স্পেস অ্যাপ্লিকেশন সেন্টার

স্পেস অ্যাপ্লিকেশন সেন্টার (SAC) হলো ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশন (ISRO)-এর অধীনস্থ আহমেদাবাদে অবস্থিত একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান। এটি ISRO-এর অন্যতম প্রধান কেন্দ্র যা টেলিযোগাযোগ, রিমোট সেন্সিং, আবহাওয়াবিদ্যা এবং স্যাটেলাইট নেভিগেশন (Sat Nav) ক্ষেত্রে মহাকাশ প্রযুক্তির প্রয়োগের গবেষণা, উন্নয়ন এবং প্রদর্শনে নিযুক্ত রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে অন-বোর্ড সিস্টেম, গ্রাউন্ড সিস্টেম এবং এন্ড ইউজার ইকুইপমেন্ট হার্ডওয়্যার এবং সফ্টওয়্যারের গবেষণা এবং বিকাশ। SAC-এর তিনটি ক্যাম্পাস রয়েছে, যার মধ্যে দুটি আহমেদাবাদে এবং একটি দিল্লিতে অবস্থিত।

স্পেস অ্যাপ্লিকেশন সেন্টার
অ্যাপ্লিকেশন স্পেস সেন্টারের লোগো.PNG
এসএসির লোগো
সংস্থার সংক্ষিপ্ত বিবরণ
সংক্ষেপSAC
গঠিত১৯৭২
প্রকারSpace agency
সদর দপ্তরআহমেদাবাদ, গুজরাত
প্রশাসকনিলেশ এম দেসাই[১] (পরিচালক)
ওয়েবসাইটhttps://www.sac.gov.in

অর্জনসম্পাদনা

স্পেস অ্যাপ্লিকেশান সেন্টারের কিছু অর্জনের মধ্যে রয়েছে ইনস্যাট স্যাটেলাইটের জন্য যোগাযোগ উন্নয়ন এবং আবহাওয়া সংক্রান্ত পেলোড, আইআরএস ভূ-উপগ্রহের জন্য অপটিক্যাল এবং মাইক্রোওয়েভ পেলোড। এসএসি এশিয়া অ্যান্ড দ্য প্যাসিফিকের সেন্টার ফর স্পেস সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি এডুকেশন (সিএসএসটিএপি) এর শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ কোর্স পরিচালনা করার জন্য নিজেদের অবকাঠামো প্রদান করে। এটি ডাঃ বিক্রম সারাভাই প্রতিষ্ঠা করেছিল।[২]

১৯ মার্চ ২০২১-এ, স্পেস অ্যাপ্লিকেশন সেন্টার স্যাটেলাইট প্রযুক্তি (QuEST) প্রকল্প ব্যবহার করে কোয়ান্টাম পরীক্ষা -নিরীক্ষার অংশ হিসাবে লাইভ ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে দুটি ভবনের মধ্যে ৩০০ মিটার দূরত্বে মুক্ত স্থান কোয়ান্টাম যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রদর্শন করে। প্রাথমিক উদ্দেশ্য ছিলো দুটি ইসরো গ্রাউন্ড স্টেশনের মধ্যে স্যাটেলাইট ভিত্তিক কোয়ান্টাম যোগাযোগ সফলভাবে সম্পাদন করা।[৩][৪] পরীক্ষা সম্পাদনের জন্য তৈরি করা হার্ডওয়্যারের মধ্যে রয়েছে ট্রান্সমিটার এবং রিসিভারের মধ্যে সময় সমন্বয়ের জন্য NavIC রিসিভার, অপটিক্যাল অ্যালাইনমেন্টের জন্য বৃহৎ অ্যাপারচারের টেলিস্কোপের বিকল্প হিসেবে জিম্বাল মেকানিজম সিস্টেম।[৫]

এসএসি ১৯৭০ এর দশকের গোড়ার দিক থেকে আহমেদাবাদ এবং ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ডিজাইন, গুজরাতের মধ্যে সহযোগিতা শুরু করে।[৬][৭]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Nilesh. M. Desai is new head of Space Applications centre"SAC Website। ২৩ জানু ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানু ২০২১ 
  2. "Dr. Vikram A. Sarabhai"। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০১৯ 
  3. Kumar, Chethan (২২ মার্চ ২০২১)। "ISRO demonstrates quantum comm tech; to extend it to satellite next"Times of India (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৩-২২ 
  4. Sagar, Ram (২০২১-০৩-২৩)। "ISRO Makes A Quantum Communication Breakthrough: India Joins An Elite List Of Nations"Analytics India Magazine (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৩-২৬ 
  5. "ISRO, Like DRDO, Achieves Quantum Communication: What Is Quantum Key Distribution"Dataquest (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২১-০৩-২২। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৩-২৬ 
  6. "NID Ahmedabad sets up Railway Design Centre for coaches, stations"DeshGujarat (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৫-০৬-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-১৫ 
  7. National Institute of Design (২০১৩)। 50 years of the National Institute of Design, 1961-2011.আইএসবিএন 978-81-86199-71-8ওসিএলসি 871374480 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

{{#coordinates:}}: প্রতি পাতায় একাধিক প্রাথমিক ট্যাগ থাকতে পারবে না