সেঞ্চুরিয়ান প্রযুক্তি ও ব্যবস্থাপনা বিশ্ববিদ্যালয়

সেঞ্চুরিয়ান প্রযুক্তি ও ব্যবস্থাপনা বিশ্ববিদ্যালয় (ইংরেজি: Centurion University of Technology and Management) ভারতের ওড়িশা রাজ্যের একটি বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়।[৩] এই বিশ্ববিদ্যালয়টি ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এটির প্রধান ক্যাম্পাস গজপতি জেলার পারলাখেমুন্দিতে এবং আরেকটি ক্যাম্পাস ভুবনেশ্বরের যতনীতে অবস্থিত। বিশ্ববিদ্যালয়টি ন্যাক দ্বারা 'এ' গ্রেডের হিসেবে মূল্যায়িত হয়েছে।

সেঞ্চুরিয়ান প্রযুক্তি ও ব্যবস্থাপনা বিশ্ববিদ্যালয়
সেঞ্চুরিয়ান প্রযুক্তি ও ব্যবস্থাপনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সীল
নীতিবাক্যজ্ঞানের মাধ্যমে সংযুক্তীকরণ
ধরনবেসরকারী
স্থাপিত২০১০[১]
আচার্যএস. সি. জামির [২]
উপাচার্যঅধ্যাপক হরিবন্ধু পাণ্ডা[২]
অবস্থান, ,
অধিভুক্তিইউজিসি এবং অল ইন্ডিয়া কাউন্সিল ফর টেকনিক্যাল এডুকেশন
ওয়েবসাইটwww.cutm.ac.in
মানচিত্র

ইতিহাস সম্পাদনা

পারলাখেমুন্দিতে অবস্থিত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ক্যাম্পাসটি আগে জগন্নাথ ইনস্টিটিউট ফর টেকনোলজি অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট (জেআইটিএম) নামে পরিচিত ছিল, যা ১৯৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। ইনস্টিটিউটটি ২০০৩ সাল পর্যন্ত বারহামপুর বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিজু পট্টনায়েক প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রাউরকেলা-এর সাথে সম্পৃক্ত ছিল। ২০০৫ সালে ডঃ মুক্তি কান্ত মিশ্র এবং অধ্যাপক ডিএন রাওয়ের নেতৃত্বে একদল একাডেমিক ইনস্টিটিউটের দায়িত্ব নেয়।[৪] ২০০৮ সালে, ভুবনেশ্বরে সেঞ্চুরিয়ন ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি নামে একটি দ্বিতীয় ক্যাম্পাস খোলা হয়। এরপর, ২০১০ সালের আগস্টে ওডিশা আইন পরিষদের একটি আইনের মাধ্যমে ইনস্টিটিউটটিকে সেঞ্চুরিয়ান প্রযুক্তি ও ব্যবস্থাপনা বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে রূপান্তরিত করা হয়।[৫]

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. "বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়সমূহ"ইউজিসি। ইউজিসি। ১৫ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ এপ্রিল ২০১৫ 
  2. "গভর্ণিং বোর্ড"। সেঞ্চুরিয়ন ইউনিভার্সিটি। ১ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ এপ্রিল ২০১৫ 
  3. "বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর পরিদর্শনের রিপোর্ট - সেঞ্চুরিয়ন ইউনিভার্সিটি" (পিডিএফ)ইউজিসি। ইউজিসি। ১ জুলাই ২০১৪ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ এপ্রিল ২০১৫ 
  4. "About the University"cutm.ac.in (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-২৩ 
  5. "Orissa Act 4 of 2010" (পিডিএফ)Law Odisha। ২৭ আগস্ট ২০১০। ২৮ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মে ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ সম্পাদনা