শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনী চিকিৎসা শাখা

শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনীর বিশেষজ্ঞ দল

শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনী চিকিৎসা শাখা (মূল নামঃ শ্রীলঙ্কা আর্মি মেডিক্যাল কোর, এসএলএএমসি) হচ্ছে শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনীর চিকিৎসা সেবা শাখা। ১৮৮১ সালে ব্রিটিশরা এটি তৈরি করে দিয়ে যায়, তখন এটির নাম ছিলো সিলন মেডিক্যাল কোর।

শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনী মেডিক্যাল কোর
শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনীর চিকিৎসা শাখার লোগো.png
সক্রিয়১৮৮১ - বর্তমান
দেশ শ্রীলঙ্কা
শাখা শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনী
ধরনসামরিক বাহিনীর চিকিৎসা শাখা
ভূমিকাসামরিক চিকিৎসা সেবা
আকার৬টি ইউনিট
অংশীদারসামরিক হাসপাতাল
রেজিমেন্ট কেন্দ্রবীরহেরা বরালাসগামুয়া
ডাকনামএসএলএমসি
যুদ্ধসমূহপ্রথম বিশ্বযুদ্ধ
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ
শ্রীলঙ্কার গৃহযুদ্ধ
কমান্ডার
কেন্দ্র অধিনায়কব্রিগেডিয়ার ডাক্তার ডব্লিউ এম সেনরত্ন
কর্নেল কমান্ড্যান্টমেজর জেনারেল ডাক্তার এইচ এস মনসিংহ
উল্লেখযোগ্য
কমান্ডার
মেজর জেনারেল ডাক্তার চেল্লিয়াহ দুরাইরাজা

ইতিহাসসম্পাদনা

কোরের সূচনা ২৯ জুলাই ১৮৮১ সালে ফিরে আসে যখন স্ট্রেচার বিটার সংস্থাটি প্রথমদিকে সিলন লাইট ইনফ্যান্ট্রি স্বেচ্ছাসেবীদের অংশ হিসেবে তৈরি হয়, এটি শীঘ্রই সিলোন স্বেচ্ছাসেবীর মেডিকেল কোর হয়ে ওঠে পরবর্তীকালে সিলন প্রতিরক্ষা বাহিনীর অংশ হয়ে যায়, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এর সদস্যদেরকে মোতায়েন করা হয়।

স্বাধীনতার পরে সিলন প্রতিরক্ষা বাহিনীটি ভেঙে ফেলার সাথে সাথে, সিলন স্বেচ্ছাসেবক মেডিকেল কোর লেফটেন্যান্ট কর্নেল সিডনি জয়াবর্ধনে প্রথম কমান্ডিং অফিসার হিসেবে সিলন আর্মি স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীর একটি অংশে পরিণত হন। কিন্তু ১৯৫০ সালের অক্টোবরে সিলন আর্মির নিয়মিত বাহিনীতে সিলন আর্মি মেডিকেল কোর তৈরি করা হয়েছিল। এর শুরুতে এটির ৩ জন কর্মকর্তা ছিল এবং যুদ্ধের সময় সিভিএমসি থেকে আরও ২০টি পদ ছিলো। লেঃ কর্নেল এইচ সি সিরাসিংহে, ওবিই নিয়মিত মেডিকেল কোরের প্রথম কমান্ডিং অফিসার ছিলেন। সে বছর রয়্যাল আর্মি মেডিকেল কোরের প্রাক্তন ব্রিটিশ সামরিক হাসপাতালে একটি ১০ শয্যাবিশিষ্ট শিবিরের অভ্যর্থনা কেন্দ্রটি চালু করা হয়েছিল, শীঘ্রই এটি একটি ৩০ শয্যাবিশিষ্ট পরিষেবা হাসপাতালে উন্নীত করা হয়েছিল। ১৯৭২ সালে শ্রীলঙ্কা প্রজাতন্ত্র হয়ে উঠলে এই কোরটির পুনরায় নামকরণ করা হয় শ্রীলঙ্কা আর্মি মেডিকেল কোর হিসেবে।

স্বাধীনতা পরবর্তী ইতিহাসে কোর বিভিন্ন পরিস্থিতিতে সেবা দিয়েছিলো; প্রাকৃতিক দূর্যোগের সময় এটি সিভিল মেডিকেল পরিষেবাগুলিতে সহায়তা করেছিলো এবং বেসামরিক চিকিৎসকরা এবং নার্সরা অনশনে গেলে জাতীয় ও প্রাদেশিক হাসপাতালের কার্যক্রম পরিচালিত করেছিলো। একাত্তরের বিদ্রোহ এবং শ্রীলঙ্কার গৃহযুদ্ধ চলাকালীন সেনাবাহিনীর সদস্যরা আক্রমণে নেমে এলে মেডিক্যাল কোরের সদস্যরা আহত হওয়া সৈনিকদেরকে চিকিৎসা সেবা দিয়েছিলো।

বহিঃসংযোগসম্পাদনা