ড্যারেন গঙ্গা

ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটার

ড্যারেন গঙ্গা (ইংরেজি: Daren Ganga; জন্ম: ১৪ জানুয়ারি, ১৯৭৯) পূর্ব ভারতীয় বংশোদ্ভূত সাবেক ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটার। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি শীর্ষসারির ব্যাটসম্যান ছিলেন। পাশাপাশি দলের প্রয়োজনে ডানহাতে অফ ব্রেক বোলিং করতেন তিনি।

ড্যারেন গঙ্গা
ব্যক্তিগত তথ্য
জন্ম (1979-01-14) ১৪ জানুয়ারি ১৯৭৯ (বয়স ৪২)
ব্যারাকপুর, ত্রিনিদাদ ও টোবাগো
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ ব্রেক
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক২৬ ডিসেম্বর ১৯৯৮ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
শেষ টেস্ট১০ জানুয়ারি ২০০৮ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
ওডিআই অভিষেক২ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৯ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
শেষ ওডিআই১০ ডিসেম্বর ২০০৬ বনাম পাকিস্তান
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ৪৮ ৩৫ ১৪৬ ৯৮
রানের সংখ্যা ২,১৬০ ৮৪৩ ৮,৫০৫ ২,৫৪৭
ব্যাটিং গড় ২৫.৭১ ২৫.৫৪ ৩৬.১৯ ২৯.২৭
১০০/৫০ ৩/৯ ০/৯ ২০/৩৮ ২/১৯
সর্বোচ্চ রান ১৩৫ ৭১ ২৬৫ ১০১*
বল করেছে ১৮৬ ৬১৬ ২৮৯
উইকেট
বোলিং গড় ১০৬.০০ ৮৩.৫০ ৩৮.২০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং ১/২০ ০/৪ ১/৭ ২/২০
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৩০/– ১১/– ৯৪/– ৩২/–
উৎস: ক্রিকেটআর্কাইভ, ১৫ জুলাই ২০১৬

খেলোয়াড়ী জীবনসম্পাদনা

২১ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৭ তারিখে ত্রিনিদাদ ও টোবাগো দলের পক্ষে ১৮ বছর বয়সে তার প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে।[১] কুইন্স পার্ক ওভালে অনুষ্ঠিত খেলায় প্রতিপক্ষ ছিল গায়ানা দল। বার্বাডোসের বিপক্ষে দলের সঙ্কটময় ৩৩/৩ মুহূর্তে চার নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমে সর্বোচ্চ ১৩৮ রান তোলে ১ উইকেটের নাটকীয় জয় এনে দেন।[২]

আগস্ট, ১৯৯৮ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের সদস্যরূপে অন্তর্ভুক্ত হন। ১৯ বছর বয়সে ত্রিনিদাদ ও টোবাগোর সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়রূপে ৩৫ বছরের মধ্যে টেস্ট দলে খেলার সুযোগ পান।[৩] গ্রিকুয়াল্যান্ড ওয়েস্টের বিপক্ষে প্রস্তুতিমূলক খেলায় অর্ধ-শতক করলেও বর্ডার এবং দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ব্যর্থ হন।

টেস্ট ক্রিকেটসম্পাদনা

১৯ বছর বয়সে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের পক্ষে অভিষেক ঘটে। অনিয়মিত অবস্থায় খেলার পর দলের নিয়মিত সদস্য হন। দলের বাইরে থাকাবস্থায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ এ দলের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের সিরিজের ৫ম ও চূড়ান্ত টেস্টে ফিলো ওয়ালেসের সাথে ব্যাটিং উদ্বোধনে নেমে আবারো শন পোলকের বিপক্ষে লড়াইয়ে অবতীর্ণ হন। উভয় ইনিংসেই পোলক তাকে যথাক্রমে শূন্য ও ৯ রানে আউট করেন।[৪]

২০০৬ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্লেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন কর্তৃক বর্ষসেরা টেস্ট খেলোয়াড় হিসেবে মনোনীত হন।[৫] এরফলে প্রথমবারের মতো দলে স্থায়ীভাবে জায়গা করে নেন।

২০০৭ সালে ইংল্যান্ড সফরে নিয়মিত অধিনায়ক রামনরেশ সারওয়ান কাঁধে আঘাত পেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড সিরিজের বাকী সময়ের জন্য গঙ্গাকে অধিনায়কের দায়িত্বে রাখে। এরপূর্বে ত্রিনিদাদ টোবাগো ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ অনূর্ধ্ব-২৩ দলের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।

ক্রিকেট বিশ্বকাপসম্পাদনা

মার্চ-এপ্রিল, ২০০৭ সালে ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জে অনুষ্ঠিত ক্রিকেট বিশ্বকাপে খেলার জন্য তাকে ছাড়াই ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের সদস্যদের তালিকা প্রকাশ করা হয়। বিশ্বকাপের পর মে, ২০০৭ সালে ইংল্যান্ড সফরে তাকে নেয়া হয়। ব্রায়ান লারা'র অবসর গ্রহণ ও নিজ দেশকে ধারাবাহিকভাবে দুইবার ক্যারিব বিয়ার কাপে শিরোপা লাভে সহায়তা করার প্রেক্ষিতে তাকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের সহঃ অধিনায়কের মর্যাদা দেয়া হয়।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Scorecard: Trinidad and Tobago v Guyana"Cricket Archive। ২১ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৭। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৩-০৬ 
  2. "Scorecard: Trinidad and Tobago v Barbados"Cricket Archive। ১১ এপ্রিল ১৯৯৮। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৩-০৬ 
  3. "Daren Ganga – Batting for his place in history"। The Trinidad Express। ১৬ আগস্ট ১৯৯৮। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৩-০৬ 
  4. "West Indies in South Africa 1998/99"Cricket Archive। ৪ নভেম্বর ১৯৯৮। ২০০৭-০২-২৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৩-০৬ 
  5. "Gayle takes top WI honour"Cricinfo। ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৩-০৬ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা