যাত্রীবাহী মনুষ্যবিহীন আকাশযান

বিমান

যাত্রীবাহী মনুষ্যবিহীন আকাশযান (ড্রোন ট্যাক্সি, যাত্রীবাহী ড্রোন, উড়ন্ত ট্যাক্সি, বা পাইলটহীন হেলিকপ্টার হিসাবেও পরিচিত) হলো এক প্রকারের ব্যক্তিগত বিমান (পিএভি)। প্রথম যাত্রীবাহী ড্রোনটি চীনা উদ্যোক্তারা কনজিউমার ইলেক্ট্রনিক্স শো (সিইএস) ২০১৬ তে চালু করেছিলেন এবং এটি এহং ১৮৪ নামে পরিচিত।[১][২]

প্রথম বৈদ্যুতিক যাত্রী ড্রোন: এহং ১৮৪

সাধারণ বর্ণনা

সম্পাদনা

ইউএভি বা ড্রোনের ব্যবহার সাম্প্রতিক বছরগুলোতে জনপ্রিয় হয়েছে।[৩] একসময় প্রাথমিকভাবে শখবাদীদের দ্বারা বিনোদনের জন্য ড্রোন ব্যবহৃত হতো, ড্রোন এখন সামরিক অপারেশন এবং গবেষণা পরিচালনার জন্য ব্যবহার করা হয়। সম্প্রতি, বাণিজ্যিক কোম্পানিগুলো পণ্য পরিবহনের জন্য ড্রোন ব্যবহার করে অনুসন্ধান শুরু করেছে। ২০১১ সাল থেকে, বেশ কিছু বাণিজ্যিক ডেভেলপার এবং অপেশাদার নির্মাতারা পরীক্ষামূলক বৈদ্যুতিক মাল্টি-রোটার ক্রাফটের উপর স্বল্প মানব চালিত ফ্লাইট পরিচালনা করেছে।[৪] ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে চীনা উদ্যোক্তাদের দ্বারা মানব বহনে সক্ষম প্রথম বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদিত ড্রোন সিইএস-এ তে প্রদর্শন করা হয়েছিল।[৫]

ইতিহাস

সম্পাদনা

রেডিও নিয়ন্ত্রিত মডেলের বিমানগুলো ১৯৭০ সাল থেকে একটি জনপ্রিয় শখের বস্তু হিসেবে পরিণত হয়েছে। ড্রোন, বিশেষ করে বৈদ্যুতিক চালিত মাল্টি-রোটার ক্রাফট, গত দশ থেকে পনের বছরে শুধুমাত্র শখবাদীদের মধ্যে আর্শীবাদ হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে। ড্রোন তাদের অপারেশনে স্বায়ত্তশাসন পরিমাপের বাস্তবায়ন মডেল বিমান থেকে আলাদা। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে সামরিক বাহিনী এরিয়াল ড্রোন ব্যবহার করে আসছে। বিংশ শতাব্দীর শেষভাগে সামরিক ড্রোন সক্ষমতা দ্রুত প্রসারিত হয়। ইরাক ও আফগানিস্তানে প্রচারাভিযানের সময় সামরিক ড্রোনের ব্যবহার ব্যাপক আকারে বেড়েছে।

বিংশ শতাব্দী জুড়ে এবং সাম্প্রতিক কালে, ডিজাইনাররা ব্যক্তিগত ফ্লাইটের জন্য অনেক আমূল ধারণার প্রস্তাব করেছেন এবং উন্নত করেছেন। এর মধ্যে রয়েছে ১৯৬০-এর দশকে প্রবর্তিত ব্যক্তিগত জেটপ্যাক, ১৯৯০-এর দশকের শুরুর দিকের এরোমোবিল ফ্লাইং কার কনসেপ্ট, এবং ২০০৬ সালের টেরাফুজিয়া ফ্লাইং ভেহিকল কনসেপ্ট। যদিও এগুলো পাইলট দ্বারা পরিচালিত হয়, এবং এইভাবে প্রযুক্তিগতভাবে ড্রোন বিবেচনা করা হয় না, তবুও তারা আজ উন্নত উড়ন্ত যাত্রী ড্রোনের অনুপ্রেরণামূলক অগ্রদূত হিসেবে কাজ করে।[৬]

যাত্রীবাহী ড্রোনগুলোর ভবিষ্যত ব্যবহার

সম্পাদনা

যাত্রীবাহী ড্রোনের ভবিষ্যৎ এখনো অনিশ্চিত যেহেতু এই প্রযুক্তি নতুন। এরিয়াল ড্রোন প্রযুক্তি উদ্ভাবন, এরিয়াল ট্রাফিক সমন্বয়, নিয়ন্ত্রণ এবং সংঘর্ষ এড়ানোর ফলে বেসামরিক ভ্রমণের জন্য যাত্রী ড্রোন দ্রুত প্রসারিত হতে পারে। বেশ কয়েকটি কোম্পানি এয়ার ট্যাক্সি এবং এয়ার অ্যাম্বুলেন্স সেবার জন্য যাত্রী ড্রোন ব্যবহারের অনুসন্ধান করছে।[৭] যাত্রী ড্রোন ডেভেলপাররা গোলমাল, ছোট দরকারী লোড, স্বল্প সময়ের ফ্লাইট সময়, আকাশসীমা বিধিমালা, এবং নিরাপত্তা এবং সাধারণ উভয় অপারেশনের দুর্লভ তথ্য সহ অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার জন্য কাজ করছে।

আরও দেখুন

সম্পাদনা

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "First passenger drone makes its debut at CES"। The Associated Press। The Guardian। ১৪ জুন ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  2. "World's first passenger drone unveiled at CES"। Reuters। ১৫ জুন ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুন ২০১৬ 
  3. Henshon, M; Whittemore, G। "Drones on the Horizon! Getting Ready for Unmanned Aerial Vehicles (UAVs)"The American Bar Association। ১২ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  4. "Four quadrocopters propel a real live human into aviation history (video)"The Verge। ২০১১-১১-০২। ২০১৭-০৩-৩০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-২৯ 
  5. McCoy, S। "Passenger 'Drones' To Carry People Thru The Sky"GearJunkie। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  6. Priestley, T। "Flying Cars, JetPacks, And Passenger Drones - Which One Will Rule The Skies?"Forbes। ৬ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  7. Darack, Ed। "Are Dubai's Drone Taxis For Real?"Air & Space Magazine (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৩-৩০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-২৯ 

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা