তান্‌জুং পেরাক বন্দর

তান্‌জুং পেরাক বন্দর হল সুরাবায়া শহরের প্রধান বন্দর এবং দেশের ব্যাস্ততম বন্দরগুলির একটি। এটা দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার মধ্যে জাহাজি পণ্য পরিবহনকারী শ্রেষ্ঠ দশটি সর্বাধিক ব্যাস্ত বন্দরের একটি। এটি জাভা দ্বীপের পূর্ব অংশের প্রধান বন্দর। উত্তর বন্দরটি মাদুরা প্রণালী দিয়ে উত্তর থেকে প্রবেশের ব্যবস্থা করা হয়েছে, এটি পূর্ব জাভা এবং মাদুরা দ্বীপের মধ্যে একটি ২৫ মাইল দীর্ঘ, ১০০ মিটার প্রশস্ত এবং ৯.৫ মিটার গভীর চ্যানেল নিয়ে গঠিত। এর কৌশলগত অবস্থান এবং আশেপাশের সুবিধাজনক আন্তঃপ্রদেশের অস্তিত্বের কারণে, বন্দরটি পূর্ব ইন্দোনেশিয়ার জন্য আন্তঃ দ্বীপপুঞ্জের কেন্দ্রে হিসাবে গঠিত হয়েছে।[৩] বন্দরের কনটেইনার টার্মিনালটি টার্মিনাল পেটিকামাস নামে পরিচিত। বন্দরটি ২০১৭ এবং ২০১৮ সালের সময়কালে যথাক্রমে ৩.৫৫ মিলিয়ন এবং ৩.৮ মিলিয়ন টিইইউ কন্টেইনার পণ্য ভরেছে এবং খালাস করা হয়েছে। লয়েডের ওয়ান হান্ড্রেড পোর্টস তালিকাতে ২০১৯ সালের হিসাবে কনটেইনার বন্দরটি বিশ্বের ৪৩ তম ব্যস্ত স্থান হিসাবে স্থান পেয়েছে।[৪]

তান্‌জুং পেরাক বন্দর
পেলাবহান তান্‌জুং পেরাক
ANTARA FOTO-Eric Ireng TERMINAL PETIKEMAS SURABAYA.jpg
তান্‌জুং পেরাকের কনটেইনার টার্মিনাল
তান্‌জুং পেরাক ইন্দোনেশিয়া-এ অবস্থিত
তান্‌জুং পেরাক
তান্‌জুং পেরাক
অবস্থান
দেশইন্দোনেশিয়া ইন্দোনেশিয়া
অবস্থানসুরাবায়া
স্থানাঙ্ক৭°১১′৫৪″ দক্ষিণ ১১২°৪৩′২২″ পূর্ব / ৭.১৯৮৩৩° দক্ষিণ ১১২.৭২২৭৮° পূর্ব / -7.19833; 112.72278স্থানাঙ্ক: ৭°১১′৫৪″ দক্ষিণ ১১২°৪৩′২২″ পূর্ব / ৭.১৯৮৩৩° দক্ষিণ ১১২.৭২২৭৮° পূর্ব / -7.19833; 112.72278
বিস্তারিত
চালু১৯২৫[১]
মালিকপিটি পেলাবহান ইন্দোনেশিয়া ৩
পোতাশ্রয়ের প্রকারপ্রাকৃতিক
পোতাশ্রয়ের আকার১০২৯ হেক্টর
জমির আয়তন৫৪৫ হেক্টর
আকার১৫৭৪ হেক্টর
ড্রাফটের গভীরতা১৬ মি (৫২ ফু)
প্রবেশের সড়কসুরবায়া – পোরং টোল রোড সুরবায়া – গ্র্যাসিক টোল রোড
স্থপতিজেরিট ডি জং[১]
পরিসংখ্যান
বার্ষিক কার্গো টন৩,৩২২৭,৮৪৮ (২০১১)
বার্ষিক কন্টেইনারের আয়তন৩.১৩মিলিয়ন টিইউ'র (২০১৪)
যাত্রী গমনাগমন৯০,৪৪,৪৯৯ (২০১১)
মোট আয়আরপি২.০১ ট্রিলিয়ন (সিওয়াই ২০১৭)[২]
ওয়েবসাইট
pelindo.co.id

ইতিহাসসম্পাদনা

বিংশ শতাব্দীর আগে, সুরাবায়ার সামুদ্রীক জাহাজগুলি মাদুরা প্রণালীতে পণ্য ভরা ও খালাসের কার্যক্রম চালিয়েছে এবং তারপরে কালিমা নদীর তীরে অবস্থিত জেম্বতন মেরাহে (তৎকালীন প্রথম বন্দর) বার্জ এবং নৌকা দিয়ে পণ্য পরিবহন করত। বাণিজ্য, পণ্যসম্ভার এবং পরিবহন জট বৃদ্ধির কারণে, বন্দরে উপলভ্য সুবিধাগুলি অপর্যাপ্ত ছিল।

১৮৭৫ সালে ইর ডাব্লু ডি জংহ্ট তানজং পেরকের বন্দর নির্মাণের পরিকল্পনা করেছিলেন, তহবিলের ঘাটতির কারণে পরিকল্পনাটি বাস্তবায়িত হয়নি। ২০ শতকের শুরুতে ইর ডাব্লু ডি ভ্যান গুর বন্দরের জন্য আরেকটি প্রস্তাব জমা করেন। ১৯১০ সালে বন্দরের নির্মাণকাজ শুরু হয়। তানজং পেরকের নির্মাণ কাজ সমাপ্তির পরে, কালিমাস বন্দর শুধু মাত্র স্থানীয় উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হতে শুরু হয় এবং জেম্বাতান মেরাহ ধীরে ধীরে পরিত্যক্ত হয়। ১৯৮৩ সালে বন্দরে একটি আন্তঃ-দ্বীপ টার্মিনাল নির্মিত হয়। যাত্রীবাহী ফেরি টার্মিনালটিও নির্মিত হয়। আন্তর্জাতিক কনটেইনার টার্মিনাল পেটিকামাস-এর নির্মাণ কাজ ১৯৯২ সালে শেষ হয়।[৫]

২০১৫ সালের মাঝামাঝি সময়ে ১০,০০০ টি টিইইউ ধারন ক্ষমতা যুক্ত পঞ্চম প্রজন্মের জাহাজ পরিচালনা করতে বন্দরটির গভীরতা ড্রেজিং করে ১৪ মিটার (৪৬ ফুট) করা হয়। এর পর ২০১৬ সালের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে বন্দর চ্যানেলকে ২০০ মিটার (৬৬০ ফুট) চওড়া ও ১৬ মিটার (৫২ ফুট) গভীরতায় উন্নিত করা হয় ১৫,০০০ টিইইউ ধারন ক্ষমতা যুক্ত বা ৭ তম প্রজন্মের জাহাজগুলি জাহাজ পরিচালনা করতে।[৬]

অবস্থানসম্পাদনা

এই বন্দরটি সুরাবায়া শহরের কেন্দ্র স্থল থেকে ১৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এটি সুরাবায়া শহরের প্রধান বন্দর। এই বন্দরটি শহরের পূর্ব দিকে এবং জাভা দ্বীপের পূর্ব দিকে অবস্থিত। বন্দরটি সমুদ্র সমতল থেকে ০ থেকে ২ মিটার উচ্চতায় অবস্থিত।

সু্যোগ-সুবিধাসম্পাদনা

বন্দরে ৬ টি প্রধান টার্মিনাল, প্রচলিত কার্গো পরিচালনার জন্য বহুমুখী টার্মিনাল, যাত্রীবাহী টার্মিনাল, আরআরও এবং একটি আন্তর্জাতিক কনটেইনার টার্মিনাল রয়েছে। বন্দরে টগিং, পাইলট, বাঙ্কার, সঞ্চয় এবং শিপইয়ার্ড পরিষেবা সরবরাহ করা হয়। ২০১৫ সালে থেকে বন্দরের কার্যক্রম তেলুক লামং পোর্ট টার্মিনাল দ্বারা সমর্থিত, এটি বিশ্বের অন্যতম পরিশীলিত বন্দর টার্মিনাল যেখানে পুরো পরিচালনা ব্যবস্থা স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরিচালিত। তানজং পেরাক বন্দরটি ডক দ্বারা সুবিধায় সজ্জিত, যা দেশী এবং বিদেশ থেকে আসা ক্রুজ জাহাজকে পরিষেবা প্রদান করে। বর্তমানে সর্ববৃহৎ আন্তর্জাতিক জাহাজ নবম প্রজন্মের।[৬] অঞ্চলের অন্য একটি বন্দর সুরাবায়া শহরের কেন্দ্র থেকে ২২ কিলোমিটার দূরবর্তী গ্রেসিক্‌ শহরে অবস্থিত।

২০১৪ সালের মে মাসে তান্‌জুং পেরাক বন্দর-এর অংশ হিসাবে, দুটি শিপ টু শোর(এস টি এস) ক্রেন, পাঁচটি অটোমেটেড স্টকিং ক্রেন(এ এস সি), এবং একটি অটোমোটিভ টার্মিনাল ট্রাক্টর(এ টি টি) সহ নতুন তেলুক লামং গ্রিন সি পোর্ট, থেকে পরীক্ষামূলক জাহাজচালনা শুরু হয়। প্রাথমিকভাবে নতুন এই বন্দরের সুবিধা আন্তর্জাতিক জাহাজ পরিবহনে ব্যবহৃত হবে, যার পরিমাণ মনে করা হচ্ছে যে সপ্তাহ প্রতি ৭টি জাহাজ, আর যদি অতিরিক্ত ক্ষমতা অবশিষ্ট থাকে তো তা অন্তদেশিয় জাহাজ পরিবহনে ব্যবহার করা হতে পারে। নতুন সুবিধায় কাগজের কম ব্যবহার করা হবে এবং বন্দর এলাকাতে ধারক পরিবাহী গ্যাস ট্রাক ব্যবহৃত হবে।[৭][৮] ২০১৫ সালের জানুয়ারি মাসে, ২৫০ মিটার জেটির ১৪টি পর্যন্ত এল ডব্লিউ এস আন্তর্জাতিক জাহাজ উপযোগী বিশালায়তন শুষ্ক বন্দর তৈরি করা হবে যার নির্মাণকার্য এক বছরের মধ্যে শেষ হবে বলে মনে করা হচ্ছে। বন্দরে পরিবাহক এবং ৮ হেক্টর পণ্যাগার সহ সম্পূর্ণ দুটি একক "জাহাজ খালাসি ব্যাবস্থা" থাকবে। শুষ্ক বিশালায়তন টার্মিনাল থাকবে ২৬ হেক্টর এলাকা জুড়ে এবং ২,০০,০০,০০০ টনের ক্ষমতা সম্পন্ন ৩৬ হেক্টর এলাকা, সহায়ক এলাকা হিসাবে থাকবে।[৯]

গাপুরা সূর্য নুসন্তারাসম্পাদনা

বন্দরের নতুন যাত্রীবাহী টার্মিনালটি গাপুরা সূর্য নুসন্তর নামে পরিচিত, যা ২০১৪ সালে চালু হয়।[১০] ইন্দোনেশিয়ায় এই টার্মিনালটি তর্কসাপেক্ষে সেরা, যা যাত্রীবাহী সেতু, টিকিট কাউন্টার, আরামকক্ষ এবং খাবারের দোকান'সহ একটি বিমানবন্দর টার্মিনালের মতো আধুনিক সাধারণ ক্ষমা ও সুবিধাসমূহ দ্বারা নির্মিত।[১১] টার্মিনালটি সবুজ স্থাপত্য, পরিবেশ বান্ধব এবং শক্তি সাশ্রয় প্রযুক্তির ধারণা দ্বারা নির্মিত হয়েছে। টার্মিনালের নিকাশী শোধনাগার (এসটিপি) বর্জ্য জল পুনর্ব্যবহার করতে পারে, যা টয়লেট ফ্লাশ করার জন্য ব্যবহার করা হয়। টার্মিনালটিতে ৪,০০০ যাত্রী ধারণক্ষমতা'সহ ১৬,১২০ বর্গমিটার এলাকা জুড়ে ৩ টি তলা রয়েছে।[১২] টার্মিনালটি ইন্দোনেশিয়ার বিভিন্ন বন্দরগুলিতে নিয়মিত যাত্রীবাহী জাহাজ পরিষেবা পরিচালনা করে, যা আন্তর্জাতিক ক্রুজ জাহাজগুলিরও টার্মিনাল হিসাবে কাজ করে।[১৩]

পোতাশ্রয়সম্পাদনা

বন্দরটির পোতাশ্রয়টির গভীরতা ১৬ মিটার। এই বন্দর ১৫,০০০ টিইইউ ক্ষমতার জাহাজ ধারন করতে পারে।

পশ্চাৎ ভূমিসম্পাদনা

এই বন্দরের পশ্চাৎ ভূমি পূর্ব জাভা তথা জাভা দ্বীপের পূর্ব অংশ।

বিস্তৃত দৃশ্যসম্পাদনা

 
পশ্চিম তান্‌জুং পেরাক পোতাশ্রয়ের বিস্তৃত দৃশ্য

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Dari Kalimas hingga Tanjung Perak | Majalah Dermaga"www.majalahdermaga.co.id। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৯-৩০ 
  2. PricewaterhouseCoopers। "Efficiency measures proven effective, Pelindo III profit soars 41%"PwC (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৯-৩০ 
  3. "Tanjung Perak"। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০১৯ 
  4. "One Hundred Ports 2019"। ২৬ আগস্ট ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১৯ 
  5. "History of Port Tanjung Perak" 
  6. "Pertengahan 2015, Kapal Generasi Lima Sandar di Tanjung Perak"। নভেম্বর ১৬, ২০১৪। 
  7. Miftahul Ulum। "Teluk Lamong Can Serve 7 International Ships"। ৮ মে ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ৮, ২০১৪ 
  8. "Pelindo III to start trial runs at Teluk Lamong port in May"। সংগ্রহের তারিখ মে ৮, ২০১৪ 
  9. Titis Jati Permata (ডিসেম্বর ২৭, ২০১৪)। "2015, Dermaga Curah Kering di Terminal Teluk Lamong Dibangun" 
  10. "Terminal Modern Tanjung Perak Resmi Beroperasi"Kompas। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৮ 
  11. "Presiden: Terminal Gapura Surya Nusantara Contoh Bagi Pelabuhan Lain"Republika। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৮ 
  12. "Diresmikan, Terminal Penumpang Gapura Surya Nusantara"। ২৩ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৮ 
  13. "Tanjung Perak sees 300% growth in travelers"The Jakarta Post। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৮ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা