আলবার্ট হার্টকফ

অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার ও ফুটবলার

আলবার্ট আর্নস্ট ভিক্টর হার্টকফ (ইংরেজি: Albert Hartkopf; জন্ম: ২৮ ডিসেম্বর, ১৮৮৯ - মৃত্যু: ২০ মে, ১৯৬৮) ভিক্টোরিয়ার ফিটজরয় নর্থ এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ও অস্ট্রেলীয় রুলস ফুটবলার ছিলেন।[১] অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯২৫ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

আলবার্ট হার্টকফ
Bert Hartkopf 1910.jpg
আনুমানিক ১৯১০ সালের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে আলবার্ট হার্টকফ
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামআলবার্ট আর্নস্ট ভিক্টর হার্টকফ
জন্ম(১৮৮৯-১২-২৮)২৮ ডিসেম্বর ১৮৮৯
ফিটজরয় নর্থ, ভিক্টোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া
মৃত্যু২০ মে ১৯৬৮(1968-05-20) (বয়স ৭৮)
কিউ, ভিক্টোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনলেগ ব্রেক
ভূমিকাঅল-রাউন্ডার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ১২০)
১ জানুয়ারি ১৯২৫ বনাম ইংল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৪১
রানের সংখ্যা ৮০ ১৭৫৮
ব্যাটিং গড় ৪০.০০ ৩৪.৪৭
১০০/৫০ ০/১ ২/১২
সর্বোচ্চ রান ৮০ ১২৬
বল করেছে ২৪০ ৬৪৯৪
উইকেট ১২১
বোলিং গড় ১৩৪.০০ ৩০.৭৯
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/১২০ ৮/১০৫
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/০ ৩৬/০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৩ আগস্ট ২০১৯

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটে ভিক্টোরিয়া দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ অল-রাউন্ডার ছিলেন। ডানহাতে ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি লেগ ব্রেক বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন আলবার্ট হার্টকফ

শৈশবকালসম্পাদনা

জার্মান অভিবাসনকারী দম্পতির সন্তান আলবার্ট হার্টকফ মেলবোর্নের স্কচ কলেজে পড়াশোনা করেছেন। প্রতিভাবান অ্যাথলেট হিসেবে বিদ্যালয় জীবনে সকলের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছিলেন। স্কচ থেকে স্নাতক ডিগ্রি সম্পন্ন করার পর মেলবোর্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ঔষধ বিষয়ে অধ্যয়ন করেন। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয় দলের পক্ষে ভিক্টোরিয়ান ফুটবল লীগে অংশ নেন। ৪৮ খেলায় অংশ নিয়ে ৮৭ গোল করেছিলেন তিনি।

১৯১১ সালে ভিক্টোরিয়া রাজ্যের ৪৪০ গজ চ্যাম্পিয়নে অস্ট্রেলিয়ার অন্যতম সেরা সর্বক্রীড়াবিদ হিসেবে নিজেকে পরিচিত করে তোলেন।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটসম্পাদনা

১৯১১-১২ মৌসুম থেকে ১৯২৮-২৯ মৌসুম পর্যন্ত আলবার্ট হার্টকফের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ভিক্টোরিয়ার সফলতম অল-রাউন্ডার হিসেবে পরিগণিত হয়েছিলেন। অনেকগুলো বছর ভিক্টোরিয়ার পক্ষে খেলেছিলেন। ৩৪.৪৭ গড়ে ১৭৫৮ রান ও ৩০.৭৯ গড়ে ১২১ উইকেট পান।

২৩ ডিসেম্বর, ১৯১১ তারিখে ভিক্টোরিয়ার পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক পর্ব সম্পন্ন হয় তার। মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে নিউ সাউথ ওয়েলসের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত ঐ খেলায় তিনি ব্যাট হাতে অপরাজিত ৪২ ও শূন্য রান এবং লেগ ব্রেক বোলিংয়ে ২/২০ লাভ করেছিলেন। আঘাতের পূর্ব-পর্যন্ত ভিক্টোরিয়া ক্রিকেট দল ও বিশ্ববিদ্যালয় ফুটবল দলের নিয়মিত সদস্যরূপে খেলতে থাকেন।

বিশ্বযুদ্ধে অংশগ্রহণসম্পাদনা

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের কারণে আলবার্ট হার্টকফের খেলোয়াড়ী জীবনে স্থবিরতা নেমে আসে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে মেলবোর্নের রয়্যাল ওম্যান্স হাসপাতালে কাজ করেন। এরপর পার্থের রয়্যাল চিলড্রেন্স হাসপাতালে স্থানান্তরিত হন। তবে, এ যুদ্ধে জার্মান রক্ত প্রবাহের কারণে তিনি কোন সমস্যায় পড়েছিলেন কি-না তা জানা যায়নি।

বিশ্বযুদ্ধের পর ১৯১৯ সালে মেলবোর্নে ফিরে আসেন ও ভিক্টোরিয়ার নর্থকোটে চিকিৎসা কার্য চালাতে শুরু করেন। ক্রিকেটের জগতেও ফিরে আসেন তিনি। ছয় বছরের মধ্যে ভিক্টোরিয়ার পক্ষে প্রথম খেলেন। নিউ সাউথ ওয়েলসের বিপক্ষে ৫৩ ও ৪৯ রান তুলেন। ১৯২২-২৩ মৌসুমে ভিক্টোরিয়ার সদস্যরূপে সফররত এমসিসি’র বিপক্ষে খেলার সুযোগ পান এবং ৫/২৩ ও ৮/১০৫ পান। এছাড়াও, ব্যাট হাতে নিয়ে ৮৬ ও অপরাজিত ১৪ রান তুলেন।

নভেম্বর, ১৯২৪ সালে সফররত ইংরেজ দলের বিপক্ষে ভিক্টোরিয়ার সদস্যরূপে অপরাজিত অর্ধ-শতরানের ইনিংস খেলেন। ফলশ্রুতিতে, ৩৫ বছর বয়সে জাতীয় দলে তাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটসম্পাদনা

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন আলবার্ট হার্টকফ। ১ জানুয়ারি, ১৯২৫ তারিখে মেলবোর্নে সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এটই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল।

১৯২৪-২৫ মৌসুমে এমসিজিতে অ্যাশেজ সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে খেলেন। প্রথম ইনিংসে আট নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমে ৮০ রান করেন। তবে, অস্ট্রেলিয়া দলের রান সংগ্রাহকের অভাব ছিল না। খেলায় ১৩৪ রান খরচায় একটিমাত্র উইকেট পান। এরফলে, দলের বাইরে রাখা হয় তাকে।

১৯২৭-২৮ মৌসুম পর্যন্ত ভিক্টোরিয়ার পক্ষে খেলতে থাকেন। কিন্তু, তাকে আর জাতীয় দলে খেলার জন্যে আর আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। এরপর তিনি চিকিৎসা পেশায় মনোনিবেশ ঘটান।

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

ক্রিকেটের পাশাপাশি অস্ট্রেলীয় রুলস ফুটবলে পারদর্শীতা দেখিয়েছেন আলবার্ট হার্টকফ। মেলবোর্ন বিশ্ববিদ্যালয় ফুটবল ক্লাবের পক্ষে অস্ট্রেলীয় রুলস ফুটবলে অংশগ্রহণ করেছিলেন তিনি।

দীর্ঘদিন বাতরোগে আক্রান্ত ছিলেন। অতঃপর ২০ মে, ১৯৬৮ তারিখে ৭৮ বছর বয়সে ভিক্টোরিয়ার কিউ এলাকায় আলবার্ট হার্টকফের দেহাবসান ঘটে। ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত তার মৃত্যুর বিষয়টি উইজডেনের কোন সংস্করণে খুঁজে পাওয়া যায়নি।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Australia – Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৩ আগস্ট ২০১৯ 

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা