ইজতেমা

একটি বার্ষিক ইসলামি জনসমাবেশ

ইজতেমা ( আরবি: اجتماع‎‎ ) লক্ষ লক্ষ মুসলমানের সহযোগিতায় ইসলামী সংগঠনগুলি দ্বারা আয়োজিত একটি ইসলামী জনসমাবেশ। এটি বিশ্বজুড়ে তাবলিগী জামায়াতের একটি অপরিহার্য অঙ্গ, কারণ এটি মুসলমানদের জীবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এবং বিপুল সংখ্যক লোক ইজতেমায় জড়িত। অনেক দেশ এই অনুষ্ঠানটি উদযাপন করে। বুলবুল সিদ্দিকীর মতে, ইজতেমায় অংশ নেওয়ার দ্বারা ধর্মীয় কর্তৃত্ব, মর্যাদা ও ক্ষমতায়ন বৃদ্ধি করে এবং ভ্রাতৃত্ব ও উম্মাহর ধারণার মাধ্যমে মুসলিম পরিচয়কে সমুন্নত করে। [১]

টঙ্গী ইজতেমা
তারিখ১৯৪৯ (1949) থেকে বর্তমান
ভেন্যুগাজীপুরের টঙ্গী ময়দান , বাংলাদেশ
অবস্থানযেসব জায়গায় যাতায়াত ব্যবস্থা সহজপ্রাপ্য
যে হিসাবেও পরিচিতআলমি ইজতেমা • عالمی اجتماع (যদি সার্বজনীন স্বীকৃত হয়)
কারণসত্যিকার মুসলমান বানানোর জন্য মেহনত

ভূমিকাসম্পাদনা

ইজতেমা হল তাবলিগী জামায়াতের (টিজে) তিন দিনের বার্ষিক জনসমাবেশ। দক্ষিণ এশিয়ার মুসলমান এবং এর প্রবাসীদের কাছে এটির দৃঢ় আবেদন রয়েছে। টিজের তাৎক্ষণিক উদ্দেশ্য হল ব্যক্তিত্বের নৈতিক সংস্কার এবং আত্মশুদ্ধি।'মুসলমানকে সত্যিকারের মুসলমান বানানো': মুসলমানদের উচিত তাদের ব্যক্তিগত জীবনে ইসলামের মূলনীতিগুলো কঠোরভাবে অনুসরণ করা। [২] অন্যদিকে, এটি একটি পুনর্নবায়নেররণ আন্দোলন। [৩] লক্ষ লক্ষ লোকের সমন্বয়ে ইজতেমা বা বার্ষিক তিন দিনের জনসমাবেশের মাধ্যমে টিজে বিস্তৃত বিশ্বের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।এভাবে ইজতেমা টিজে আন্দোলনের প্রতীক হয়ে উঠেছে।

ইজতেমা টিজে কর্মীদের মধ্যে এবং সক্রিয়ভাবে এর সাথে জড়িত না এমন বিপুল সংখ্যক লোকের কাছে জনপ্রিয়। তবে হজ হল ফরজ। আর্থিকভাবে সক্ষম মুসলিমের জন্য বাধ্যতামূলক। বিপুল সংখ্যক অংশগ্রহণকারী লোকের কারণে, ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তানের মতো দেশগুলিতে ইজতেমা বিশ্ব তাবলিগী জামায়াত কর্মীদের জন্য একটি আকাঙ্ক্ষিত তীর্থযাত্রায় পরিণত হয়। তবে বাংলাদেশে ইজতেমায় নৃতাত্ত্বিক গবেষণার কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ভেন্যু হিসেবে বাংলাদেশকে বেছে নেওয়ার এটি অন্যতম প্রধান কারণ। ইওরোপীয় জার্নাল অফ ইকোনমিক অ্যান্ড পলিটিকাল স্টাডিজ এর মতে ইজতেমায় অংশ নেওয়া ধর্মীয় কর্তৃত্ব এবং মর্যাদা বৃদ্ধি করে, যা সমাজে ধর্মীয় ক্ষমতায়নের মাধ্যম হিসাবে কাজ করে। [৪]

বাংলাদেশ গবেষণাসম্পাদনা

ইতিহাসসম্পাদনা

ইজতেমার ঐতিহ্য মুহম্মদ ইলিয়াস আল-কান্ধলভী শুরু করেছিলেন। তিনি ছিলেন একজন ভারতীয় সাধক, যিনি স্থানীয় একটি মসজিদে একত্রিত হয়ে ধর্মমনা লোকদের একটি ছোট্ট দল নিয়ে কাজ শুরু করেছিলেন। ৪১ বছর ধরে টঙ্গীকেই ইজতেমার ভেন্যু হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে, যদিও অন্যান্য দেশে কম আয়োজনে এই জনসমাবেশটি অনুষ্ঠিত হয়। এই দিনগুলিতে ভারত এই মসজিদগুলো আয়োজনের জন্য খুব জনপ্রিয় একটি স্থান হিসাবে বিবেচিত হয়। ইজতেমা অরাজনৈতিক এবং তাই এটি সমস্ত দল ও বিশ্বাসের লোককে আকর্ষণ করে। প্রার্থনাটি মুসলিম সম্প্রদায়ের আধ্যাত্মিক অনুরাগ, উঁচু ও কল্যাণের জন্য অনুষ্ঠিত হয়। এই প্রচুর জনপ্রিয় প্রোগ্রামটি বিভিন্ন দেশের জনগণকে অন্যান্য দেশের মুসলমানদের সাথে যোগাযোগের সুযোগ দেয় এবং সাধারণত বিশিষ্ট রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরাও উপস্থিত থাকেন।

১৯২৭ সালের দিকে, টিজে বাংলা অঞ্চলে প্রবেশ করেছিল। মৌলভী আবুল হায়াতের নেতৃত্বে মৌলভী আফতাবউদ্দীনকে সাথে নিয়ে (যিনি দ্য লাইটের উপ-সম্পাদক ছিলেন) প্রথম বঙ্গীয় প্রাদেশিক তাবলিগী কমিটি গঠিত হয়। যাইহোক, এই আন্দোলনটি ১৯৪৭ সালে ভারতীয় উপ-মহাদেশ বিভক্ত হওয়ার ঠিক পরে পূর্ব পাকিস্তানে (বর্তমানে বাংলাদেশ) প্রবেশ করেছিল, (সিকান্দ, ২০০২)। এই সময়কালে, উপমহাদেশের তিনটি অংশে তিনটি ইজতেমা কেন্দ্র গড়ে উঠেছে; এগুলো হলো ভারতের ভোপালে , পাকিস্তানের রায়উইন্ডে এবং পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) ঢাকায়। দেশ বিভাগের পরপরই পূর্ব বাংলা পাকিস্তানের অংশ হয়ে যায় এবং পূর্ব পাকিস্তান নামে একটি নতুন নামে পরিচিতি লাভ করে। এটি পূর্ব পাকিস্তানে টিজে-র প্রাথমিক সময় ছিল। টিজে এই সময়ে বিভিন্ন ব্যাকগ্রাউন্ডের লোকদের নিয়োগ করতে সক্ষম হয়েছিল। পূর্ব পাকিস্তানের টিজে এর এই প্রথম পর্যায়ে পেশাদার শ্রেণির অনেক শিক্ষার্থী এবং সাধারন শিক্ষার্থীরা জড়িত। [৫]

মাওলানা আবুল হাসান আলী নদভী, মাওলানা ইলিয়াসের জীবনীতে উল্লেখ করেছেন যে, ১৯৩০-এর দশকে মেওয়াতে তাদের বার্ষিক ইজতেমা থাকত এবং তাদের ইজতেমার নির্দিষ্ট স্থান ছিল। মাওলানা ইলিয়াস নিয়মিত এই ইজতেমাতে অংশ গ্রহণ করতেন। ১৯৪১ সালের ২৮ থেকে ৩০ নভেম্বর গৌরগানো জেলার নূহে বৃহত্তম ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়েছিল (নাদভি, ২০০৬: ১১৮)। ভক্তদের অংশগ্রহণকারী সংখ্যার দিক থেকে এটি ছিল উল্লেখযোগ্য ইজতেমা। নাদভীর (২০০৬) মতে ওই ইজতেমায় প্রায় ২০-২৫ হাজার লোক ছিল। এই ইজতেমা বিভিন্নভাবে সফল হয়েছিল; তাদের মধ্যে একটি হল খোরজা, আলীগড়, আগ্রা, বুলান্দ শহর, মীরাথ, পানিপথ, সোনিপথ ইত্যাদি ভারতের বিভিন্ন স্থানে অনেক জামাত পাঠাতে সক্ষম হয়। ১৯৪৩ সালের এপ্রিলে তারা করাচিতে (পাকিস্তানের একটি বড় শহর) একটি জামাত পাঠিয়েছিল। পূর্ব পাকিস্তানে (বর্তমানে বাংলাদেশ) প্রথম ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয় ১৯৫৪ সালে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায়। সে বছর পরে তারা দক্ষিণ-পশ্চিম জেলা খুলনাতে আরও একটি বিশাল ইজতেমার আয়োজন করেছিল। তার পর থেকে তারা প্রতিবছর নিয়মিতভাবে ইজতেমার আয়োজন করে চলেছে। এই সময়ে, বাংলাদেশের টিজে কেন্দ্রটি লালবাগ শাহী মসজিদ ভিত্তিক ছিল। জায়গার সীমাবদ্ধতার কারণে তাদেরকে কাকরাইলের বর্তমান অবস্থানে চলে যেতে হয়েছিল। [৬] বাংলাদেশে টিজে এর পটভূমি, ১৯৫৪ সালে প্রথম ইজতেমায় প্রায় ১৫-২০ হাজার অংশগ্রহণকারী অংশ নিয়েছিল। যাইহোক, ১৯৬৫ এর মধ্যেও কাকরাইল ইজতেমার পক্ষে খুব ছোট হয়ে গিয়েছিল। সুতরাং, তাদের ইজতেমার নতুন স্থান সম্পর্কে চিন্তা করতে হবে। একই বছর তাদের ঢাকার নিকটবর্তী টঙ্গীতে ভেন্যু স্থানান্তর করতে হয়েছিল। তার পর থেকে টিজে নিয়মিত টঙ্গীতে ইজতেমার আয়োজন করে আসছে। [৭]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Bulbul Siddiqi, 'Purification of self': Ijtema as a New Islamic Abstract: Pilgrimage, European Journal of Economic and Political Studies, Volume 3, Special issue on Transnational Islam, 2010, pp. 133–, via academia.edu
  2. Sikand, 2002 and 2006.
  3. Masud (2000)
  4. Background of TJ in Bangladesh, ‘Purification of self’: Ijtema as a New Islamic European Journal of Economic and Political Studies
  5. Background of TJ in Bangladesh, European Journal of Economic and Political Studies by Bulbul Siddiqi
  6. Biography of Maulana Iliyas by Maulana Abul Hasan Ali Nadvi
  7. Background of TJ in East Pakistan, Bangladesh, European Journal of Economic and Political Studies by Bulbul Siddiqi