প্রধান মেনু খুলুন

অজয় নদ ঝাড়খণ্ডপশ্চিমবঙ্গের একটি বন্যাসঙ্কুল নদী যা গঙ্গার অন্যতম প্রধান শাখা ভাগীরথী হুগলির উপনদী।

অজয় নামটির অর্থ যাকে জয় করা যায় না।

পরিচ্ছেদসমূহ

ভূগোলসম্পাদনা

বিহারের মুঙ্গের জেলায় একটি ৩০০ মিটার উচু পাহাড় থেকে উৎসারিত হয়ে দক্ষিণ-পূর্ব দিকে প্রবাহী অজয় ঝাড়খণ্ডের উপর দিয়ে বয়ে গিয়ে পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার চিত্তরঞ্জনের নিকট শিমজুড়িতে পশ্চিমবঙ্গে প্রবেশ করেছে এবং বর্ধমান ও বীরভূম জেলার প্রাকৃতিক সীমানা হিসাবে পূর্বে প্রবাহিত হয়ে বর্ধমানের কাটোয়া সাবডিভিসনের কেতুগ্রাম থানা অঞ্চলে বর্ধমানে প্রবেশ করে কাটোয়া শহরের কাছে ভাগীরথীর সংগে মিলিত হয়েছে।[১] অজয় মোট দৈর্ঘ্য ২৮৮ কিলোমিটার যার মধ্যে শেষ ১৫২ কিমি পশ্চিমবঙ্গে অবস্থিত। [২][৩]

অজয়ের প্রধান উপনদীগুলি হল ঝাড়খণ্ডের পাথরো ও জয়ন্তী এবং বর্ধমানের তুমুনি ও কুনুর।[২]

অজয়ের ধারা শুরু থেকে অনেকদুর অবধি ল্যাটেরাইট মাটির উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে বর্ধমানের আশুগ্রামে এসে শেষ পর্যন্ত পাললিক অববাহিকায় প্রবেশ করে। অজয়ের উপত্যকায় শাল, পিয়ালপলাশের ঘন জঙ্গল ছিল। কিন্তু অধুনা খনিজ নিষ্কাষণ ও অন্যান্য মনুষ্যজনিত উপদ্রবে বেশিরভাগ জঙ্গল সাফ হয়ে গেছে।[২]

ইতিহাসসম্পাদনা

ম্যাক্ ক্রিন্ডল (Mc Krindle) সম্পাদিত ভারতের প্রাচীন ইতিহাস অণুযায়ী মেগাস্থিনিসের লেখায় Amystis নামে একটি নদীর উল্লেখ আছে যা কাটদ্বীপ (Katadupa) শহরের কাছে বয়ে গেছে।আরেকজন ইতিহাসবিদ উইলফ্রেড মনে করেন সেই আমিস্থিস হল বর্তমান অজয়ের কোন প্রাচীন নামের অপভ্রংশ। [৪] আধুনিক উৎখনন কার্যের ফলে অজয়ের উপত্যকায় পাণ্ডু রাজার ঢিপিতে সিন্ধু সভ্যতার সমসাময়িক তাম্রাশ্ম সভ্যতার নানা নিদর্শন আবিষ্কৃত হয়েছে [২]

বিংশ শতাব্দীতে অজয় নদে কম করে ২০ টি বন্যার লিখিত নথি আছে। অজয়ের নিম্নভাগের দুপাশে উচু পাড় থাকায় বন্যার ক্ষতি খুব বেশি হয় না। কিন্তু উচ্চ অঞ্চলে কয়েক বছর অন্তর অন্তর অজয়ের ভাঙনে ও বন্যায় বহু প্রাণহানি, শস্যহানি ও সম্পত্তির ক্ষতি হয়। [২]

১৩শ শতকের গীতগোবিন্দ লেখক কবি জয়দেবের কথিত জন্মস্থান বীরভূম জেলার কেন্দুবিল্ব গ্রাম ও কবি কাজী নজরুল ইসলামের জন্মস্থান বর্ধমান জেলার চুরুলিয়া গ্রাম অজয় নদীর পাড়ে। আমি জীবনান্দ ঘোষ অজয়ের ধারে অবস্থিত কুমুদরঞ্জন মল্লিকের বাড়ি অনেকবার গিয়েছি l প্রকৃতই অজয় যেন এক মোহময়ী নদ l

বাংলা সাহিত্যে অজয় নদের প্রভাবসম্পাদনা

কবি কুমুদ রঞ্জন মল্লিক, কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত ও আরো অনেক কবি অজয়ের দ্বারা প্রভাবিত হয়েছেন:

"বাড়ি আমার ভাঙন ধরা অজয় নদীর বাঁকে,
জল যেখানে সোহাগ ভরে স্থলকে ঘিরে রাখে"
"অজয়ের ভাঙনেতে করে বাড়ি ভঙ্গ,
তবু নিতি নিতি হেরি নব নব রঙ্গ।"

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Chattopadhyay, Akkori, Bardhaman Jelar Itihas O Lok Sanskriti (History and Folk lore of Bardhaman District.), (বাংলা), Vol I, p 27, Radical Impression. আইএসবিএন ৮১-৮৫৪৫৯-৩৬-৩
  2. Chattopadhyay, Akkori, p 28
  3. বন্দ্যোপাধ্যায়, দিলীপকুমার (২০০৭)। বাংলার নদনদী। কলকাতা: দে’জ পাবলিশিং। 
  4. Chattopadhyay, Akkori, p 27

আরো দেখুনসম্পাদনা