প্রধান মেনু খুলুন

জয়ন্তিয়া (প্নার নামেও পরিচিত)[৪] একটি অস্ট্রো-এশীয় ভাষা যা ভারতবাংলাদেশে জয়ন্তিয়া জনগোষ্ঠীর লোকেদের কথ্য ভাষা৷ ভোঈ ভারতের মেঘালয় রাজ্যের রী ভোঈ জেলার জয়ন্তিয়াভাষী লোকেদের কথ্য উপভাষা৷

জয়ন্তিয়া
জয়ন্তিয়া ভাষা বা প্নার
দেশোদ্ভবভারত (মেঘালয়) ও বাংলাদেশ
জাতিতত্ত্বজয়ন্তিয়া জনগোষ্ঠী
মাতৃভাষী
ভারত - ৩১৯৩২৪, বাংলাদেশ - ৮০০০ [১] (২০১১ জনগণনা)[২]
অস্ট্রো-এশীয়
উপভাষাসমূহ
  • ভোঈ
লাতিন
ভাষা কোডসমূহ
আইএসও ৬৩৯-৩pbv
গ্লোটোলগpnar1238[৩]
এই নিবন্ধটিতে আইপিএ ফনেটিক চিহ্নসমূহ রয়েছে। সঠিক পরিবেশনার সমর্থন ছাড়া, আপনি প্রশ্ন বোধক চিহ্ন, বক্স, অথবা অন্যান্য চিহ্ন ইউনিকোড অক্ষরের পরিবর্তে দেখতে পারেন।

পরিচ্ছেদসমূহ

ধ্বনিতত্ত্বসম্পাদনা

জয়ন্তিয়া ভাষাতে ৩০ টি বর্ণমালা আছে যার মধ্যে ৭ টি স্বরবর্ণ ও ২৩ টি ব্যঞ্জনবর্ণ উপস্থিত৷

উপভাষাসম্পাদনা

ভোঈ এই ভাষার একটি বিচ্ছিন্ন উপভাষা হলেও আরো ১৪ টি উপভাষার অস্তিত্ব পাওয়া যায়৷ সেগুলি হলো - নারতিয়াং, নঞ্জঙ্গি, নংবা, মিনসো, শিলিয়াং, মিনতাং, শাংপুং, জোয়াই, রিম্বাই, সুতঙা, নংখ্লিয়ে, লাকাডং, নারপু, সাইপুং৷[৫]

পদাংশের বিন্যাসসম্পাদনা

জয়ন্তিয়া ভাষায় পদাংশের বিন্যাসের ক্ষেত্রে কমপক্ষে একটি একককেন্দ্র স্বরধ্বনি থাকে; সর্বাধিক দুটি ব্যাঞ্জনধ্বনির জটিল আরম্ভ, একটি সংযুক্ত স্বরকেন্দ্র ও একটি অন্ত ব্যাঞ্জন থাকে৷ দ্বিতীয় প্রকারে, আরম্ভের ব্যাঞ্জনধ্বনির ঠিক পরেই পদাংশের নাসিক্য বা কম্পনজাত বা পার্শ্বীয় পদাংশের প্রয়োগ করা হয় যা পদের অবশিষ্টাংশরূপে কাজ করে৷

জনবিন্যাসসম্পাদনা

বাংলাদেশের সিলেট জেলার উত্তরাংশে জৈন্তাপুর উপজেলা ও তৎসংলগ্ন অঞ্চলে প্রায় ৮,০০০ জয়ন্তিয়াভাষী জনগোষ্ঠীর বাস৷

ভারতের মেঘালয় রাজ্য জয়ন্তিয়া জনজাতির মুলক্ষেত্র৷ রাজ্যটিতে ৩১৬৮৬৩ জন জয়ন্তিয়াভাষী বাস করেন৷[৬]

এছাড়া আসামে ২১৬৯ জন বাস করেন, যার মধ্যে পশ্চিম কার্বি আংলং জেলাতে ১৯৩৭(০.৬৬%) লোক বসবাস করেন৷

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. https://joshuaproject.net/people_groups/12654/BG
  2. "Statement 1: Abstract of speakers' strength of languages and mother tongues - 2011"www.censusindia.gov.in। Office of the Registrar General & Census Commissioner, India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৭-০৭ 
  3. হ্যামারস্ট্রোম, হারাল্ড; ফোরকেল, রবার্ট; হাস্পেলম্যাথ, মার্টিন, সম্পাদকগণ (২০১৭)। "জয়ন্তিয়া"গ্লোটোলগ ৩.০ (ইংরেজি ভাষায়)। জেনা, জার্মানি: মানব ইতিহাস বিজ্ঞানের জন্য ম্যাক্স প্লাংক ইনস্টিটিউট। 
  4. Sidwell, Paul. (2005). The Katuic languages: classification, reconstruction and comparative lexicon. LINCOM studies in Asian linguistics, 58. Muenchen: Lincom Europa. আইএসবিএন ৩-৮৯৫৮৬-৮০২-৭
  5. https://www.academia.edu/2040472/A_phonetic_description_and_phonemic_analysis_of_Jowai-Pnar
  6. http://www.censusindia.gov.in/2011census/C-16.htmll