বাংলাদেশ রেলওয়ের অঞ্চলসমূহ

বাংলাদেশ রেলওয়ের পরিচালনা অঞ্চল দুইটি অংশে ভাগ করা হয়েছে, একটি অংশ যমুনা নদীর পূর্ব পাশে পূর্বাঞ্চল রেলওয়ে এবং অপরটি যমুনা নদীর পশ্চিম পাশে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে। পূর্ব পাশের অংশের দৈর্ঘ্য ১,২৭৯ কিলোমিটার এবং পশ্চিম পাশের অংশের দৈর্ঘ্য ১,৪২৭ কিলোমিটার।[১]

পূর্বাঞ্চল রেলওয়েসম্পাদনা

পূর্বাঞ্চল রেলওয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ে পরিচালিত একটি রেলওয়ে অঞ্চল। বাংলাদেশের ঢাকা বিভাগ, ময়মনসিংহ বিভাগ, সিলেট বিভাগচট্টগ্রাম বিভাগ নিয়ে এই অঞ্চলটি গঠিত। পূর্বাচল রেলওয়ের প্রধান কার্যালয় চট্টগ্রামে অবস্থিত। পূর্বাঞ্চল রেলওেয়ের অধীনে দুইটি বিভাগ রয়েছে। যথা:

  • চট্টগ্রাম বিভাগ[২]
  • ঢাকা বিভাগ[৩]

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়েসম্পাদনা

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ে পরিচালিত একটি রেলওয়ে অঞ্চল। বাংলাদেশের রংপুর বিভাগ, রাজশাহী বিভাগ, ফরিদপুর বিভাগখুলনা বিভাগ নিয়ে এই অঞ্চলটি গঠিত। পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের প্রধান কার্যালয় রাজশাহীতে অবস্থিত। পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের অধীনে দুইটি বিভাগ রয়েছে। যথা:

  • পাকশী বিভাগ[২]
  • লালমনিরহাট বিভাগ[৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "রাজশাহীতে প্রথমবারের মত রেল দিবস পালিত"dailysunshine.com.bd। ২০২০-১১-১৫। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-২৬ 
  2. "৪টি অঞ্চল ও ৮ বিভাগে উন্নীত হচ্ছে রেল"দৈনিক ইনকিলাব। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-২৬ 
  3. "চার অঞ্চলে ভাগ হচ্ছে বাংলাদেশ রেলওয়ে"banglanews24.com। ২০১৭-০২-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-২৬