লাভ স্টোরি ২০৫০

হিন্দি ভাষার চলচ্চিত্র

লাভ স্টোরি ২০৫০ হল ২০০৮ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত একটি ভারতীয় কল্পবিজ্ঞান-রোম্যান্স চলচ্চিত্র। এই ছবিতে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেন ছবির প্রযোজক পাম্মি বাওয়েজা ও পরিচালক হ্যারি বাওয়েজার পুত্র হরমন বাওয়েজাপ্রিয়াঙ্কা চোপড়া। ছবিটির কিছু অংশ চলচ্চিত্রায়িত হয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার অ্যাডেলেইডে। ২০০৮ ২ জুলাই লন্ডনে ছবিটির প্রিমিয়ার আয়োজিত হয়।[৪][৫][৬] ছবিটির সঙ্গে ১৯৯১ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত তেলুগু ছবি আদিত্য ৩৬৯-এর অনেক মিল পাওয়া যায়। তবে তেলুগু ছবিটিতে অতীত ভ্রমণের সঙ্গে সঙ্গে ডিসটোপিয়ান মহাপ্রলয়-উত্তর ভবিষ্যতে ভ্রমণও বর্ণিত হয়েছে; কিন্তু লাভ স্টোরি ২০৫০ ছবিটিতে শুধুমাত্র ২০৫০ সালের ইউটোপিয়ান ভবিষ্যৎ-শহর মুম্বইতে ভ্রমণই প্রদর্শিত হয়েছে। এটিই বলিউডের প্রথম ইউটোপিয়ান সময়ভ্রমণ-বিষয়ক চলচ্চিত্র[৭] তবে ২০০৮ সালের ৪ জুলাই মুক্তিপ্রাপ্ত এই ছবিটি বক্স অফিসে সাফল্য অর্জন করতে পারেনি।

লাভ স্টোরি ২০৫০
লাভ স্টোরি ২০৫০ পোস্টার.jpg
লাভ স্টোরি ২০৫০ ছবির পোস্টার
পরিচালকহ্যারি বাওয়েজা
প্রযোজকপাম্মি বাওয়েজা
রচয়িতাহ্যারি বাওয়েজা (চিত্রনাট্য)
ময়ূর পুরী (সংলাপ)
শ্রেষ্ঠাংশেপ্রিয়াঙ্কা চোপড়া
হরমন বাওয়েজা
বোমান ইরানি
অর্চনা পূরণ সিং
সুরকারঅনু মালিক
চিত্রগ্রাহককিরণ দেবহংস
সম্পাদকমারজিন ট্যাভারিয়া
পরিবেশকবাওয়েজা মুভিজ
মুক্তি
  • ৪ জুলাই ২০০৮ (2008-07-04)
[১]
দৈর্ঘ্য১৮০ মিনিট[২]
দেশভারত
ভাষাহিন্দি
নির্মাণব্যয়৪০ কোটি টাকা[৩]
আয়১৮.৫ কোটি টাকা [৩]

কাহিনি-সারাংশসম্পাদনা

করণ মালহোত্রা সাহসী ছেলে। ভবিষ্যৎ নিয়ে তার কোনও চিন্তা নেই। নিয়মকানুনের ধারও সে ধরে না। সানা ঠিক করণের বিপরীত। সে মিষ্টি লাজুক একটি মেয়ে, যে সব রকম নিয়মকানুন মেনে জীবন যাপন করে। তাদের স্বভাবের এই বৈপরীত্য সত্ত্বেও দু’জনে প্রেমে পড়ে এবং তার ফলে এক অন্য ধরনের প্রেমকাহিনির সূচনা ঘটে।[৮]

বিজ্ঞানী ড. যতিন্দর খান্না জীবনের পনেরো বছর ব্যয় করেছিলেন একটি সময়যান নির্মাণের কাজে। সানা সেই যন্ত্রে চড়ে ২০৫০ সালের মুম্বই শহরে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করে। কিন্তু করণের সঙ্গে বিয়ের আগেই একটি দুর্ঘটনায় তার মৃত্যু ঘটে। সানাকে খুঁজতে অতীতে যেতে চায় করণ। ড. যতিন্দর, করণ ও সানার ভাইবোন রাহুল ও থিয়া ভবিষ্যতের দিকে যাত্রা করে এবং ২০৫০ সালের মুম্বইতে উপস্থিত হয়। ভবিষ্যৎ মুম্বই শহরের উড়ন্ত গাড়ি, হলোগ্রাম, রোবট, ২০০ তলা বাড়ি ইত্যাদি দেখে তারা মুগ্ধ হয়ে যায়।

ভবিষ্যতের মুম্বইতে এসে তাঁদের সঙ্গে আলাপ হয় জিশার। সানাই পরজন্মে এই জিশা। ২০৫০ সালের মুম্বই শহরের জনপ্রিয় গায়িকা জিশার পূর্বজন্মের কথা কিছু মনে ছিল না। কিন্তু করণকে দেখার পর তার কিছু কিছু ঘটনা মনে পড়তে শুরু করে। জিশার চরিত্র সানার ঠিক বিপরীত। সে উদ্ধত, রগচটা ও বিদ্রোহী স্বভাবের মেয়ে এবং ভালোবাসায় তার বিশ্বাস নেই। বাবা-মায়ের মৃত্যুর পর সে একাকীত্বের জীবন যাপন করেছিল, যা তাকে আরও বিষণ্ণ করে তুলেছিল।

করণ ও অন্যেরা ড. হোশি নামে এক ডেমি-গডের হুমকির মুখে পড়ে। করণ জিশাকে প্রেম নিবেদন করলে রক্ষীরা তাকে জিশার কাছ থেকে সরিয়ে দেয়। জিশা প্রথমে করণের সময়ভ্রমণের কথা বিশ্বাস করেনি। কিন্তু সানার ডায়রি পড়ে শেষ পর্যন্ত তার পূর্বজন্মের কথা মনে পড়ে যায়। করণ যখন জিশার কাছে ফিরে আসে, তখন জিশা করণের প্রতি নিজের ভালোবাসার কথা জানিয়ে বলে যে, সে-ই সানা। সময়যানটি হাতানোর জন্য ড. হোশি করণকে বন্দী করার চেষ্টা করে। করণ ও জিশাকে ধরার একটা মরিয়া চেষ্টা করার সময় হোশি পারমাণবিক বর্জ্যে পরিপূর্ণ একটি ট্রাকে পড়ে গিয়ে মারা যায়। সময়যানে চড়ে জিশা ও তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে করণ ফিরে আসে ২০০৮ সালে। সবাই তাদের প্রিয় সানাকে আবার দেখতে পেয়ে খুশি হয় এবং করণ তাকে প্রেম নিবেদন করে।[৮][৯]

কলাকুশলীসম্পাদনা

প্রযোজনাসম্পাদনা

লাভ স্টোরি ২০৫০ ছবিতে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া অভিনীত চরিত্রটিতে অভিনয়ের জন্য প্রথমে করিনা কাপুর চুক্তিবদ্ধ হয়েছিলেন। কিন্তু তারিখ-সংক্রান্ত সমস্যার কারণে তিনি এই ছবি থেকে বাদ পড়েন।[১০]

চারটি আন্তর্জাতিক সংস্থার মাধ্যমে এই ছবির স্পেশাল এফেক্টস দৃশ্যগুলি পরিস্ফুট করা হয়। এগুলির মধ্যে দু’টি সংস্থা ওয়েটা ওয়ার্কশপ (নিউজিল্যান্ড) ও জন কক্স (অস্ট্রেলিয়া) তাদের আন্তর্জাতিক কাজগুলির জন্য অ্যাকাডেমি পুরস্কারও জয় করেছিল।[১১]

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া এই ছবিতে দ্বৈতভূমিকায় অভিনয় করেন।[১২] ভবিষ্যতের মেয়ের চরিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি চুলে লাল রং করেন। এই ধারণাটি হরমন বাওয়েজার বোন রোয়েনা বাওয়েজার একটি ছবি থেকে অনুপ্রাণিত।[১৩]

প্রতিক্রিয়াসম্পাদনা

রিডিফ.কম-এর রাজা সেন ছবিটিকে "অত্যন্ত হাস্যকর" বলে নেতিবাচক সমালোচনা করেন। তিনি হরমন বাওয়েজাকেও অদক্ষ অভিনেতা বলে উল্লেখ করেন।[১৪]

বক্স অফিসসম্পাদনা

লাভ স্টোরি ২০৫০ ছবিটি বক্স অফিসে সাফল্য অর্জনে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছিল। কল্পবিজ্ঞান চলচ্চিত্র হিসাবে প্রথম দিকে যথেষ্ট সাড়া জাগালেও এই ছবির বাণিজ্য আশানুরূপ হয়নি।[১৫][১৬][১৭]

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Forthcoming Movies"। MovieTalkies.com। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৪-০৯ 
  2. "Jaane Tu Ya Jaane Na – Love Story 2050" 
  3. "Love Story 2050 - Movie - Box Office India"boxofficeindia.com 
  4. "Love Story 2050 to release on 4 July"। BollywoodHungama। ২০০৭-০৪-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৪-২৬ 
  5. "'Love Story 2050′ - Priyanka Chopra to attend Music release"। IndianNewsLive। ২০০৮-০৪-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৪-২৭ 
  6. "Love Story 2050 Review : Love Story 2050 Movie Review" 
  7. Varughese, Shiju Sam (২০১৭), "Cities of Neoliberal Future: Urban Utopia in Indian Science Fiction Cinema", Kuldova, Tereza; Varghese, Mathew A., Urban Utopias: Excess and Expulsion in Neoliberal South Asia, New York: Palgrave Macmillan, পৃষ্ঠা 97–115, আইএসবিএন 978-3-319-47622-3 
  8. "'Love Story 2050 Preview'"। Indiafm। ২০০৮-০৬-১১। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৬-১৬ 
  9. "'Love Story 2050 Synopsis'"। Lovestory2050.com। ২০০৮। ২০০৮-০৭-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৬-১৬ 
  10. "Kareena and Baweja part ways…"। BollywoodHungama। ২০০৬-০২-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৪-০৯ 
  11. "Oscar winners for Harman's debut film"। BollywoodHungama। ২০০৭-০৭-০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৪-০৯ 
  12. "Priyanka Chopra's double role in Love Story 2050"। BollywoodHungama। ২০০৭-০১-২৫। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৪-০৯ 
  13. "Painting inspired Priyanka's new look"। Indiaglitz। ২০০৮-০৫-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৫-১৭ 
  14. "Review: Love Story 2050" 
  15. "Box Office: Not a Krrish, LS 2050 draws poor advance, JTJN better; TPTM sinks" 
  16. "Box Office Update :B.O. Update: 'Jaane Tu' takes a flying start, 'Love Story 2050' dull" 
  17. "Jaane Tu... Ya Jaane Na clicks, Love Story 2050 slips- Entertainment-Media / Entertainment -News By Industry-News-The Economic Times"The Times of India। ২০০৮-০৭-০৫। 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা