গ্রিক পুরাণে, আস্তেরিয়া (প্রাচীন গ্রিক: Ἀστερία) নামে এগারজন ব্যক্তি ছিলেন। তারা হলেন টাইটান কয়উসফয়বের কন্যা, আমাজন নারী, হেলিয়াড, ডানাইড, আলকিনাইডিস, করোনাসের কন্যা, তেউসারের কন্যা, ফোকাসের উপপত্নী, বেলেরোফোনের উপপত্নী, অ্যাথেনীয় দাসী, এবং তেলেমাকো অপেরার চরিত্র।

কয়উসের কন্যাসম্পাদনা

আস্তেরিয়া ছিলেন টাইটান কয়উসফয়বের কন্যা এবং লেটোর বোন।[১] হেসিয়ডের থিওগনি অনুসারে, পের্সেসের ঔরসে তার গর্ভে একটি সন্তান জন্মে, সে হল ডাইনিদের দেবী হেকাতে[২]

আমাজন নারীসম্পাদনা

আস্তেরিয়া ছিলেন হিরাক্লিজ কর্তৃক খুন হওয়া নবম আমাজন নারী।[৩]

হেলিয়াডসম্পাদনা

আস্তেরিয়া বা আস্তরিস ছিলেন হেলিয়স ও ক্লিমেনে বা সেটোর কন্যা। নদীর দেবতা হাইডেসপিসের সাথে তার বিয়ে হয় এবং তাদের পুত্র ডেইয়াডিস ভারতের রাজা হন।

ডানাইডসম্পাদনা

আস্তেরিয়া ছিলেন ডানাইডদের একজন, যারা বিয়ের রাতে তাদের স্বামীকে খুন করত এবং ডানাউসের কন্যা। আস্তেরিয়া স্বল্প সময়ের জন্য চাইতাসের স্ত্রী ছিলেন।

আলকিনাইডিসসম্পাদনা

আস্তেরিয়া আলকিনাইডিসদের একজন ছিলেন। সে তার বোনদের সাথে সমুদ্রে উড়ে যায় এবং মাছরাঙ্গা পাখিতে রূপান্তরিত হয়।[৪]

করোনাসের কন্যাসম্পাদনা

আস্তেরিয়া করোনাসের কন্যা এবং সম্ভবত তিনি এবং অ্যাপোলো ভবিষ্যৎদ্রষ্টা ইডমনের পিতামাতা।[৫]

তেউসারের কন্যাসম্পাদনা

তেউসার এবং সাইপ্রাসের ইউনের কন্যার নামও আস্তেরিয়া ছিল।[৬]

ফোকাসের উপপত্নীসম্পাদনা

আস্তেরিয়া বা আস্তেরোডিয়া ছিলেন ফোকাসের উপপত্নী। তাদের সন্তান ক্রিসাস ও পানোপাস।[৭]

বেলেরোফোনের উপপত্নীসম্পাদনা

আস্তেরিয়া ছিলেন হাইডিয়াসের কন্যা। তিনি বেলেরোফোনের উপপত্নী এবং তাদের সন্তান হাইডিসস। তার পুত্র কারিয়া শহর প্রতিষ্ঠা করেন, যা তার নামেই নামকরণ করা হয়।[৮]

অ্যাথেনীয় দাসীসম্পাদনা

আস্তেরিয়া একজন অ্যাথেনীয় দাসী ছিলেন যাকে মিনোতরের সম্ভাব্য উৎসর্গ করা হওয়ার কথা ছিল, যা ফুলদানির চিত্রের অঙ্কিত হয়।[৯]

তেলেমাকো অপেরার চরিত্রসম্পাদনা

ক্রিস্টফ ভিলিবাল্ড গ্লুক তার ১৭৬৫ সালের তেলেমাকো অপেরার একটি চরিত্রের নাম দেন আস্তেরিয়া। অপেরাটি হোমারের ওডিসি অবলম্বনে হলেও, সেখানে এই নাম ছিল না।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Hesiod, "Theogony", 404ff।
  2. Hesiod, "Theogony", 409–11
  3. Diodorus Siculus, "Library of History", 4. 16.3 (on-line text)।
  4. Suda s. v., "Alkyonides"।
  5. Scholia on Apollonius Rhodius, Argonautica, 1. 139, citing Pherecydes of Leros।
  6. Tzetzes, "Lycophron", 450।
  7. Tzetzes, "Lycophron", 939।
  8. Stephanus of Byzantium, s. v. Hydissos।
  9. Corpus Inscriptionum Graecarum 4. 8185 (painting on François Vase)।

টেমপ্লেট:গ্রিক পুরাণে শ্বরবৃন্দ