সর্বেশ্বরবাদ

একটি ধর্মীয় মতবাদ

সর্বেশ্বরবাদ (ইংরেজি: Pantheism) হল এমন একটি বিশ্বাস যাতে সম্পূর্ণ এ মহাবিশ্বকে তথা পরিবেশ প্রকৃতিকে ঈশ্বর-সম ব'লে গণ্য করা হয় , অথবা আমাদের আশেপাশে পরিবেষ্টিত সকল বস্তুর ভেতরেই ঈশ্বর অন্তর্নিহিত রয়েছেন ব'লে মনে করা হয়।[১][২] সর্বেশ্বরবাদীরা তাই কোন পৃথক স্বতন্ত্র ব্যক্তি ঈশ্বরে বিশ্বাস করে না।[৩] সর্বেশ্বরবাদী ধারণাগুলো হাজার হাজার বছর আগের, এবং বিভিন্ন ধর্মীয় সংস্কৃতিতে সর্বৈববাদী ধারণাগুলোর চিহ্ন রয়েছে। ১৬৯৭ সালে গণিতবিদ জোসেফ র্যাফসন দ্বারা প্যানথেইজম (সর্বেশ্বরবাদ) শব্দটি তৈরি করা হয়েছিল[৪][৫] এবং এরপর থেকে এটি বিভিন্ন ব্যক্তি ও সম্প্রদায়ের বিশ্বাস বর্ণনা করতে ব্যবহৃত হয়েছে।

দক্ষিণপূর্ব এশীয় ধর্মে (উল্লেখ্যভাবে হিন্দুধর্ম (অদ্বৈতবাদী দর্শন),[৬][৭] শিখধর্ম, শিন্তৌ ধর্ম, সানামাহিজম, কনফুসিয়ানিজম, এবং তাওবাদ ) এবং ইসলামের[৮][৯][১০] মধ্যে তাসাউউফ (সুফিবাদ)-এ সর্বৈশ্বরবাদের উপস্থিতি রয়েছে। ১৭ শতকের দার্শনিক বারুচ স্পিনোজার কাজের উপর ভিত্তি করে, বিশেষ করে, তার বই এথিক্সের উপর ভিত্তি করে একটি ধর্মতত্ত্ব এবং দর্শন হিসাবে পশ্চিমা সংস্কৃতিতে সর্বেশ্বরবাদ জনপ্রিয় হয়েছিল।[১১] ১৬ শতকে দার্শনিক এবং মহাজাগতিক জর্দানো ব্রুনো একটি সর্বৈশ্বরবাদী ধারণা গ্রহণ করেছিলেন।[১২]

সংগাসম্পাদনা

সর্বেশ্বরবাদকে বিভিন্নভাবে সংজ্ঞায়ীত করা হয়। কেউ কেউ একে ঈশ্বর সম্পর্কিত একটি ধর্মতাত্ত্বিক এবং দার্শনিক অবস্থান বলে মনে করেন।[১৩]:পৃ:৮

সর্বেশ্বরবাদের ধারণাটি এমন যে, সমস্তকিছুই ঈশ্বরের অংশ যিনি সর্বত্র ব্যাপ্ত এবং অবিকৃত রূপে রয়েছেন। বাস্তবতার সমস্ত রূপকে তখন হয় সেই সত্তার মোড বা এটির সাথে অভিন্ন হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে।[১৪] কেউ কেউ মনে করেন সর্বেশ্বরবাদ একটি অ-ধর্মীয় দার্শনিক অবস্থান। তাদের কাছে, সর্বৈশ্বরবাদের ধারণাটি হল মহাবিশ্ব (সমস্ত অস্তিত্বের সামগ্রিক অর্থে) এবং ঈশ্বর অভিন্ন।[১৫]

বিভিন্ন ধর্মে সর্বেশ্বরবাদের ধারণাসম্পাদনা

১৮ শতকের আগেও পূর্ব-দক্ষিণ এশীয় ধর্মে সর্বেশ্বরবাদের মতো ধারণা বিদ্যমান ছিল (উল্লেখ্যভাবে শিখ ধর্ম, হিন্দুধর্ম, কনফুসিয়ানিজম এবং তাওবাদ)। যদিও এসব ধারণা স্পিনোজার কাজকে প্রভাবিত করেছিল এমন কোনও প্রমাণ নেই, তবে অন্যান্য সমসাময়িক দার্শনিক যেমন, লাইবনিৎস এবং পরবর্তীতে ভলতেয়ারের ক্ষেত্রে এমন প্রমাণ রয়েছে।[১৬][১৭] হিন্দুধর্মের ক্ষেত্রে, বহুঈশ্বরবাদী, একেশ্বরবাদী এবং নাস্তিকতার পাশাপাশি সর্বৈশ্বরবাদী দৃষ্টিভঙ্গি বিদ্যমান।[১৮][১৯][২০] শিখ ধর্মের ক্ষেত্রে, গুরু নানকের গল্পগুলো থেকে বোঝা যায় ভৌত জগতে সর্বত্র ভগবান আছেন বলে তিনি বিশ্বাস করতেন। এবং শিখ ঐতিহ্য সাধারণত ভগবানকে ভৌত জগতের মধ্যে সংরক্ষণকারী শক্তি হিসাবে বর্ণনা করে। সমস্ত বাহ্যিক কাঠামো, ঈশ্বরের প্রকাশ হিসাবে সৃষ্ট। যাইহোক, শিখরা ঈশ্বরকে অতীন্দ্রিয় স্রষ্টা হিসাবে দেখেন,[২১] "বিশ্বের অভূতপূর্ব বাস্তবতায় একইভাবে অবিশ্বাস্য যেভাবে একজন শিল্পীকে তার শিল্পে উপস্থিত বলা যেতে পারে"। [২২] এটি আরও সর্বস্তরের অবস্থানকে বোঝায়।

পাদটীকাসম্পাদনা

  1. Encyclopedia of Philosophy ed. Paul Edwards। New York: Macmillan and Free Press। ১৯৬৭। পৃষ্ঠা 34। 
  2. Reid-Bowen, Paul (এপ্রিল ১৫, ২০১৬)। Goddess as Nature: Towards a Philosophical ThealogyTaylor & Francis। পৃষ্ঠা 70। আইএসবিএন 9781317126348 
  3. A Companion to Philosophy of Religion edited by Charles Taliaferro, Paul Draper, Philip L. Quinn, p.340 "They deny that God is "totally other" than the world or ontologically distinct from it."
  4. Taylor, Bron (২০০৮)। Encyclopedia of Religion and Nature। A&C Black। পৃষ্ঠা 1341–1342। আইএসবিএন 978-1441122780। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০১৭ 
  5. Ann Thomson; Bodies of Thought: Science, Religion, and the Soul in the Early Enlightenment, 2008, page 54.
  6. Norman Geisler, William D. Watkins। Worlds Apart: A Handbook on World Views; Second Edition। Wipf and Stock Publishers। পৃষ্ঠা 79। 
  7. "Hindu Literature: Or the Ancient Books of India", P.115, by Elizabeth A. Reed
  8. Harrison, Paul। "The origins of Christian pantheism"Pantheist history। World Pantheists Movement। সংগ্রহের তারিখ ২০ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  9. Fox, Michael W.। "Christianity and Pantheism"। Universal Pantheist Society। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  10. Zaleha, Bernard। "Recovering Christian Pantheism as the Lost Gospel of Creation"। Fund for Christian Ecology, Inc.। ১৭ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  11. Lloyd, Genevieve (২ অক্টোবর ১৯৯৬)। Routledge Philosophy GuideBook to Spinoza and The Ethics। Routledge Philosophy Guidebooks (1st সংস্করণ)। Routledge। পৃষ্ঠা 24। আইএসবিএন 978-0-415-10782-2 
  12. Birx, Jams H. (১১ নভেম্বর ১৯৯৭)। "Giordano Bruno"। The Harbinger। ২৭ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯Bruno was burned to death at the stake for his pantheistic stance and cosmic perspective. 
  13. Picton, James Allanson (১৯০৫)। Pantheism: its story and significance। Archibald Constable & CO LTD.। আইএসবিএন 978-1419140082 
  14. Owen, H. P. Concepts of Deity. London: Macmillan, 1971, p. 65.
  15. The New Oxford Dictionary Of English। Clarendon Press। ১৯৯৮। পৃষ্ঠা 1341আইএসবিএন 978-0-19-861263-6 
  16. Mungello, David E (১৯৭১)। "Leibniz's Interpretation of Neo-Confucianism": 3–22। জেস্টোর 1397760ডিওআই:10.2307/1397760 
  17. Lan, Feng (2005). Ezra Pound and Confucianism: remaking humanism in the face of modernity. University of Toronto Press. p. 190. আইএসবিএন ৯৭৮-০-৮০২০-৮৯৪১-০.
  18. Fowler 1997
  19. Fowler 2002
  20. Long 2011
  21. Singh, Nikky-Guninder Kaur (১৯৯২)। "The Myth of the Founder: The Janamsākhīs and Sikh Tradition": 329–343। ডিওআই:10.1086/463291 
  22. Ahluwalia, Jasbir Singh (মার্চ ১৯৭৪)। "Anti-Feudal Dialectic of Sikhism": 22–26। জেস্টোর 3516312ডিওআই:10.2307/3516312 

আরও পড়ুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা