রুদ্রপ্রয়াগ জেলা

উত্তরাখণ্ডের একটি জেলা

রুদ্রপ্রয়াগ জেলা উত্তর ভারতের উত্তরাখণ্ড রাজ্যের অন্যতম একটি জেলা। জেলাটির মোট আয়তন ২৪৩৯ বর্গ কিলোমিটার। রুদ্রপ্রয়াগ শহরে জেলার প্রশাসনিক সদর দপ্তর অবস্থিত।

রুদ্রপ্রয়াগ জেলা
উত্তরাখণ্ডের জেলা
অলকানন্দা নদী
অলকানন্দা নদী
উত্তরাখণ্ডে রুদ্রপ্রয়াগ জেলার অবস্থান
উত্তরাখণ্ডে রুদ্রপ্রয়াগ জেলার অবস্থান
দেশ ভারত
রাজ্য উত্তরাখণ্ড
বিভাগগাড়োয়াল
প্রতিষ্ঠিত১৬ সেপ্টেম্বর ১৯৯৭
সদর দপ্তররুদ্রপ্রয়াগ
আয়তন
 • মোট২,৪৩৯ বর্গকিমি (৯৪২ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট২,৪২,২৮৫
 • জনঘনত্ব৯৯/বর্গকিমি (২৬০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+০৫:৩০)
আইএসও ৩১৬৬ কোডIN-UT
ওয়েবসাইটhttp://rudraprayag.nic.in

জেলার উত্তরে উত্তরকাশী জেলা, পূর্বে চামোলি জেলা, দক্ষিণে পৌড়ী গাড়োয়াল জেলা এবং পশ্চিমে তেহরি গাড়োয়াল জেলা অবস্থিত।

ইতিহাসসম্পাদনা

রুদ্রপ্রয়াগ জেলা ১৬ সেপ্টেম্বর ১৯৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এ জেলা সংলগ্ন তিনটি জেলার নিম্নলিখিত অঞ্চলসমূহের সমন্বয়ে গঠিত হয়েছে:

এর উত্তরে আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত শ্রী কেদারনাথ মন্দিরটি, পূর্বে মদমেশ্বর, দক্ষিণ পূর্বে নাগ্রাসু এবং সর্ব দক্ষিণে শ্রীনগর রয়েছে। মান্দাকিনী নদী জেলার প্রধান নদী।

ভারতের ২০১১ সালের জনগণনা হিসাবে রুদ্রপ্রয়াগ জেলা উত্তরাখণ্ডের ১৩টি জেলার মধ্যে সবচেয়ে কম জনবহুল জেলা[১]

জনসংখ্যার উপাত্তসম্পাদনা

ঐতিহাসিক জনসংখ্যা
বছরজন.±%
১৯০১৭০,৫১০—    
১৯১১৭৮,৭৯০+১১.৭%
১৯২১৮০,৭০০+২.৪%
১৯৩১৮৮,৭৪৩+১০%
১৯৪১১,০০,৩০৫+১৩%
১৯৫১১,০৫,৮৪৮+৫.৫%
১৯৬১১,১৯,৯২১+১৩.৩%
১৯৭১১,৩৫,৬৫৪+১৩.১%
১৯৮১১,৬৯,৭৪৩+২৫.১%
১৯৯১২,০০,৫১৫+১৮.১%
২০০১২,২৭,৪৩৯+১৩.৪%
২০১১২,৪২,২৮৫+৬.৫%
ধর্মবিশ্বাস অনুযায়ী রুদ্রপ্রয়াগ জেলার জনসংখ্যা
ধর্ম অনুপাত
হিন্দু
  
৯৯.১৩%
মুসলমান
  
০.৬১%

ভারতের জনগণনা ২০১১ অনুসারে রুদ্রপ্রয়াগ জেলার মোট জনসংখ্যা ২,৪২,২৮৫ জন,[১] যা ভানুয়াতু জাতির মোট জনসংখ্যার প্রায় সমান।[২] এটি ভারতের ৬৪০টি জেলার মধ্যে ৫৮৫ তম জনবহুল জেলা। এ জেলার জনসংখ্যার ঘনত্ব প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৯৯ জন বা প্রতি বর্গ মাইলে ২৬০ জন লোক বসবাস করে। ২০০১ থেকে ২০১১ এর দশকে জেলার জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ছিল ৬.৫%। রুদ্রপ্রয়াগ জেলার লিঙ্গ অনুপাত প্রতি ১০০০ পুরুষের বিপরীতে ১১২০ জন মহিলা রয়েছে যা ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে দেশের ৬ষ্ঠ সর্বোচ্চ, দ্বিতীয়টিও উত্তরাখণ্ডের আলমোড়া এবং সাক্ষরতার হার ৮২.০৯%।[১]

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে এই জেলার প্রধান ভাষা গড়োয়ালী ভাষা, যে ভাষায় জেলার মোট জনসংখ্যার ৯৪.৫% কথা বলে। বিস্তৃতভাবে লিঙ্গুয়া ফ্র্যাঙ্কা হিসেবে ব্যবহৃত হিন্দি ৪.২% জনসংখ্যার প্রধান ভাষা এবং ০.৬০% নেপালি ভাষয় কথা বলে।[৩]

বিধানসভা কেন্দ্রগুলিসম্পাদনা

প্রসিদ্ধ মন্দিরসম্পাদনা

প্রসিদ্ধ মহানগর, নগর ও গ্রামসম্পাদনা

  • রুদ্রপ্রয়াগ
  • সুমেরপুর
  • কেদারনাথ
  • তুঙ্গনাথ
  • তারাগ - রুদ্রপ্রয়াগ সদর দপ্তর থেকে চোপটা পোখরি সড়ক হয়ে ২৩ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত। ঝিনকোয়ান এবং নেজি বন্ধু রাজপুতের অন্তর্ভুক্ত।
  • লওয়ারা গ্রাম - রুদ্রপ্রয়াগ সদর দপ্তর থেকে ৪৫-৪৬ কিলোমিটার এবং গুপ্তকাশী থেকে ৭ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত। মা চন্ডিকার মন্দিরটি গ্রামের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত। রাওয়ান গঙ্গা গ্রাম থেকে ১ কিলোমিটার দূরত্বে প্রবাহিত হয়।
  • আন্দরওয়ারি - গুপ্তকশীর কাছে, রুদ্রপ্রয়াগ সদর দপ্তর থেকে ৪৫ কিলোমিটার এবং গুপ্তকাশী থেকে ৫ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত।
  • বাওয়াই - রুদ্রপ্রয়াগ শহর থেকে মাইকোটি-দুর্গাধর হয়ে ২০ কিলোমিটার এবং তিলওয়াদা থেকে ১৮ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত।
  • উথিন্দ
  • পোলা
  • মাইকোটি
  • দরমোলা
  • থাটি, বার্মা - গান্দিয়াল দেবতা একটি মন্দির রয়েছে।
  • সান গ্রাম - রুদ্রপ্রয়াগ সদর দপ্তর থেকে ৭ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত।
  • বিরন দেওয়াল গ্রাম
  • বাস্তি গ্রাম - দুটি মন্দির রয়েছে, একটি দুর্গা দেবী এবং ভেরকেশ্বর মহাদেবের একটি
  • পনথী শিলগড় - পাউন্তি গ্রামটি ছয়টি ছোট্ট গ্রামের সমন্ময়ে গঠিত: টল্লি পাঁথি, মনজেদা, কাথড, চোনরালগাঁও, হিউনা এবং ভাটওয়ারী। এটি জেলা সদর থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার এবং জখলি তহসিল থেকে ৭ কিলোমিটার দুরত্বে অবস্থিত।
  • দরমৌয়ারি
  • বেঞ্জি গ্রাম
  • সিউন্ড গ্রাম
  • ত্রিযুগনারায়ণ গ্রাম
  • গুপ্তকাশী
  • কিরোড়া
  • গৌরিকুন্ড
  • দামার - মাদাকিনী নদীর তীরে অবস্থিত এবং এটি প্রাচীন শিব মন্দিরের জন্য পরিচিত।
  • জাগি কান্দাই গ্রাম
  • বেনজি কান্দাই দশজুলা গ্রাম
  • জারমওয়ার দশজুলা গ্রাম
  • ডাঙ্গি - রুদ্রপ্রয়াগ শহর থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরে
  • উখিমঠ - মাসুনা, রানসি, গৌন্দর, পাঁচকদার (মন্দির)
  • গৌরীকুন্ড গ্রাম
  • পালদোয়ারী গ্রাম
  • কিয়ার্ক গ্রাম
  • তিলওয়ারা গ্রাম
  • নাগরাসু
  • রাতুরা - রুদ্রপ্রয়াগ থেকে ৮ কিলোমিটার
  • কালনা ভিলেজ - মা ভগবতীর তিনটি সর্বাধিক জনপ্রিয় মন্দির রয়েছে (কুলমাটা), গুভেরেল দেবতা এবং নরসিং দেবতা এবং এছাড়াও মা চন্ডিকার কেন্দ্রস্থলে গ্রামের রয়েছে।
  • কোখণ্ডি গ্রাম
  • ফালাসি গ্রাম - রুদ্রপ্রয়াগ শহর থেকে ২০ কিলোমিটার
  • চন্ড গ্রাম - রুদ্রপ্রয়াগ শহর থেকে ২০ কিলোমিটার
  • ভাটওয়ারি গ্রাম
  • জখওয়াদী বাজার
  • জখোলি - ছিরবাটিয়া, ঘনসালি তেহরির তিলওয়াদার নিকটে অবস্থিত ব্লক সদর দপ্তর।
  • বাসুকেদার- কথিত আছে যে শিব কৈলাশ পর্বতে ভ্রমণকালে এখানে একটি রাত অবস্থান করেছিলেন।এখানে পাণ্ডব দ্বারা নির্মিত একটি শিব মন্দির রয়েছে।
  • কান্দি গ্রাম
  • আমকোটি শহর - তিলওয়াদা - ঘনসালি রোড, ৯   জাখোলি থেকে কিমি। নাগেলা দেবতার কুন্ড ও পটিয়াঙ্গনা মেলার সভা কেন্দ্র।
  • আমডালা- কোটেশ্বর মন্দির থেকে ৬ কিলোমিটার।
  • ধারিগঞ্জ

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "District Census 2011"। Census2011.co.in। ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০ 
  2. US Directorate of Intelligence। "Country Comparison:Population"। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১০-০১Vanuatu 224,564 July 2011 est. 
  3. (প্রতিবেদন)।  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)

বহি‌ঃসংযোগসম্পাদনা