প্রধান মেনু খুলুন

অ্যানথ্রাক্স (ব্যান্ড)

অ্যানথ্রাক্স একটি আমেরিকান হেভি মেটাল ব্যান্ড বা ১৯৮১ সালে গঠিত হয়। ১৯৮০-এর দশকের অন্যতম জনপ্রিয় একটি থ্রাশ মেটাল ব্যান্ড হলো অ্যানথ্রাক্স যাদের ১০ মিলিয়ন কপি অ্যালবাম বিক্রি হয়েছে সারা বিশ্বে। ব্যান্ডটিকে প্রথম ৪টি বড় থ্রাশ মেটাল ব্যান্ডের মধ্যে (স্লেয়ার, মেগাডেথমেটালিকা) অন্যতম ধরা হয়ে থাকে। ১৯৮১ সালের মাঝামাঝিতে অ্যানথ্রাক্স ব্যান্ডটি গঠিত হয় গিটারিস্ট স্কট ইয়ান ও ড্যানি লিল্কারের মাধ্যমে। একটি জীব বিজ্ঞান পাঠ্যবই থেকে তারা নামটি খুঁজে পায় ও তাদের কাছে নামটি যথেস্ট শয়তান মনে হয়। অ্যানথ্রাক্স ১৯৮৩ সালের শেষের দিকে প্রথম অ্যালবাম রেকর্ড করে যার নাম ফিস্টফুল অব মেটাল। অ্যালবামটি কিছু আন্তর্জাতিক মনোযোগ আকর্ষণে সক্ষম হয়। ১৯৮৪ সালের জানুয়ারি মাসে অ্যালবামটি মুক্তি পায়। ১৯৮৯ সালে এমটিভি একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করে যেখানে বিজয়ীর বাসায় ব্যান্ডটি যাবে।এই প্রতিযোগিতায় একজন মেয়ে ভক্ত জয়ী হয় ও পরবর্তীকালে অ্যানথ্রাক্স তার বাসায় যেয়ে ব্যাপক বিধ্বংসী তৎপরতা চালায়। ২০০১ সালে আমেরিকায় অ্যানথ্রাক্স জীবাণুর আক্রমণ হলে অ্যানথ্রাক্স ব্যান্ড তাদের ওয়েবসাইট পরিবর্তন করে যাতে রোগটা সম্পর্কে তথ্য দেয়া যায়।কিন্তু ব্যান্ডটি তাদের নাম পরিবর্তন করেনি। অ্যানথ্রাক্স ১৬ই জুন, ২০১০ সালে স্লেয়ার, মেগাডেথমেটালিকা ব্যান্ডের সাথে বেমোয়ো এয়ারপোর্টে পোল্যান্ডে প্রথমবারের মতো কনসার্ট করে। এটা সনিস্ফেয়ার ফেস্টিভ্যালের একটা অংশ ছিল। পরে তারা ২৬শে জুন রোমানিয়ায়, ২৭ শে জুন তুরস্কে ও সবশেষে ৭ই আগস্ট সুইডেনে সনিস্ফেয়ার ফেস্টিভ্যালের অংশ হিসেবে কনসার্ট করে। পেন্টেরা ব্যান্ডের ফিল এ্যান্সেলমো ভলিউম ৮: দ্যা থ্রেট ইস রিয়েল অ্যালবামে কাজ করে।

অ্যানথ্রাক্স
Anthrax-Frank Bello & Scott Ian.jpg
২০০৫ সালে অ্যানথ্রাক্স
প্রাথমিক তথ্য
উদ্ভবনিউ ইয়র্ক, আমেরিকা
ধরনহেভি মেটাল, থ্রাশ মেটাল, স্পীড মেটাল, ক্রসওভার থ্রাশ
কার্যকাল১৯৮১-বর্তমান
লেবেলমেগাফোর্স রেকর্ডস, আইসল্যান্ড রেকর্ডস, ইলেকট্রা রেকর্ডস ,ইউনিভার্সেল রেকর্ডস
ওয়েবসাইটwww.anthrax.com
সদস্যবৃন্দস্কট ইয়ান
চার্লি বেনান্টে
ফ্রাঙ্ক বেল্লো
রব কাযযিয়ানো
জয় বেলাডোন্না
আই এন মিউজিক ফেস্টিভ্যালে ২০০৯ সালে অ্যানথ্রাক্স

বর্তমান সদস্যসম্পাদনা

  • স্কট ইয়ান
  • চার্লি বেনান্টে
  • ফ্রাঙ্ক বেল্লো
  • রব কাযযিয়ানো
  • জয় বেলাডোন্না

ডিস্কোগ্রাফিসম্পাদনা

  • ফিস্টফুল অব মেটাল (১৯৮৪)
  • স্প্রেডিং দ্যা ডিজিজ (১৯৮৫)
  • অ্যামোং দ্যা লিভিং (১৯৮৭)
  • স্টেট অব ইউফোরিয়া(১৯৮৮)
  • পারসিস্টেন্স অব টাইম (১৯৯০)
  • সাউন্ড অব হোয়াইট নয়েজ (১৯৯৩)
  • স্টোম্প ৪৪২ (১৯৯৫)
  • ভলিউম ৮: দ্যা থ্রেট ইস রিয়েল (১৯৯৮)
  • উই হ্যাভ কাম ফর ইউ অল (২০০৩)
  • ওয়াশিপ মিউজিক

বহিঃসংযোগসম্পাদনা