সম্মতির বয়স

যে বয়সে একজন ব্যক্তি আইনত যৌন ক্রিয়াকলাপে সম্মতি দিতে সক্ষম বলে বিবেচিত হয়

সম্মতির বয়স (ইংরেজি: Age of consent) হল সেই বয়স যা কোনও ব্যক্তিকে যৌনকর্মের সাথে সম্মতি জানাতে আইনত সক্ষম বলে বিবেচিত করে। ফলস্বরূপ, একজন প্রাপ্ত বয়স্ক যদি সম্মতি বয়সের চেয়ে কম বয়সী কোনও ব্যক্তির সাথে যৌন ক্রিয়াকলাপে জড়িত হন, তবে তা আইনগতভাবে অবৈধ হবে এবং এই জাতীয় যৌন ক্রিয়াকলাপ আইনত শিশুর প্রতি যৌন নির্যাতন বা ধর্ষণ হিসাবে বিবেচনা করা হবে। সম্মতি আইনের বয়স ভিন্ন ভিন্ন দেশ ও অঞ্চলের আইনানুসারে পৃথক, যদিও বেশিরভাগ এখতিয়ারগুলিতে ১৪ থেকে ১৮ এর মধ্যে সম্মতির বয়স নির্ধারিত।[১] নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ এর ফৌজদারি কার্যবিধি অনুসারে বাংলাদেশে মেয়েদের ক্ষেত্রে ১৬ বছর বয়সকে সম্মতির বয়স হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছে।[২] সম্মতির বয়স এই জাতীয় আইনে যৌন ক্রিয়ার ধরন, অংশগ্রহণকারীদের লিঙ্গ বা অন্যান্য বিবেচনার দ্বারাও পৃথক হতে পারে। নানাবিধ কারণে সম্মতির আইন বরাবরই বিভ্রান্তিমূলক এবং বিতর্কিত।

Map of the world's countries, with countries colored by age of consent
বিভিন্ন দেশে বিপরীতকামি যৌনতার জন্য সম্মতির বয়স। অস্ট্রেলিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রের মতো মৈত্রীতান্ত্রিক রাষ্ট্রে সম্মতির বয়স বিভিন্ন ফেডারেটিভ ইউনিটে পরিবর্তিত হয়। কানাডা , ব্রাজিল , ভারত এবং রাশিয়ার মতো মৈত্রীতান্ত্রিক রাষ্ট্রে সমস্ত ফেডারেটিভ ইউনিট একই সম্মতির বয়স গ্রহণ করে।
  ১৩   ১৪   ১৫   ১৬   ১৭   ১৮   বিবাহিত হতে হবে   বিভিন্ন রাজ্য বা প্রশাসনিক অঞ্চলে পরিবর্তিত হয় / অস্পষ্ট

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. Matthew Waites (২০০৫)। The Age of Consent: Young People, Sexuality and Citizenship 
  2. "নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০"। ২৯ আগস্ট ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানুয়ারি ২০২৩