ইসলামিক শরীয়াহ অনুসারে, আওরাহ বা সতর আরবি: عورة‎‎ 'আওরাহ, আরবি: ستر‎‎, সতর ) হল মানব শরীরের সে সকল অংশ যেগুলো অপরের সামনে ঢেকে রাখা বাধ্যতামুলক।[১][২] নারী পুরুষ লিঙ্গ, বয়স ও সম্পর্কভেদে আওরাহর পরিমাণে পার্থক্য রয়েছে।[৩][৪]

শব্দতত্ত্বসম্পাদনা

আওরা শব্দটি মূলত আরবি আওর ধাতু থেকে এসেছে যার অর্থ অপরিপক্কতা, অসম্পূর্ণতা, ত্রুটি, দূর্বলতা, নগ্নতা| সবচেয়ে বেশি যে অর্থটি ব্যবহৃত হয় তা হল নগ্নতা[৫] এটি ব্যবহারিকভাবে দুইটি অর্থ প্রকাশ করে,

  1. নগ্নতা, লজ্জা এবং
  2. যুবতী নারী [৬]

পাকিস্তানে ব্যবহৃত আওরাত শব্দটিও আওরাহ থেকে উৎপন্ন হয়েছে যার দ্বারা মহিলাদেরকে বুঝানো হয়| এছাড়া তুর্কি ভাষায়, মহিলা এবং স্ত্রী উভয় অর্থেই পৃথকভাবে শব্দটি ব্যবহূত হয়।

কুরআনে আওরাহ'র বিবরণসম্পাদনা

কুরআনে আওরাহ শব্দটি কেবল নারী বা লজ্জা অর্থে সীমাবদ্ধ থাকে নি| বরং সূরা নূর এবং সূরা আল-আহযাবের বিভিন্ন স্থানে শব্দটি বিভিন্ন অর্থে প্রয়োগ করা হয়েছে।

"হে মুমিনগণ! তোমাদের দাসদাসীরা এবং তোমাদের মধ্যে যারা প্রাপ্ত বয়স্ক হয়নি তারা যেন তিন সময়ে তোমাদের কাছে অনুমতি গ্রহণ করে, ফজরের নামাযের পূর্বে, দুপুরে যখন তোমরা বস্ত্র খুলে রাখ এবং এশার নামাযের পর। এই তিন সময় তোমাদের দেহ খোলার সময়। এ সময়ের পর তোমাদের ও তাদের জন্যে কোন দোষ নেই। তোমাদের একে অপরের কাছে তো যাতায়াত করতেই হয়, এমনি ভাবে আল্লাহ তোমাদের কাছে সুস্পষ্ট আয়াতসমূহ বিবৃত করেন। আল্লাহ সর্বজ্ঞ, প্রজ্ঞাময়।"[৭]

হাদীসে আওরাহ'র বিবরণসম্পাদনা

পুরুষ ও মহিলাদের আওরার পার্থক্যসম্পাদনা

পুরুষসম্পাদনা

ইসলামের ভাষ্যমতে, পরিনত বয়সে পুরুষদের জন্য আওরাহ হল নাভির উপর থেকে হাঁটুর নিচ পর্যন্ত অংশ৷ তবে আওরাহ হাঁটু পর্যন্ত কি না তা নিয়ে বিজ্ঞজনদের মধ্যে বিতর্ক রয়েছে৷ শাফেঈ, মালিকি ও হাম্বলি ফিকহ অনুসারে পুরুষদের জন্য হাঁটু আওরাহর অন্তর্ভুক্ত নয়, অপরদিকে হানাফি ফিকহে হাঁটুর অন্তর্ভুক্তির পক্ষে মত দেওয়া হয়েছে৷ কিন্তু গোরালির নিচ পর্যন্ত লম্বা পাজামা, প্যান্ট বা কাপড় পড়া স্পষ্টভাবে নিষিদ্ধ৷

মহিলাসম্পাদনা

মহিলাদের আওরাহ তুলনামূলক জটিল একটি বিষয় এবং পরিস্থিতি সাপেক্ষে তা বিভিন্ন হয়| দৈনন্দিন প্রার্থনা বা নামাযের সময় আওরাহ হল মুখমন্ডল ও হাতের কবজি ছাড়া বাকি অংশ| স্বামী স্ত্রী পরস্পর নির্জনে থাকার সময় পরস্পরের জন্য আওরাহর কোন বিধিনিষেধ নেই| তবে ব্যক্তিগতভাবে একলা থাকার সময় নারী পুরুষ উভয়কেই যৌনাঙ্গ ঢেকে রাখতে বলা হয়েছে, বিশেষ কিছু ক্ষেত্র ছাড়া যেমন একাকী স্নান ও শৌচকাজের সময়| মাহরাম পুরুষদের সামনে সাবালিকা মেয়ে ও পরিণত বয়স্কা মহিলাদের জন্য আওরাহ হল মুখমন্ডল এবং হাতের কবজি পর্যন্ত অংশ ছাড়া দেহের বাকি অংশ|

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Amer, Dr Magdah। An Islamic Perspective on Legislation for Women Part II (ইংরেজি ভাষায়)। ScribeDigital.com। আইএসবিএন 978-1-78041-019-7 
  2. Moj, Muhammad (২০১৫-০৩-০১)। The Deoband Madrassah Movement: Countercultural Trends and Tendencies (ইংরেজি ভাষায়)। Anthem Press। পৃষ্ঠা ১৮১। আইএসবিএন 978-1-78308-446-3 
  3. Martin et al. (2003), Encyclopedia of Islam & the Muslim World, Macmillan Reference, আইএসবিএন ৯৭৮-০০২৮৬৫৬০৩৮
  4. "Al Azhar: Wearing the Hijab May Not Be an 'Islamic Duty'"। জুলাই ২২, ২০১২। ফেব্রুয়ারি ২, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৪ 
  5. Wehr Arabic-English Dictionary pg 131
  6. Moin Dictionary, 1994
  7. কুরআন 24:58

বহিঃসংযোগসম্পাদনা