ইচি

আমোদপ্রমোদপূর্ণ এবং / অথবা যৌন আবেদনপূর্ণ হিসাবে বিবেচিত ক্রিয়াগুলি
খুবই সংক্ষিপ্ত বা স্বচ্ছ (ভেজা বা না) পোশাক ইচি হিসাবে বিবেচিত ক্রিয়াগুলির একটি প্রধানতম উপাদান।[১]

ইচি (エッチ, এচি, উচ্চারিত [et.tɕi]) বলতে বোঝায় আমোদপ্রমোদপূর্ণ এবং/অথবা যৌন আবেদনপূর্ণ হিসাবে বিবেচিত ক্রিয়াগুলি, যা জাপানি ভাষায় প্রায়শই অশালীনভাবে ব্যবহৃত হয়। বিশেষণ হিসাবে এটি "কামুক", "অশ্লীল" বা "দুষ্টু" অর্থ সহকারে ব্যবহৃত হয়; ক্রিয়াপদ হিসাবে ইচি সুরু (エッチする বা Hする) এর অর্থ "সহবাস করা" বা বিশেষ্য হিসাবে কারো সাথে অশ্লীল আচরণ করাকে বোঝায়। এটি জাপানি শব্দ ইরো (ইরোস থেকে エロ) এর চেয়ে সম্ভবত নরম এবং হেনটাইয়ের মতো কামবিকৃতিকে বোঝায় না।

জাপানি জনসংস্কৃতির ভক্তরা যৌনতাত্ত্বিকতা সম্পর্কিত ক্রিয়াগুলিকে বর্ণনা করার জন্য ইচি শব্দটি গ্রহণ করেছিলেন। জাপানি ভাষায় ইচি শব্দটি প্রায়শই একজন ব্যক্তির আচরণের বর্ণনা দিতে ব্যবহৃত হত, তবে বর্তমানে এটি সফটকোর বা আমোদপ্রমোদপূর্ণ যৌনক্রিয়া বোঝাতে ব্যবহৃত হয়ে থাকে, তবে এটি হেনটাই এর মতো কামবিকৃতি বা বাস্তুকামবোধক শব্দ থেকে পৃথক।[২] ইচি হিসাবে বর্ণিত ক্রিয়াগুলিতে যৌন মিলন বা যৌনাঙ্গ দেখানো হয়না, তবে এতে যৌনসংক্রান্ত ধারণাগুলিকে উল্লেখ করা হয়। ইচি'র বিষয়গুলি ভক্তদের জন্য এক ধরণের পরিষেবা হিসাবে বিবেচিত হয় এবং এটি অধিকাংশ সময় কমেডি শ্যানেন, সাইনেন মাঙ্গা এবং হারেম এনিমে'তে পাওয়া যায়।[৩][৪]

জাপানে ব্যুৎপত্তি এবং ব্যবহারসম্পাদনা

হেপবার্ন স্বরলিপিতে エッチ শব্দের সঠিক প্রতিলিপি হলো "এচি" (etchi)।[৫] তবে এটি সাধারণত "ইচি" (ecchi) হিসাবে লেখা হয়।

হেনটাই (変態) একটি কাঞ্জি শব্দ, যার প্রথম কাঞ্জি হেন "অদ্ভুত" বা "অদৃষ্টপূর্ব"-কে বোঝায় এবং দ্বিতীয় কাঞ্জি টাই কোনও "শর্ত" বা "অবস্থা"-কে বোঝায়। মেইজি যুগে হেনটাই বিজ্ঞান ও মনোবিজ্ঞানের রূপ পরিবর্তন বা রুপান্তরণ হিসাবে প্রবর্তিত হয়েছিল। এটি হিস্টিরিয়ার মতো ব্যাধিগুলি বোঝাতে অথবা সংবেশন বা টেলিপ্যাথির মতো অস্বাভাবিক বিষয়গুলি বর্ণনা করার জন্য ব্যবহৃত হত।[৬] ধীরে ধীরে শব্দটির অর্থ প্রমিত না হওয়া পর্যন্ত তা প্রসারিত হতে থাকে। ১৯১০ এর দশকে এটি মিশ্র অভিব্যক্তির যৌনতত্ত্ব "হেনটাই সেইয়কু"(変態性欲, অস্বাভাবিক যৌন ইচ্ছা)[৭] এর ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়েছিল এবং ১৯১৫ সালে আইজি হাবুটো এবং জুন'ইচির সোয়াদা প্রকাশিত যৌন বিচ্যুতি তত্ত্ব (হেনটাই সেইয়কু রন) এর মাধ্যমে এটি জনপ্রিয় হয়ে ওঠেছিল।[৮][৯] ১৯২০ সালে অনেক প্রকাশনী বিচ্যুত যৌনাকাঙ্ক্ষা এবং ইরো গুরো নানসেন্সু আন্দোলনের যোগ দিয়েছিল। মাতসুজাওয়া এটিকে "হেনটাই বুম" এর যুগ বলে অভিহিত করেছিলেন।[১০] ১৯৩০-এর দশকে সেন্সরশিপ আরও প্রচলিত হয়, যার ফলে এই ধারায় কম বই প্রকাশিত হতে থাকে।[১১]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে ১৯৫০-এর দশকে হেনটাইয়ের প্রতি লোকেরা পুনরায় আগ্রহী হয়ে উঠেছিল এবং মাঝে মাঝে একে ইংরেজি অক্ষর "এইচ" (エッチ, // হিসাবে উচ্চারিত) দ্বারা উল্লেখ করত। ১৯৫২ সালে শুকান আসাহি ম্যাগাজিন জানিয়েছিল যে, চলচ্চিত্র প্রেক্ষাগৃহে অপরিচিত ব্যক্তি এক নারীর গায়ে হাত দিলে তিনি "আরা এচি ইও" ("ওহে, এটি ভুল") দিয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছিলেন। এই প্রসঙ্গে ইচিকে যৌনতাত্ত্বিক হিসাবে বিবেচনা করা উচিত এবং এটি ইয়ারশিই (嫌らしい, অশ্লীল) অথবা সুকেবে (すけべ, কামজ মস্তিষ্কের ব্যক্তি) এর সমার্থক। এরপর থেকে এচি শব্দটির প্রচলন বন্ধ হতে শুরু করে এবং শব্দটি নতুন রূপ ধারণ করে। ১৯৬০ এর দশকে তরূণসম্প্রদদায়ের মধ্যে এচি শব্দটি সাধারণত যৌনতাকে উল্লেখ করতে ব্যবহার শুরু হয়েছিল। ১৯৮০-এর দশকের মধ্যে এটি এচি সুরু (সহবাসের জন্য) বাক্যাংশের মতো ব্যবহৃত হয়েছিল।[৬][১২][১৩]

প্রবর্তিত বিভিন্ন নতুন শব্দ, যেমন সেক্কাসু প্রায়শই ইচি শব্দটি ছাড়াও যৌনতাকে বোঝাতে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। ইচি বর্তমানে কামপূর্ণ বা অশ্লীল বিষয়বস্তু সম্পর্কিত যে কোনও কিছু বোঝাতে ব্যবহৃত হযয়ে থাকে। এর সঠিক অর্থ বাক্যপ্রসঙ্গে পরিবর্তিত হয়, তবে সাধারণভাবে এটির ইংরেজি শব্দ "অশ্লীল" (যখন বিশেষণ হিসাবে ব্যবহৃত হয়) এর সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ। জাপানি জনসংস্কৃতির মাধ্যমগুলো অন্যান্য শব্দও ব্যবহার করে থাকে, যেমন ইরো-মাঙ্গা (エロ), এডাল্ট মাঙ্গা (アダルト), এনিমে / ১৮ বছরের বেশি বয়সী ব্যক্তিদের জন্য মাঙ্গা (18禁アニメ, 18禁)। "এইচ" বর্ণটি কখনো কখনো পর্নোগ্রাফিক ধরণগুলিকে বোঝাতেও ব্যবহৃত হয়, যেমন: এইচ-অ্যানিমে, এইচ-মাঙ্গা ইত্যাদি।

পশ্চিমা ব্যবহারসম্পাদনা

জাপানে সোনে মাঙ্গার মতো খুব হালকা বা আমোদপ্রমোদপূর্ণ যৌনউত্তেজক সামগ্রী-সহ মাঙ্গাকে বর্ণনা করতে ওরোকে মাঙ্গা (お色気漫画) ব্যবহৃত হয়ে থাকে। পশ্চিমা দেশগুলিতেও ইচি একটি পছন্দের শব্দ হয়ে উঠেছে। আরও সুস্পষ্টভাবে, সেজিন মাঙ্গাগুলি (成人向け漫画, সিজিনমুকেমাঙ্গা) পশ্চিমে সম্ভবত হেনটাই হিসাবে বেশি উল্লেখ করা হয়ে থাকে। এটি জাপানি ভাষায় অনুরূপ পার্থক্যের সাথে সম্পর্কিত। উদাহরণস্বরূপ, কোনো যুবতী যদি কোনো যুবককে ইচি/এচি বলে ডাকেন, তবে এটি ফ্লার্ট হিসাবে বিবেচিত হতে পারে, যদিও হেনটাই আরও অশ্লীল শোনায়।[১৪]

[...] কামপূর্ণ উপস্থাপনাকে বোঝায়। হেনটাইয়ের তুলনায় স্বল্প বিস্তারিত। [...] [ইচি] এর যৌন-উদ্দীপ্ত চিত্রগুলিকে বোঝায়। হেনটাইয়ের তুলনায় এটি স্বল্প বিস্তারিত।

— সেবাস্তিয়ান কেলার, মাঙ্গা এবং ১৯৮০ এর দশকের শুরু থেকে এখন অবধি জার্মানিতে এর অবস্থান: মাঙ্গা কেবল বড় চোখের চেয়ে বেশিকিছু নয়।[২]

নারী শ্রোতাদের লক্ষ্য করে ধারণ করা হয়েছে, এমন দৃশ্যগুলিকে ইচি হিসাবে উল্লেখ করা যেতে পারে। যেমন: আর-১৮ লাভ রিপোর্ট!, এটি তৈরি করেছিল রিসা ইটির ইমিকো সুগি এবং ওরুচুবান এবিচু, যা শাজো এবং জোসি দর্শকদের লক্ষ্য করে তৈরি হয়েছিল; তবে এতে যৌনতার বিষয়বস্তুগুলি স্পষ্টত।[৩][৪]

ইচির সাধারণ উপাদানগুলির মধ্যে রয়েছে: যৌন বিষয়বস্তুগুলি উল্লেখ করে কথোপকথন (উদাহরণস্বরূপ ডাবল এনটেন্ডার বা ইন্জেনডো), ভিজ্যুয়াল চিত্রের মধ্যে যৌনতার আবেদন (উদাহরণস্বরূপ ইঙ্গিতপূর্ণ অঙ্গবিন্যাস), অনাবৃত বা কামুক পোশাক (যেমন অন্তর্বাস বা কসপ্লে), নগ্নতা (যেমন ছিঁড়ে যাওয়া পোশাক, ভেজা পোশাক) এবং নির্দিষ্ট ক্রিয়াগুলির চিত্রায়ণ (যেমন: যৌন অনুভব)। এই ধরণের যৌন আবেদনগুলি প্রায়শই রসাত্মকভাবে উপস্থাপন করা হয়ে থাকে। সাধারণত, ইচির দৃশ্যগুলিতে এমন একজন পুরুষ চরিত্র থাকবে, যে কোনো নারী চরিত্রকে যৌন উত্তেজনার অনুভূতি দেবে।

ইচির ধারণাটি ভক্ত পরিষেবার সাথে খুব ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত। যদিও ভক্ত পরিষেবাদি ভক্তদের খুশি করতে যৌন বিষয়বস্তুর সাথে সম্পর্কিত ইচির প্রত্যেকটি দিক বর্ণনা করে থাকে। এটি ভক্তদের জন্য একটি বিশেষ ধরণের পরিষেবা, যা সাধারণত কাহিনীগুলির ব্যাখা দ্বারা আবদ্ধ থাকে।[১৫]

সাধারণ উদাহরণসম্পাদনা

অনেক উপাদান রয়েছে, যেগুলি কোনো কাজকে ইচি হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ করতে পারে, তবে এই উপাদানগুলির বেশিরভাগ সময় সংঘটিত হতে হয় (উদাহরণস্বরূপ, কোনো অনুষ্ঠানের সমস্ত পর্বে)। গ্রাফিক্যালি বলতে গেলে যৌন আবেদনময়ী ছবি দেখাতে সাধারণত বিভিন্ন কৌশল ব্যবহার করা হয়, উদাহরণস্বরূপ নারীদেহের কিছু অংশ যেমন নিতম্ব বা স্তন প্রকাশ করা। এর মধ্যে কিছু নিদর্শনগুলি পুনরাবৃত্তি হয়, যেমন ঝরনার দৃশ্য, উষ্ণ প্রস্রবণ, বা লড়াইয়ের দৃশ্য যেখানে কাপড় ছিঁড়ে যায়। চরিত্রগুলির কল্পনাও তাদের যৌন ভাবনাগুলি দেখানোর জন্য একটি সাধারণ মাধ্যম, যেমন: যাদুকরী মেয়েদের রূপান্তর দৃশ্য। শেষ পর্যন্ত কোনও অজুহাতে একটি চরিত্রকে আংশিক বা সম্পূর্ণ নগ্ন দেখানো হয়।[১]

নগ্নতাসম্পাদনা

 
অ্যানিমে টেলিভিশন সিরিজের কিছু দৃশ্যকে আড়াল করার জন্য কৃত্রিম হালকা রশ্মির ব্যবহার সেন্সরশিপের একটি সাধারণ পদ্ধতি।

ইচির দৃশ্যগুলিতে নগ্নতার মাত্রা নির্ভর করে দর্শকদের চাহিদা এবং লেখকদের পছন্দগুলির উপর। উদাহরণস্বরূপ, কিছু ক্ষেত্রে স্তনগুলি পর্দায় প্রদর্শিত হলেও স্তনবৃন্ত এবং যৌনাঙ্গে পোশাক বা ভিজ্যুয়াল ইফেক্ট দ্বারা অস্পষ্ট করা হয়। টু লাভ-রুতে লালা, সোল ইটারের ব্লেয়ার বা এমনকি নিয়ন জেনেসিভেন ইভাঞ্জেলিওনের আসুকা ল্যাংলি সোর্যুর পক্ষে এই ধরণের সেন্সরশিপ ছিল সাধারণ। এদিকে লেডিস ভার্সেস বাটলার! এবং অন্যান্য এনিমেতে স্তনের বৃন্তগুলি পোশাকের মাধ্যমে পরিষ্কারভাবে দৃশ্যমান হয়, তা এটি যতই পুরু হোক না কেন। জাপানিদের মাঙ্গা দৃশ্যগুলিতে নাসাভঙ্গ নগ্নতার জন্য একটি সাধারণ প্রতিক্রিয়া হিসাবে যৌন উত্তেজনার প্রতিনিধিত্ব করে, এটি উচ্চ রক্তচাপের অত্যুক্তিজনিত কারণে ঘটে থাকে।

প্যান্টিসম্পাদনা

 
ইচি'র দৃশ্যগুলিতে প্যান্টির শৈলী নারীর চরিত্রের ইঙ্গিত হিসাবে দেখা হয়। (উপর থেকে নিচে) সাদা, ডোরাকাটা ও লাল প্যান্টি।

অন্তর্বাস (প্যান্টি) এর দৃশ্যমানতা কাহিনীর একটি সাধারণ উপাদান। সাধারণত পুরুষরা এর মাধ্যমে নারীদের যৌন প্রতিক্রিয়া জানাতে চেষ্টা করবে। প্যান্টির রঙ এবং শৈলী নারীর চরিত্রের ইঙ্গিত হিসাবে দেখা হয়, উদা: সরল চরিত্রের জন্য সাদা, লাজুক চরিত্রের জন্য ডোরাকাটা এবং যৌনলিপ্সু চরিত্রগুলির জন্য লাল প্যান্টি। প্যান্টিগুলি ইচির কাহিনীগুলির একটি জনপ্রিয় মূল উপাদান (উদাহরণস্বরূপ, চবিটস এবং প্যান্টি এন্ড স্টকিং উইথ গার্টারবেল্ট-এ এটি অসংখ্যবার দৃশ্যমান হয়), তবে এগুলো কেবল যৌন আবেদনের জন্য অন্যান্য অনুষ্ঠানেও প্রদর্শিত হয়।

 
চিত্রটি এনিমের হেনটাই বিভাগের কাছাকাছি থাকলেও চিত্রটি ইচির সাথেও সম্পর্কিত। এটিকে প্যান্টি শট হিসাবেও উল্লেখ করা যেতে পারে।

যৌন ক্রিয়াকলাপসম্পাদনা

যদিও অনাবৃত বা যৌনউত্তেজক পোশাক, নগ্নতা বা যৌনতার অনুভব ইচির দৃশ্যগুলিতে দেখা যেতে পারে, তবে সাধারণত এর মধ্যে কোনও গভীর যৌনমিলনের দৃশ্য দেখা যায় না; পশ্চিমে এই ধরনের কাজগুলিকে হেনটাই হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়। তবে ইচির দৃশ্যের ক্ষেত্রে এটি এভাবেও প্রদর্শিত হতে পারে, যেন কোনো দম্পতি সহবাস করছেন। উদাহরণস্বরূপ, দুজনকে একটি তাঁবুর বাইরে থেকে মসীবর্ণ ছায়া-পরিলেখতে দেখা যেতে পারে এবং যৌন-মিলিত হতে দেখা যেতে পারে, যদিও তারা তেমন কোনো কাজ করছে না।[১]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Steiff, Josef; Tamplin, Tristan D. (২০১০)। Anime and Philosophy। Popular Culture and Philosophy। Open Court Puplishing। আইএসবিএন 978-0-8126-9670-7 
  2. Sebastian Keller: Der Manga und seine Szene in Deutschland von den Anfängen in den 1980er Jahren bis zur Gegenwart: Manga- mehr als nur große Augen, GRIN Verlag, 2008, আইএসবিএন ৯৭৮-৩-৬৩৮-৯৪০২৯-০, p. 127
  3. Robin E. Brenner: Understanding manga and anime. Libraries Unlimited, 2007, আইএসবিএন ৯৭৮-১-৫৯১৫৮-৩৩২-৫, p. 89.
  4. Ask John: Why Do Americans Hate Harem Anime? ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৪ জুলাই ২০১৭ তারিখে. animenation.net. May 20. 2005. Note: fan service and ecchi refer to similar concepts.
  5. After the sources of the article Hepburn romanization. In Hepburn, the sokuon (っ, small tsu) is romanized t before ch.
  6. Hikaru, Saitō (২০০৪)। Hentai—H। Sei no yōgoshū (Kansai seiyoku kenkyūkai সংস্করণ)। Kōdansha gendaishinsho। পৃষ্ঠা 45–58। 
  7. Robertson, Jennifer (১৯৯১)। Gender and the State in Japan। Theatrical Resistance, Theatres of Restraint: The Takarazuka Revue and the "State Theatre" Movement in Japan। Vol. 64। The George Washington University Institute for Ethnographic Research। পৃষ্ঠা 165–177। 
  8. Robertson, Jennifer (১৯৯৯)। Dying to Tell: Sexuality and Suicide in Imperial Japan। Vol.25। The University of Chicago Press। পৃষ্ঠা 21। 
  9. Reichert, Jim। Deviance and Social Darwinism in Edogawa Ranpo's Erotic-Grotesque Thriller "Kotō no oni"। Journal of Japanese Studies। Vol. 27। The Society for Japanese Studies। পৃষ্ঠা 128। 
  10. Goichi Matsuzawa (1997). Meiji, Taishō, Shōwa, kindai fūzoku shuppan no rekishi, Ero no hon. Tokyo. Wani no ana. p. 55
  11. Sabine Frühstück]] (2003). Colonizing Sex: Sexology and Social Control in Modern Japan. University of California Press. আইএসবিএন ০-৫২০-২৩৫৪৮-৭. p. 15
  12. Mark McLelland (2006). "A Short History of 'Hentai'". In: Intersections: Gender, History and Culture in the Asian Context. Vol. 12.
  13. Cunningham, Phillip J. (১৯৯৫)। Zakennayo!। Penguin Group। পৃষ্ঠা 30। 
  14. Jonathan Clements, Helen McCarthy: The anime encyclopedia: a guide to Japanese animation since 1917, Edition 2, Stone Bridge Press, 2006, University of California, আইএসবিএন ১-৯৩৩৩৩০-১০-৪, p. 30
  15. Robin E. Brenner: Understanding Manga and Anime. Libraries Unlimited, 2007, আইএসবিএন ১-৫৯১৫৮-৩৩২-২, p. 295

বহিঃসংযোগসম্পাদনা