লিপোপ্রোটিন

মানবদেহে স্নেহ পদার্থ বহনকারী রাসায়নিক পদার্থ

লিপোপ্রোটিন হল একটি জৈব রাসায়নিক স্নেহ পদার্থ। এর প্রাথমিক কাজ হলো হাইড্রোফোবিক লিপিডকে (ফ্যাট হিসাবে পরিচিত) প্লাজমার মধ্য দিয়ে পরিবহন করা। লিপোপ্রোটিনের গঠন কাঠামোর কেন্দ্রে রয়েছে ট্রাইগ্লিসারাইড এবং কোলেস্টেরল। কেন্দ্রের চারপাশে একটি ফসফোলিপিড শেল রয়েছে। হাইড্রোফিলিক অণুগুলো বাইরের দিকে চারপাশে এবং হাইড্রোফোবিক অণুগুলো লিপোপ্রোটিনের কেন্দ্রের দিকে অনুবিদ্ধ থাকে। উভয় অংশই লিপোপ্রোটিনের জটিল কাঠামোকে স্থিতিশীল করে এবং এটিকে একটি কার্যকরী পরিচয় দান করে।

কাইলোমাইক্রন এর গঠন।
ApoA, ApoB, ApoC, ApoE হলো অ্যাপোপ্রোটিন ; সবুজ কণা হল ফসফোলিপিড ; টি হল ট্রায়াসাইলগ্লিসারল ; সি হল কোলেস্টেরল এস্টার ।

অনেক এনজাইম, ট্রান্সপোর্টার, স্ট্রাকচারাল প্রোটিন, অ্যান্টিজেন, অ্যাডসিন এবং প্রতিবিষ হল লিপোপ্রোটিন। উদাহরণের মধ্যে রয়েছে প্লাজমা লিপোপ্রোটিন কণা ( এইচডিএল, এলডিএল, আইডিএল, ভিএলডিএল এবং কাইলোমাইক্রন )। এই প্লাজমা কণাগুলোর সাবগ্রুপগুলো এথেরোস্ক্লেরোসিসের প্রাথমিক ড্রাইভার বা মডিউলেটর। [১]

কাঠামোসম্পাদনা

লিপোপ্রোটিনগুলো এমন জটিল কণা যার মধ্যে নন-পোলার লিপিডগুলোর মূল হাইড্রোফোবিক কোর থাকে। কোরে প্রাথমিকভাবে কোলেস্টেরেল এস্টার এবং ট্রাইগ্লিসারাইড থাকে। এই হাইড্রোফোবিক কোর ফসফোলিপিডস, ফ্রি কোলেস্টেরল এবং অ্যাপোলিপোপ্রোটিন সমন্বিত একটি হাইড্রোফিলিক ঝিল্লি দ্বারা বেষ্টিত। প্লাজমা লিপোপ্রোটিনগুলোর আকার, লিপিড কম্পোজিশন এবং অ্যাপোলিপোপ্রোটিনের উপর ভিত্তি করে সাত শ্রেণিতে বিভক্ত হয়।[২]

কাজসম্পাদনা

শ্রেণিবিন্যাসসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Gofman JW, Jones HB, Lindgren FT, Lyon TP, Elliott HA, Strisower B (আগস্ট ১৯৫০)। "Blood lipids and human atherosclerosis": 161–78। ডিওআই:10.1161/01.CIR.2.2.161 পিএমআইডি 15427204 
  2. Feingold, Kenneth R.; Grunfeld, Carl (২০০০), Feingold, Kenneth R.; Anawalt, Bradley; Boyce, Alison; Chrousos, George, সম্পাদকগণ, "Introduction to Lipids and Lipoproteins", Endotext, South Dartmouth (MA): MDText.com, Inc., পিএমআইডি 26247089, সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১২-১০ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা