শূকরের মাংস

শূকর থেকে প্রাপ্ত মাংস

শূকরের মাংস যা পর্ক হিসেবে অধিক পরিচিত, মূলত শূকর (Sus scrofa domesticus) হতে প্রাপ্ত মাংসের রন্ধনসম্পর্কীত নাম। এটি বিশ্বব্যাপী সর্বজনীন পরিচিত মাংস,[১] যা ৫০০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে শূকর পালনের প্রমাণ সাপেক্ষে প্রতিষ্ঠিত। পর্ক, তাজা রান্না করে অথবা সংরক্ষিত করার মাধ্যমে পুনশ্চ রান্না করে খাওয়া হয়।

শূকরের মাংস, মাংসপেশী ও সলম
কম পরিমাণে সেদ্ধ করা মাংস

এছাড়াও শূকরের মাংস ইউরোপ জুড়ে তাদের প্রোটিন বা আমিষ সরবরাহের অন্যতম একটা মাধ্যম। এক হিসেবে দেখা গেছে যে, একমাত্র ফ্রান্সেই প্রায় বিয়াল্লিশ হাজারেরও বেশী শূকরের খামার রয়েছে। ইংল্যন্ডরও আনাচে কানাচে রয়েছে শূকরের খামার। বাণিজ্যিকভাবে এইসব খামারগুলো পুরো ইংল্যন্ড জুড়েই শূকরের মাংস সরবরাহ করে আসছে।

বাংলাদেশেও গোপনে শূকরের চর্বি হাড় ও মাংস আমদানি করা। আগস্ট ২০১৯ এ র‌্যাবের অভিযানে কেবিসি এগ্রো কারখানা থেকে ১১ কোটি টাকা মূল্যের তিন হাজার টন আমদানি-নিষিদ্ধ শূকরের মাংস, হাড় ও চর্বি জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় কারখানা কর্তৃপক্ষকে ৭৫ লাখ টাকা জরিমানা ও কারখানা সিলগালা করে দিয়েছেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। সূত্রঃ সময়কাল

শুয়োরের মাংসজাত খাবারের গ্যালারিসম্পাদনা

  1. "Sources of Meat"Food and Agriculture Organization (FAO)। ২৫ নভেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৬ 

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা