প্রধান মেনু খুলুন

শেলি উইন্টার্স (ইংরেজি: Shelley Winters; জন্ম: শার্লি শ্রিফ্‌ট, ১৮ আগস্ট ১৯২০ - ১৪ জানুয়ারি ২০০৬) ছিলেন একজন মার্কিন অভিনেত্রী। তার কর্মজীবনের ব্যপ্তি প্রায় পাঁচ দশক। এই সময়ে তিনি অসংখ্য চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন এবং দুটি একাডেমি পুরস্কার, একটি এমি পুরস্কার ও একটি গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার অর্জন করেছেন।

শেলি উইন্টার্স
স্থানীয় নাম
Shelley Winters
জন্ম
শার্লি শ্রিফ্‌ট

(১৯২০-০৮-১৮)১৮ আগস্ট ১৯২০
মৃত্যু১৪ জানুয়ারি ২০০৬(2006-01-14) (বয়স ৮৫)
বেভারলি হিলস, ক্যালিফোর্নিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
জাতীয়তামার্কিন
পেশাঅভিনেত্রী
কার্যকাল১৯৪৩-২০০৬
দাম্পত্য সঙ্গীম্যাক পল মেয়ার
(বি. ১৯৪২; বিচ্ছেদ. ১৯৪৮)

ভিত্তোরিও গাসমান
(বি. ১৯৫২; বিচ্ছেদ. ১৯৫৪)

অ্যান্থনি ফ্রঁসোয়া
(বি. ১৯৫৭; বিচ্ছেদ. ১৯৬০)

গেরি ডিফোর্ড (বি. ২০০৬)
সন্তান

তিনি দ্য ডায়েরি অব আন ফ্রাংক (১৯৫৯) ও আ প্যাচ অব ব্লু (১৯৬৫) ছবিতে অভিনয় করে দুইবার শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে অস্কার জয় করেন এবং আ প্লেস ইন দ্য সান (১৯৫১) ও দ্য পসাইডন অ্যাডভেঞ্চার (১৯৭২) ছবিতে অভিনয় করে আরও দুটি অস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। তার অন্যান্য উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র হল আ ডাবল লাইফ (১৯৪৭), দ্য নাইট অব দ্য হান্টার (১৯৫৫), ললিটা (১৯৬২), আলফি (১৯৬৬) ও পিটস ড্রাগন (১৯৭৭)।

চলচ্চিত্রের পাশাপাশি তিনি টেলিভিশনেও অভিনয় করেছেন। তিনি সিটকম রোজিঅ্যান-এ দীর্ঘদিন কাজ করেন। এছাড়া তিনি তিনটি আত্মজীবনীমূলক বই রচনা করেছেন।

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

শেলি উইন্টার্স ১৯২০ সালের ১৮ই আগস্ট মিজুরির সেন্ট লুইসে জন্মগ্রহণ করেন। তার জন্মনাম শার্লি শ্রিফ্‌ট। তার পিতা ইয়োনাস শ্রিফ্‌ট ছিলেন পোশাক পরিকল্পনাকারী এবং মাতা রোজ (জন্মনাম: উইন্টার) ছিলেন সঙ্গীতশিল্পী।[১] তার পিতামাতা দুজনেই ইহুদি ছিলেন। তার পিতা অস্ট্রিয়া থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আসেন এবং তার মাতা সেন্ট লুইসে অস্ট্রীয় অভিবাসী পিতামাতা ঘরে জন্মগ্রহণ করেন।[২]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. হারমেৎজ, আলজিন (১৫ জানুয়ারি ২০০৬)। "Shelley Winters, Tough-Talking Oscar Winner in 'Anne Frank' and 'Patch of Blue', Dies"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  2. "Shelley Winters"জিউয়িশ উইমেন আর্কাইভ। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা