স্কিনভালি (জর্জীয়: ცხინვალი; ) হল বিতর্কিত ডে ফ্যাক্টো স্বাধীন রাষ্ট্র দক্ষিণ ওশেটিয়ার রাজধানী। এটি আম্তর্জাতিকভাবে জর্জিয়ার অংশ হিসেবে বিবেচিত। রাশিয়াসহ জাতিসংঘের কেবল চারটি সদস্যরাষ্ট্র একে স্বীকৃতি দিয়েছে। এটি গ্রেট লিয়াখভি নদীর ওপর এবং জর্জিয়ার রাজধানী তিবিলিসি থেকে প্রায় ১০০ কি.মি উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত।

স্কিনভালি
ცხინვალი (জর্জীয়)
Цхинвал, Чъреба (অসেটীয়)
পাহাড় বেষ্টিত স্কিনভালি
পাহাড় বেষ্টিত স্কিনভালি
দেশ Georgia (ডে জুর)
 South Ossetia ('ডে ফ্যাক্টো')[১]
দখল রাশিয়া
অঞ্চলশিদা কার্টলি
প্রতিষ্ঠিত১৯৩৮
আয়তন
 • মোট১৭.৪৬ বর্গকিমি (৬.৭৪ বর্গমাইল)
উচ্চতা৮৬০ মিটার (২,৮২০ ফুট)
জনসংখ্যা (১ জানুযারি, ২০১৯)
 • মোট৩২,১৮০[২]

স্কিনভালি (Tskhinvali) নামটি প্রাচীন জর্জীয় শব্দ Krtskhinvali ( জর্জীয়: ქრცხინვალი ) থেকে, যা পূর্ববর্তী Krtskhilvani ( জর্জীয়: ქრცხილვანი ) শব্দ থেকে এসেছে। এর আক্ষরিক অর্থ হল 'হর্নবীমের দেশ, [৩] [৪] যা একটি শহরের ঐতিহাসিক নাম। আরো জন্য ცხინვალი দেখুন।

১৯৩৪ থেকে ১৯৬১ সাল পর্যন্ত এই শহরটির নাম ছিল স্ট্যালিনিরি ( জর্জীয়: სტალინირი , অসেটীয়: Сталинир), যা ওসেটীয় শব্দ "Ir" এর সাথে জোসেফ স্ট্যালিনের উপাধির সংকলন ছিল, যার অর্থ ওসেটিয়া । আধুনিক ওসেটীযরা শহরটিকে Tskhinval বলে। শহরটির অন্য ওসেটীয় নাম হল চ্রেবা ( অসেটীয়: Чъреба ), যা কেবলমাত্র একটি কথ্য শব্দ হিসাবে ছড়িয়ে পড়ে। [৫] Chreba নামটি জর্জীয় Ḳreba থেকে এসেছে ( জর্জীয়: კრება), আক্ষরিক অর্থে "জড়ো হওয়া"। শহরটি ঐতিহাসিকভাবে একটি ট্রেডিং পয়েন্ট হিসাবে ব্যবহৃত হওয়ার কারণে এই নামে ডাকা হয়। [৬]

ইতিহাস

সম্পাদনা

বর্তমান স্কিনভালির আশেপাশের এলাকাটি ব্রোঞ্জযুগে প্রথমবার জনবহুল হয়েছিল। সেই সময়ের অনাবিষ্কৃত বসতি ও প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনগুলি সম্ভাব্য সারমাটিয়ান উপাদানগুলির সাথে আইবেরিয়ান (পূর্ব জর্জিয়া) ও কোলচিয়ান (পশ্চিম জর্জিয়া) উভয় সংস্কৃতির প্রভাব প্রতিফলিত করে।

 
ডি. রুডনেভ কর্তৃক অঙ্কিত ১৮৮৬-এর স্কিনভালির একটি ভিনটেজ ছবি।

১৩৯৮ সালে কার্তলি (মধ্য জর্জীয় অংশ) একটি গ্রাম হিসাবে জর্জীয় সূত্র দ্বারা স্কিনভালি প্রথম বর্ণনা করা হয়েছিল। যদিও পরবর্তী একটি বিবরণ ৩য় শতাব্দীর আইবেরিয়ার জর্জীয় রাজা আসপাকিউরেস ২য়-কে একটি দুর্গ হিসাবে এর ভিত্তি স্থাপন করার কথা বর্ণনা করে। ১৮ শতকের গোড়ার দিকে স্কিনভালি একটি ছোট রাজকীয় শহর ছিল, যা মূলত সন্ন্যাসীদের দ্বারা জনবহুল ছিল। ১৮০১ সালে পূর্ব জর্জিয়ার বাকি অংশের সাথে স্কিনভালিকে রাশিয়ান সাম্রাজ্যের সাথে সংযুক্ত করা হয়। এটি একটি বাণিজ্য রুটে অবস্থিত, যা উত্তর ককেশাসকে তিবিলিসি এবং গোরির সাথে সংযুক্ত করেছে। স্কিনভালি ধীরে ধীরে একটি মিশ্র জর্জীয় ইহুদি, জর্জীয়, আর্মেনীয়ওসেটীয় জাতির জনসংখ্যার সাথে একটি বাণিজ্যিক শহরে বিকশিত হয়। ১৯১৭ সালে এতে ৩৮.৪% জর্জীয় ইহুদি, ৩৪.৪% জর্জীয়, ১৭.৭% আর্মেনীয় এবং ৮.৮% ওসেটীয়সহ ৬০০টি বাড়ি ছিল। [৭]

শহরটি ১৯১৮-২০ সময়কালে জর্জিয়ান পিপলস গার্ড ও বলশেভিকপন্থি ওসেটীয় কৃষকদের মধ্যে সংঘর্ষ দেখে, যখন জর্জিয়া রাশিয়া থেকে সংক্ষিপ্ত স্বাধীনতা লাভ করে। ১৯২১ সালের মার্চে আক্রমণকারী রেড আর্মি দ্বারা সোভিয়েত শাসন প্রতিষ্ঠিত হয় এবং এর এক বছর পরে ১৯২২ সালে স্কিনভালিকে জর্জীয় সোভিয়েত সমাজতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রের মধ্যে দক্ষিণ ওসেটিয়ার স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলের রাজধানী করা হয়। পরবর্তীকালে তীব্র নগরায়ণ ও সোভিয়েত স্থানীয়করণ নীতির কারণে শহরটি মূলত ওসেটীয় হয়ে ওঠে, যার ফলে নিকটবর্তী গ্রামীণ এলাকা থেকে ওসেটীয়রা এখানে আসা শুরু করে। এটি মূলত একটি শিল্প কেন্দ্র ছিল, যেখানে লাম্বার মিল ও উৎপাদন কারখানা ছিল এবং এখানে বেশ কিছু সাংস্কৃতিক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও ছিল। ১৯৮৯ সালের সর্বশেষ সোভিয়েত আদমশুমারি অনুসারে স্কিনভালির জনসংখ্যা ছিল ৪২,৯৩৪ জন এবং ২০১৫ সালে দক্ষিণ ওসেটিয়ার আদমশুমারি অনুসারে এর জনসংখ্যা ছিল ৩০,৪৩২ জন।

জর্জীয়-ওসেটীয় দ্বন্দ্বের তীব্র পর্যায়ে স্কিনভালি ছিল জাতিগত উত্তেজনা এবং জর্জীয় ও ওসেটীয় বাহিনীর মধ্যে সশস্ত্র সংঘর্ষের একটি দৃশ্যস্থল। ১৯৯২ সালের সোচি যুদ্ধবিরতি চুক্তিটি ওসেটীয়দের হাতে স্কিনভালি ছেড়ে দেয়।

রুশ-জর্জীয় যুদ্ধ

সম্পাদনা
 
স্কিনভালিতে আর্মেনিয় গির্জার কাছে জর্জিয় -ওসেটীয় সংঘর্ষের শিকারদের স্মৃতিস্তম্ভ।

দক্ষিণ ওসেটিয়ার জনসংখ্যার একটি উল্লেখযোগ্য অংশ (অন্তত ৭০,০০০ এর মধ্যে ৩০,০০০) ২০০৮ সালের যুদ্ধ শুরুর আগে বা অব্যবহিত পরে উত্তর ওসেটিয়া-আলানিয়াতে পালিয়ে যায়।[৮] গোলাবর্ষণ ও স্কিনভালির পরবর্তী যুদ্ধের সময় অনেক বেসামরিক লোক নিহত হয়েছিল ( ১৬২ বেসামরিক মৃত্যুর রুশ তদন্তকারী দল দ্বারা নথিভুক্ত করা হয়েছিল [৯] এবং ৩৬৫ দক্ষিণ ওসেটীয় কর্তৃপক্ষের হিসাব মতে [১০] )।

যুদ্ধের সময় শহরটি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। আন্দ্রে ইলারিওনভ ২০০৮ সালের অক্টোবর মাসে শহরটি পরিদর্শন করেন এবং রিপোর্ট করেন, অনেক স্থাপনা প্রকৃতপক্ষে ধ্বংসস্তূপ হয়ে ছিল এবং তিনি দেখেন যে, ধ্বংসাবশেষগুলি ঝোপঝাড় ও গাছে পরিপূর্ণ ছিল, যা নির্দেশ করে যে ধ্বংসটি ১৯৯১-১৯৯২ সালের দক্ষিণ ওসেটিয়া যুদ্ধের সময় হয়েছিল। [১১]

মার্ক আমেস নামে যে ব্যক্তি শেষ যুদ্ধটি কভার করেন, তিনি বলেছিলেন যে, স্কিনভালির প্রধান আবাসিক জেলা সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস হয়ে গেছে। [১২]

বর্তমান অবস্থা

সম্পাদনা

বর্তমান স্কিনভালি দক্ষিণ ওসেটিয়ার রাজধানী হিসাবে কাজ করে। ২০০৮ সালের যুদ্ধের আগে শহরটির মোট জনসংখ্যা ছিল প্রায় ৩০,০০০। গত দুই দশকে উভয় পক্ষের মধ্যে স্থায়ী রাজনৈতিক মীমাংসার অভাবে শহরটি উল্লেখযোগ্যভাবে অনুন্নত হয়েই আছে।

শহরটিতে মধ্যযুগীয় জর্জীয় স্থাপত্যের বেশ কয়েকটি স্মৃতিস্তম্ভ রয়েছে। এতে অবস্থিত সেন্ট জর্জের কাবতি চার্চটি ৮ম-১০ম শতাব্দীর প্রাচীনতম একটি স্থাপনা। [১৩] [১৪]

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. টেমপ্লেট:South Ossetia-note
  2. Статистический сборник за январь-июнь 2019 г. Entry from September 4, 2019 on the website ugosstat.ru. Retrieved 4 May, 2021.
  3. (রুশ ভাষায়)Словарь географических названий.
  4. Bedoshvili, Guram (২০০২)। Etymological-Explanatory Dictionary of Georgian Toponyms। Bakur Sulakauri Publishing। পৃষ্ঠা 479। 
  5. The Permanent Committee on Geographical Names (UK) (2007) "Georgia: a toponymic note concerning South Ossetia".
  6. টেমপ্লেট:Cite-journal
  7. "Цхинвали. Электронная еврейская энциклопедия"। ২০০৬-০৭-০৪। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০১৫ 
  8. United Nations High Commissioner for Refugees। "UNHCR – UNHCR secures safe passage for Georgians fearing further fighting"UNHCR। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০১৫ 
  9. "Мы полагаем, что мы в полной мере доказали состав преступления - Пресс-центр - Интерфакс"। ২০১১-০৫-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৪-০২ 
  10. "Список погибших жителей Южной Осетии"। ৫ সেপ্টেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০১৫ 
  11. Илларионов Андрей। "Эхо Москвы :: Разворот Ситуация в Южной Осетии и Грузии: Андрей Илларионов"Эхо Москвы। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০১৫ 
  12. "How To Screw Up A War Story: The New York Times At Work – By Mark Ames – The eXiled"। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০১৫ 
  13. "Life and tempo of a maestro"The Sydney Morning Herald। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০০৬। 
  14. "South Ossetians enjoy requiem concert in shattered capital"The Guardian। আগস্ট ২১, ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০২১