনোপলও আক্রমণ করেছিলেন তবে তাতে ব্যর্থ হন। ১৪০২ সালে [[আঙ্কারার যুদ্ধ|আঙ্কারার যুদ্ধে]] তিনি [[তৈমুর লং|তৈমুর লঙের]] কাছে পরাজিত ও বন্দী হন। বন্দী অবস্থায় ১৪০৩ সালের মার্চে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।
 
==জীবনী==
কনস্টান্টিনোপলের অবরোধ ১৪০২ সাল পর্যন্ত চলে।<ref>Nancy Bisaha, ''Creating East And West: Renaissance Humanists And the Ottoman Turks'', (University of Pennsylvania Press, 2004), 98.</ref> বায়েজীদ পূর্ব দিকে তিমুরি সাম্রাজ্যের সাথে লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়ার পর বাইজেন্টাইনরা অবরোধ থেকে নিস্কৃতি পায়।<ref>Dimitris J. Kastritsis, ''The Sons of Bayezid: Empire Building and Representation in the Ottoman Civil War of 1402-13'', (Brill, 2007), 5.</ref> এসময় ইউরোপে উসমানীয় সাম্রাজ্য [[থ্রেস]] (কনস্টান্টিনোপল ব্যতীত), মেসিডোনিয়া, বুলগেরিয়া ও সার্বিয়ার অংশ জুড়ে ছিল। এশিয়ায় সাম্রাজ্য [[তোরোস পর্বতমালা]] পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। বায়েজীদের সেনাবাহিনী মুসলিম বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ হিসেবে বিবেচিত হত এবং বায়েজীদ মুসলিম বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী শাসক হিসেবে পরিচিত ছিলেন। ১৪০০ সালে [[মধ্য এশিয়া|মধ্য এশিয়ার]] শাসক তৈমুর লং আনাতোলিয়ার উসমানীয়দের অধীনে বেয়লিকগুলোকে নিজের পক্ষে আনেন। ১৪০২ সালের ২০ জুলাই সংঘটিত [[আঙ্কারার যুদ্ধ|আঙ্কারার যুদ্ধে]] উসমানীয়রা পরাজিত হয় এবং বায়েজীদ বন্দী হন। অনেক লেখকের মতে তৈমুর বায়েজীদের সাথে দুর্ব্যবহার করেছিলেন। তবে তৈমুরের দরবারের লেখক ও ইতিহাসবিদের লেখা অনুযায়ী বায়েজীদের সাথে ভালো আচরণ করা হয়েছিল এবং তার মৃত্যুতে তৈমুর শোক পালন করেছিলেন। বায়েজীদের এক পুত্র [[মুস্তাফা চেলেবি]] তার সাথে বন্দী হন। তাকে ১৪০৫ সাল পর্যন্ত তিনি সমরকন্দে বন্দী ছিলেন।
 
বায়েজীদের পুত্র [[সুলাইমান চেলেবি]], [[ঈসা চেলেবি]], [[প্রথম মুহাম্মদ (উসমানীয় সুলতান)|মুহাম্মদ চেলেবি]] ও [[মুসা চেলেবি]] যুদ্ধক্ষেত্র থেকে পালিয়ে যেতে সক্ষম হন। পরে সিংহাসন নিয়ে তাদের মধ্যে [[উসমানীয় গৃহযুদ্ধঅন্তবর্তীকাল|গৃহযুদ্ধ]] দেখা দেয়।<ref>Dimitris J. Kastritsis,1-3.</ref> মুহাম্মদ১৩১৩ খ্রিস্টাব্দে কা জয়ের পর [[প্রথম মুহাম্মদ (উসমানীয় সুলতান)|প্রথম মুহাম্মদ]] হিসেবে সিংহাসনে বসেন।
 
==স্মরণ==
{{S-bef|before=[[প্রথম মুরাদ]]}}
{{S-ttl|title=[[উসমানীয় সুলতানদের তালিকা|উসমানীয় সুলতান]]|years= ১৬ জুন ১৩৮৯ – ৮ মার্চ ১৪০৩}}
{{S-aft|after=<small>[[প্রথম মুহাম্মদ (উসমানীয় সুলতান)অন্তবর্তীকাল|প্রথম মুহাম্মদঅন্তবর্তীকাল]]}}</small>
[[প্রথম মুহাম্মদ (উসমানীয় সুলতান)|প্রথম মুহাম্মদ]]}}
{{s-end}}