সরোজ নলিনী দত্ত

বাঙালি লেখিকা

সরোজ নলিনী দত্ত (৯ অক্টোবর ১৮৮৭ - ১৯ জানুয়ারী ১৯২৫) একজন ভারতীয় নারীবাদী এবং সমাজ সংস্কারক ছিলেন। তাঁর পিতার নাম ব্রজেন্দ্রনাথ। তিনি ব্যান্ডেল, বঙ্গ প্রদেশের হুগলির কাছে বান্দেল শহরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।তিনি ছিলেন বাংলায় নারীদের উন্নয়নের আন্দোলনের একজন সংস্কারক ও পথিকৃৎ। ১৯০৫ সালে তিনি বিবাহ করেন। তিনি যাকে বিবাহ করেন তার নাম হলো গুরুসদয় দত্ত। তাদের একটি সন্তান হয়। তাদের একমাত্র সন্তানের নাম। বীরেন্দ্রসদয় দত্ত যিনি ১৯০৯ সালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি পাবনা জেলায় প্রথম মহিলা সমিতি শুরু করেন। এরপর পরপর তিনি বীরভূম (১৯১৬), সুলতানপুর (১৯১৭) এবং রামপুরহাট (১৯১৮) জেলা মহিলা সমিতি শুরু করেন।

সরোজ নলিনী দত্ত

এমবিই
সরোজ নলিনী দত্ত
জন্ম(১৮৮৭-১০-০৯)৯ অক্টোবর ১৮৮৭
মৃত্যু১৯ জানুয়ারি ১৯২৫(1925-01-19) (বয়স ৩৭)[১]
জাতীয়তাব্রিটিশ ভারতীয়
পেশাসমাজ কর্মী, নারীবিদ
দাম্পত্য সঙ্গীগুরুসদয় দত্ত
সন্তানক্যাপ্টেন বীরেন্দ্রসদয় দত্ত
পিতা-মাতাব্রজেন্দ্রনাথ দে
নগেন্দ্র নন্দিনী দে

তিনি সিলেট জেলায় মহিলা শিক্ষার প্রচারের জন্য প্রতিষ্ঠিত সমিতি সিলেট ইউনিয়নের সহ-সভাপতি ছিলেন। তিনি মহিলা শ্রমিকদের কলকাতা লিগের ভারতীয় বিভাগের সেক্রেটারি ছিলেন। তিনি ১৯১৮ সালে অর্ডার অব দ্য ব্রিটিশ এম্পায়ার পুরস্কার পান। তিনি ১৯ জানুয়ারি ১৯২৫ সালে মারা যান।

পটভূমি সম্পাদনা

তিনি তাঁর পিতা ব্রজেন্দ্রনাথ ব্যান্ডেল, বঙ্গ প্রদেশের হুগলির কাছে বান্দেল শহরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি তার ভাই-বোনদের সাথে লালিত-পালিত হয়েছিলেন। তিনি তার ভাইবোনদের সাথে একজন গৃহশিক্ষক ও প্রশাসনের অধীনে একটি শিক্ষা ভাগ করে নেন। তাঁর পৈতৃক পরিবারের যেসকল সদস্য ছিলেন তারা প্রায়শই কলকাতার ভবানীপুরে ব্রাহ্ম সম্মিলন সমাজ দেখতে আসতেন

১৯০৫ সালে তিনি গুরুসদয় দত্তকে বিয়ে করেন। বিয়ে করার পর ১৯০৯ সালে তাদের একটি সন্তান হয়। যার নাম বীরেন্দ্রসদয় দত্ত যিনি ১৯০৯ সালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

কাজ সম্পাদনা

তিনি ছিলেন বাংলায় নারীদের উন্নয়নের আন্দোলনের একজন সংস্কারক ও পথিকৃৎ। তিনি বাংলায় মহিলা সমিতি (মহিলা ইনস্টিটিউট) গঠনের পথিকৃৎ করেছিলেন। তিনি পূর্বাহ্নশীন মহিলাদের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সহযোগিতার বিকাশে ১৯৩১ সালে পাবনা জেলায় প্রথম মহিলা সমিতি শুরু করেন। পরবর্তীকালে তিনি যথাক্রমে বীরভূম (১৯১৬), সুলতানপুর (১৯১৭) এবং রামপুরহাট (১৯১৮) জেলা মহিলা সমিতি শুরু করেন।

তিনি মহিলা শ্রমিকদের কলকাতা লিগের ভারতীয় বিভাগের সেক্রেটারি ছিলেন (পরবর্তীকালে বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি কাউন্সিল অফ উইমেন), নারী শিক্ষা কমিটির কাউন্সিলের সদস্য (মহিলা শিক্ষামূলক লীগ) এবং কলকাতা পৌর কর্পোরেশনের কমিটির সদস্য ছিলেন যা মহিলাদের কাউন্সিলর নির্বাচনের অনুমতি দেওয়ার জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা করা। তিনি সিলেট জেলায় মহিলা শিক্ষার প্রচারের জন্য প্রতিষ্ঠিত সমিতি সিলেট ইউনিয়নের সহ-সভাপতি ছিলেন।

পুরস্কার সম্পাদনা

উত্তরাধিকার সম্পাদনা

প্রতিষ্ঠানের নাম অনুসারে:

  • সরোজ নলিনী দত্ত স্মৃতি সমিতি (১৯২৫) [২]
  • সুরির একটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, এর প্রতিষ্ঠাতা স্যার রিভার্স থমসনের নামে পূর্বে নামকরণ করা হয়েছিল, যা তিনি পুনর্গঠনে সহায়তা করেছিলেন, এখন নামকরণ করা হয়েছে তার নামে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. Sengupta, Subhodh Chandra; Basu, Anjali, সম্পাদকগণ (জানুয়ারি ২০০২)। "সরোজনলিনী দত্ত" [Saroj Nalini Dutt]। Samsad Bangali Charitabhidhan (Bibliographical Dictionary) (Bengali ভাষায়)। Volume 1 (4th সংস্করণ)। Kolkata: Shishu Sahitya Samsad। পৃষ্ঠা 565। আইএসবিএন 81-85626-65-0 
  2. "Saroj Nalini Dutt Memorial Association"। ২২ মে ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০২০