আবেগসূচক পদ

বাংলা ভাষার একটি পদ

আবেগসূচক পদ হলো সেসব পদ বা শব্দাংশ, যা দিয়ে মনের নানা ভাব বা আবেগকে প্রকাশ করা হয়। এই ধরনের পদ বাক্যের অন্য শব্দের সঙ্গে সরাসরি সম্পর্কিত না হয়ে স্বতন্ত্রভাবে ব্যবহৃত হয়।[১] আবেগসূচক পদের পর সাধারণত আবেগসূচক চিহ্ন (!) ও কমা চিহ্ন (,) বসে।

প্রকারভেদসম্পাদনা

সিদ্ধান্তবাচক আবেগসম্পাদনা

এই ধরনের আবেগসূচক পদের সাহায্যে অনুমোদন, সম্মতি, সমর্থন ভাব প্রকাশ করা হয়।[১] উদাহরণস্বরূপ-
হ্যাঁ, আমাদের জিততেই হবে।
বেশ, তবে যাওয়াই যাক।

প্রশংসাবাচক আবেগসম্পাদনা

এই ধরনের আবেগসূচক পদ প্রশংসাবাচক মনোভাব প্রকাশে ব্যবহৃত হয়।[১] উদাহরণস্বরূপ-
শাবাশ! এমন খেলাই তো চেয়েছিলাম!
বাহ্! চমৎকার লিখেছ।

বিরক্তিসূচক আবেগসম্পাদনা

এই ধরনের আবেগসূচক শব্দ অবজ্ঞা, ঘৃণা, বিরক্তি মনোভাব প্রকাশে ব্যবহৃত হয়।[১] উদাহরণস্বরূপ-
ছি ছি! এরকম কথা তাঁর মুখে মানায় না।
জ্বালা! তোমাকে নিয়ে আর পারি না!

আতঙ্কসূচক আবেগসম্পাদনা

এই ধরনের আবেগসূচক শব্দ আতঙ্ক, যন্ত্রণা, কাতরতা প্রকাশ করে।[১] উদাহরণস্বরূপ-
উহ্, কী বিপদে পড়া গেল।
বাপরে বাপ! কী ভয়ঙ্কর ছিল রাক্ষসটা।

বিস্ময়সূচক আবেগসম্পাদনা

এই ধরনের আবেগসূচক শব্দ বিস্মিত বা আশ্চর্য হওয়ার ভাব প্রকাশ করে।[১] উদাহরণস্বরূপ-
আরে! তুমি আবার কখন এলে?
আহ্, কী চমৎকার দৃশ্য!

করুণাসূচক আবেগসম্পাদনা

এই ধরনের আবেগসূচক শব্দ করুণা, মায়া, সহানুভূতি মনোভাব প্রকাশ করে।[১] উদাহরণস্বরূপ-
আহা! বেচারার এত কষ্ট।
হায় হায়! ওর এখন কী হবে!

সম্বোধনসূচক আবেগসম্পাদনা

এই ধরনের আবেগসূচক শব্দ সম্বোধন বা আহ্বান করার ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়।[১] উদাহরণস্বরূপ-
হে বন্ধু, তোমাকে অভিনন্দন।
ওগো, তোরা জয়ধ্বনি কর।

আলংকারিক আবেগসম্পাদনা

এই ধরনের আবেগসূচক শব্দ বাক্যের অর্থের পরিবর্তন না ঘটিয়ে কোমলতা, মাধুর্যের মতো বৈশিষ্ট্য এবং সংশয় অনুরোধ, মিনতির মনোভাব প্রকাশের জন্যে অলংকার হিসেবে ব্যবহৃত হয়।[১] উদাহরণ-
দূর! এ কথা কি বলতে আছে?
যাকগে, ওসব কথা থাক।

অন্যান্য ভাষায়সম্পাদনা

ইংরেজিসম্পাদনা

ইংরেজি ভাষাতেও আবেগসূচক পদ ব্যবহৃত হয়। কিছু ইংরেজি আবেগসূচক শব্দ- Hi!, Hello!, Hmm, Hurray!, Sad!, Ouch!, Oh!, Yay, Holy Jesus!, Yup প্রভৃতি।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. বাংলা ভাষার ব্যাকরণ ও নির্মিতি, নবম-দশম শ্রেণি, জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড, ঢাকা, বাংলাদেশ। ২০২১ সংস্করণ।