১৯৯৯-এ জাবিতে ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলন

১৯৯৯ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলন বাংলাদেশের ধর্ষণ ও যৌন হয়রানির সংস্কৃতির বিরুদ্ধে ছাত্রদের বিক্ষোভের একটি সিরিজ। আন্দোলনের সূচনা হয় ১৯৯৮ সালে যখন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কর্মীরা তাদের নেতা জসিমউদ্দিন মানিক কর্তৃক নারী ধর্ষণের ১০০তম উদযাপন করেন, যিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।[১] ছাত্রীদের দ্বারা প্রভাবিত এক বছরব্যাপী বিক্ষোভের পর, ২ আগস্ট ১৯৯৯ সালে ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে অসংখ্য ধর্ষণ ও যৌন হয়রানির অভিযোগে অভিযুক্ত জসিমউদ্দিন মানিক এবং তার সশস্ত্র ক্যাডারদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়।[২]

পটভূমি

সম্পাদনা

২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে। এরপর আওয়ামী লীগের ছাত্র সংগঠন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কর্মীরা বাংলাদেশের বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রাবাস দখল করে এবং বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের উদারতার কারণে ক্যাম্পাস এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করে। সব ক্যাম্পাসের মত ঢাকার জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ও তারা দখল করে।

১৯৯৮ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কর্মী আনন্দ কুমার ঘোষকে হত্যার পর সংগঠনের ৯ নেতাকে বহিষ্কার করে কেন্দ্রীয় কমিটি। কমিটিতে কথিত ধর্ষক জসিমউদ্দিন মানিককে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে রাখা হয়েছে।[৩] আওয়ামী লীগের পেশিশক্তি ও রাজনৈতিক মদদ দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের ছাত্র এবং বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নবনিযুক্ত সাধারণ সম্পাদক জসীমউদ্দিন মানিক ও তার অনুসারীরা নারী ছাত্রীকে ধর্ষণ ও হয়রানি করতে থাকে। স্থানীয় মেয়েরা। মানিক ও তার অনুসারীরা ক্যাম্পাসে ‘ধর্ষক গ্রুপ’ নামে ব্যাপক পরিচিত ছিল।[৪]

১৯৯৮ সালের আগস্টে বাংলাদেশের একটি জাতীয় দৈনিক মানবজমিন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্ষণের ঘটনাটি আলোকে নিয়ে আসে যখন তারা ক্যাম্পাসে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কর্মীদের দ্বারা তিন ছাত্রীকে ধর্ষণের খবর দেয়। এতে ক্যাম্পাসে একের পর এক বিক্ষোভের সৃষ্টি হয়।[৫]

প্রতিবাদ

সম্পাদনা

১৯৯৮ সালের ১৯ আগস্ট জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও যৌন হয়রানির সংস্কৃতির বিরুদ্ধে প্রথম বড় ধরনের প্রতিবাদ করে। এরপর চলতে থাকে একের পর এক সমাবেশ ও বিক্ষোভ। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ১৯৯৮ সালের সেপ্টেম্বরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সাধারণ ছাত্র ঐক্য গঠন করে এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে যৌন হয়রানির ঘটনা তদন্তের জন্য কর্তৃপক্ষকে একটি কমিটি গঠন করতে বাধ্য করে।[৬]

২৭ সেপ্টেম্বর ১৯৯৮ সালে ফ্যাক্ট-ফাইন্ডিং কমিটি বিভিন্ন স্থানে ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে কমপক্ষে ২০টি ধর্ষণের এবং ৩০০টি যৌন হয়রানির ঘটনা নিশ্চিত করে। কমিটি আরও দেখেছে, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ধর্ষকদের কিংপিন, জসিমউদ্দিন মানিক তার শততম ধর্ষণ পূর্ণ হওয়ায় একটি ককটেল পার্টি ছুড়েছেন এবং তার সহযোগী বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কর্মীদের মিষ্টি উপহার দিয়েছেন।[৭]

বিষয়টি জানার পর বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ অব্যাহত রাখে এবং অভিযুক্ত বাংলাদেশ ছাত্রলীগ নেতাদের বহিষ্কারের দাবির পাশাপাশি তাদের বিরুদ্ধে মামলা করার জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানায়। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জসীমউদ্দীন মানিককে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করলেও তার অনুসারীরা এক বছর থেকে তিন বছরের জন্য সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আলাউদ্দিন আহমেদ অবশ্য জসিমউদ্দিন মানিকসহ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কোনো আইনি ব্যবস্থা নিতে রাজি হননি। অধ্যাপক আনু মুহাম্মদের নেতৃত্বে একদল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এই কাজটিকে "ধর্ষণ লাইসেন্স" প্রদান বলে অভিহিত করেছেন।[৮]

বিক্ষোভের পর, মানিকের প্রতিদ্বন্দ্বী ছাত্রলীগের গ্রুপ এবং তার অনুসারীরা তাদের কাছ থেকে ছাত্রাবাসের নিয়ন্ত্রণ ছিনিয়ে নেয় এবং ১৯৯৮ সালের অক্টোবরে তাদের ক্যাম্পাস থেকে বের করে দেয়। তাদের বিরুদ্ধে কোনো মামলা না হওয়ায় মানিক ও তার লোকজন পলাতক থেকে যায়।

যাইহোক, মানিক ও তার লোকজন 1999 সালের জুলাই মাসে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করে এবং আওয়ামী লীগ সরকারের অনুগত কর্তৃপক্ষের নাকের নিচে ছাত্রাবাসের নিয়ন্ত্রণ ফিরিয়ে নেয়।[৯]

২ আগস্ট ১৯৯৯ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ ছাত্ররা যারা আগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ ছাত্র ঐক্যের অধীনে একত্রিত হয়েছিল, তারা একটি গণবিক্ষোভের আয়োজন করে এবং মানিক ও তার লোকেরা যেখানে বাস করত সেখানে ছাত্রাবাসে ঝাঁপিয়ে পড়ে। "ধর্ষক গ্রুপ" নামে পরিচিত অপরাধীরা সেদিন আবার ক্যাম্পাস থেকে বিতাড়িত হয়, আর কখনো ফিরে আসেনি।[১০]

১৯৯৯ সালের ৫ আগস্ট জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ধর্ষকদের শাস্তির দাবিতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে মানববন্ধন করে।

পরবর্তী ঘটনা

সম্পাদনা

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বা আওয়ামী লীগ সরকারের পক্ষ থেকে ধর্ষকদের বিরুদ্ধে কোনো মামলা করা হয়নি এবং জঘন্য অপরাধের জন্য কোনো অপরাধীর বিচার হয়নি।

মানিকের অন্যতম অনুসারী এবং "ধর্ষক গ্রুপ" এর সদস্য মীর মেহেদী হাসান টিটু ১৯৯৯ সালের ৩ সেপ্টেম্বর আন্দোলনের অন্যতম নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিত্ব অধ্যাপক রেহনুমা আহমেদকে লাঞ্ছিত করেন। এরপর তাকে দুই বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়। যদিও এই টিটু ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট নির্বাচনে আওয়ামী লীগপন্থী প্যানেল থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।[১১]

পরে ২০০১ সালের অক্টোবরে অধ্যাপক আলাউদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আন্দোলন সংগঠিত করার জন্য বামপন্থী সংগঠনের সাতজন কর্মীকে বহিষ্কার করে এবং ৫২ জনকে কেন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হবে না তার কারণ দর্শানোর জন্য বলা হয়েছিল। তবে হাইকোর্টের আদেশে এই পদক্ষেপ অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।[১২]

দুই দশক পরেও, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের লোকেরা প্রায়ই জসীমউদ্দিন মানিক এবং তার ধর্ষক গোষ্ঠীর কথা উল্লেখ করে অনলাইনে মেয়েদের ধর্ষণ এবং হুমকি দেওয়ার ক্ষমতা নিয়ে গর্ব করে।[১৩]

আরও দেখুন

সম্পাদনা

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "JU students protest rape"bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০২০ 
  2. "Rape, impunity and power—then and now"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০২০ 
  3. "9 BCL activists of JU expelled"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০২০ 
  4. "Rape, impunity and power—then and now"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০২০ 
  5. "Violating a Sacred Relationship"The Daily Star। ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০২০ 
  6. "Violating a Sacred Relationship"The Daily Star। ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০২০ 
  7. "The new weapon of war in digital Bangladesh"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০২০ 
  8. "Violating a Sacred Relationship"The Daily Star। ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০২০ 
  9. "Rape, impunity and power—then and now"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০২০ 
  10. "Rape, impunity and power—then and now"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০২০ 
  11. "Controversial ex-students contesting JU senate election"New Age (Bangladesh)। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০২০ 
  12. "Rape, impunity and power—then and now"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০২০ 
  13. "The new weapon of war in digital Bangladesh"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০২০