টুপি একপ্রকার পরিধেয় যা মাথা আবরণের জন্য ব্যবহৃত হয়ে থাকে। টুপি পাশ্চাত্যের 'হ্যাট'-এর সমতূল্য যা শৈত্য ও রৌদ্র নিরোধেও কাজ করে। সেনাবাহিনী পুলিশ ইত্যাদি ইউনিফর্মড বাহিনীর সদস্যরা বিশেষ ধরনের টুপি দিয়ে মাথা ঢেকে রাখেন। হাসপাতালে নার্সরা টুপি মাথায় দায়িত্ব পালন করেন। রান্নাঘরে পাচক টুপি দিয়ে মাথা আবৃত করে রাখেন যাতে মাথার চুল খাদ্যদ্রব্যে না পড়ে। ক্রিকেট ও বেসবল খেলার মাঠে খেলোয়াড়রা সচরাচর টুপি ব্যবহার করেন। টুপি গঠনে হ্যাট, মাথাল এবং হেলমেট থেকে ভিন্ন।

প্রকারভেদসম্পাদনা

নির্মাণ সামগ্রীসম্পাদনা

টুপি ব্যবহারের নিয়মাবলীসম্পাদনা

বিভিন্ন ধর্মে টুপিসম্পাদনা

আব্রাহামীয় ধর্মসম্পাদনা

ইহুদি ধর্মসম্পাদনা

ইহুদি ধর্মানুসারীরা টুপি পরিধান করে থাকেন, তবে তার আকার মাথার আকারের তুলনায় হয় অনেক ছোট, এবং তা পরিধান করা হয় মাথার উপরে, পিছনের দিকে। কোনো রকমে তা মাথার তালুর পিছনের অংশ ঢেকে রাখে। ইহুদিদের এই টুপিকে বলা হয় কিপ্পা

ইসলাম ধর্মসম্পাদনা

ইসলাম ধর্মে মাথায় আচ্ছাদন রাখার বিষয়টি বেশ গুরুত্বের সাথে বিবেচিত হয়। পুরুষ-নারী নির্বিশেষে মাথায় আচ্ছাদনের বিধান ইসলামে আছে। যদিও মহিলারা মাথায় টুপি পরেন না, তবে পুরুষের জন্য টুপি পরিধান একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। টুপি ছাড়াও মুসলমান পুরুষ মাথায় পাগড়ি পরিধান করে থাকেন। মুসলমানদের টুপি প্রায় মাথার উপরিভাগ পুরোটাই জুড়ে থাকে এবং এমন হয় যে, তা যেন কপাল জুড়ে না থাকে। কারণ মেঝেতে কপাল ছুঁইয়ে মুসলমানগণ ঈশ্বরকে (আল্লাহ) সিজ্‌দা করেন, তাই কপালে কোনো আবরণী রাখা হারাম।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] পাগড়ি পরিধানের সময়ও ভিতরে তারা টুপি পরিধান করে থাকেন। ইসলামে ঘুম এবং গোসল ছাড়া সর্বক্ষণ এমনকি প্রাকৃতিক কর্ম সারার সময়ও মাথায় টুপি বা পাগড়ি রাখা সুন্নত। যদিও অনেকে একে কেবল নামাজ পড়ার সময় পরে থাকেন।

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা