অ্যান ব্লিদ

মার্কিন অভিনেত্রী

অ্যান মারি ব্লিদ (জন্ম ১৬ আগস্ট ১৯২৮) একজন অবসরপ্রাপ্ত মার্কিন অভিনেত্রী ও গায়িকা। তাকে প্রায়ই হলিউডের সঙ্গীতধর্মী চলচ্চিত্রে দেখা যায়, কিন্তু নাট্যধর্মী চলচ্চিত্রেও সফল ছিলেন। তিনি মাইকেল কার্টিজে মিলড্রেড পিয়ার্স (১৯৪৫) চলচ্চিত্রে ভেডা পিয়ার্স চরিত্রে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। তার অভিনীত অন্যান্য উল্লেখযোগ্য ও ব্যবসাসফল চলচ্চিত্র হল কিলার ম্যাকয় (১৯৪৭) রেড ক্যানিয়ন (১৯৪৯), ক্যাটি ডিড ইট (১৯৫১), স্যালি অ্যান্ড সেন্ট অ্যান (১৯৫২), ও দ্য হেলেন মরগান স্টোরি (১৯৫৭)।

অ্যান ব্লিদ
Ann Blyth
Ann Blyth MGM 1954.jpg
১৯৫৪ সালের আগস্টে মডার্ন স্কিন ম্যাগাজিনে ব্লিদ
জন্ম
অ্যান মারি ব্লিদ

(1928-08-16) ১৬ আগস্ট ১৯২৮ (বয়স ৯৩)
পেশাঅভিনেত্রী, গায়িকা
কর্মজীবন১৯৩৩-১৯৮৫
দাম্পত্য সঙ্গীজেমস ম্যাকনাল্টি (বি. ১৯৫৩; মৃ. ২০০৭)
সন্তান
পরিবারডেনিস ডে (ভাসুর)

তিনি হলিউডের স্বর্ণযুগের সর্বশেষ জীবিত তারকাদের একজন।

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

ব্লিদ ১৯২৮ সালের ১৬ই আগস্ট নিউ ইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের মাউন্ট কিস্কোতে জন্মগ্রহণ করেন। তার মাতা ন্যান লিঞ্চ ও পিতা হ্যারি ব্লিদ।[১] তার পিতামাতার বিচ্ছেদের পর ব্লিদ, তার মাতা ও বোন নিউ ইয়র্ক সিটির ইস্ট ৩১তম স্ট্রিটের একটি ওয়াক-আপ অ্যাপার্টমেন্টে চলে যান। সেখানে তার মাতা কাপড় ইস্ত্রির কাজ করতেন।[২] ব্লিদ ম্যানহাটনের সেন্ট প্যাট্রিক্‌স স্কুলে পড়াশোনা করেন।

কর্মজীবনসম্পাদনা

ব্লিদ তার অভিনয় জীবন শুরুর সময়ে "Anne Blyth" নাম ব্যবহার করতেন, কিন্তু চলচ্চিত্র জীবন শুরুর সময়ে "Ann" নামে ফিরে যান। তিনি ১৯৪৪ সালে ডোনাল্ড ওকনরপেগি রায়ানের সাথে কিশোর-বয়সী সঙ্গীতধর্মী চলচ্চিত্র চিপ অফ দ্য ওল্ড ব্লক দিয়ে তার চলচ্চিত্র জীবন শুরু করেন।[৩]

তিনি ইউনিভার্সাল থেকে ধারে ওয়ার্নার ব্রাদার্সের মিলড্রেড পিয়ার্স (১৯৪৫) চলচ্চিত্রে জোন ক্রফোর্ডের অভিনীত চরিত্রের কন্যা ভেডা পিয়ার্স চরিত্রে অভিনয় করেন। মাইকেল কার্টিজ পরিচালিত এই চলচ্চিত্রে অভিনয়ের সময় তার বয়স ছিল মাত্র ১৬ বছর।[৩] তার নাট্যধর্মী কাজের জন্য তিনি বিপুল সমাদৃত হন এবং শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন, অন্যদিকে জোন ক্রফোর্ড শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে একাডেমি পুরস্কার অর্জন করেন।[১]

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

১৯৫৩ সালে ব্লিদ ধাত্রীবিদ জেমস ম্যাকনাল্টির সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। ম্যাকনাল্টি সঙ্গীতশিল্পী ডেনিস ডের ভাই। ডে তাদের দুজনকে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন। কনেপক্ষে ছিলেন অভিনেত্রী জোন লেসলি, জেন উইদার্সবেটি লিন। এই দম্পতির পোপের নিকট থেকে বিশেষ অনুমোদন পেয়েছিলেন।[৪]

বিবাহের পর ব্লিদ তার সন্তানদের লালনপালন করার জন্য সাময়িক বিরতি নেন। তার সন্তানেরা হলেন টিমথি প্যাট্রিক (জ. ১০ জুন ১৯৫৪), মরিন অ্যান (জ. ১৪ ডিসেম্বর ১৯৫৫), ক্যাথলিন ম্যারি (জ. ২৩ ডিসেম্বর ১৯৫৭), টেরেন্স গ্র্যাডি (জ. ৯ ডিসেম্বর ১৯৬০), ও এইলিন অ্যালানা (জ. ১০ এপ্রিল ১৯৬৩)।[৫][৬]

১৯৭৩ সালে তিনি ও ম্যাকনাল্টি দম্পতি টেরেন্স কার্ডিনাল কুকের সভাপতিত্বে এক আয়োজনে হলি সেপুলচ্রের সম্মানিত লেডি ও নাইট পদবীতে ভূষিত হন।[৭] ম্যাকনাল্টি ২০০৭ সালের ১৩ই মে ক্যালিফোর্নিয়ার লা জোলায় মৃত্যুবরণ করেন।[৭]

পুরস্কার ও মনোনয়নসম্পাদনা

বছর পুরস্কার বিভাগ মনোনীত কর্ম ফলাফল
১৯৪৬ একাডেমি পুরস্কার শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী মিলড্রেড পিয়ার্স মনোনীত
১৯৫৮ লরেল পুরস্কার সেরা নারী সঙ্গীতধর্মী অভিনয় দ্য হেলেন মরগান স্টোরি

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Ann Blyth"টার্নার ক্লাসিক মুভিজ। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০২০ 
  2. "Guideposts Classics: Ann Blyth on Her Personal Faith"গাইডপোস্টস (ইংরেজি ভাষায়)। ২০ আগস্ট ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০২০ 
  3. কিং, সুজান (আগস্ট ১২, ২০১৩)। "Ann Blyth gets a TCM salute for her birthday"লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০২০ 
  4. "Ann Blyth Wed as 600 Watch Church Service: ANN BLYTH MARRIED"। লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস। জুন ২৮, ১৯৫৩। পৃষ্ঠা ১। 
  5. "Daughter Born to Ann Blyth"। লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস। এপ্রিল ১১, ১৯৬৩। পৃষ্ঠা ৩০। 
  6. অ্যান্ডারসন, ন্যান্সি (আগস্ট ২২, ১৯৭৪)। "Ann Blyth has Cake and Eats it"লোদি নিউজ-সেন্টিনেল 
  7. "Ann Blyth Profile"গ্ল্যামার গার্লস অব দ্য সিলভার স্ক্রিন। সংগ্রহের তারিখ ২৭ অক্টোবর ২০২০ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা