মাকারিও (চলচ্চিত্র)

১৯৬০ সালের একটি চলচ্চিত্র

মাকারিও ১৯৬০ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত মেক্সিকান অতিপ্রাকৃত নাট্য চলচ্চিত্র, এটি পরিচালনা করেছেন রবার্তো গ্যাভালডন এবং অভিনয়ে ছিলেন ইগনাসিও লোপেজ তারসো এবং পিনা পেলিসার।[১] এটি বি. ট্র্যাভেনের একই নামের উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত হয়েছে, এটি নিউ স্পেনের (বর্তমানে মেক্সিকো) ভাইসেরয়ালটিতে প্রচলিত একটি পুরানো সীমান্ত কিংবদন্তীর ভিত্তিতে তৈরি।

মাকারিও
পরিচালকরবার্তো গ্যাভালডন
প্রযোজকআরমান্দো অরিভে আলবা
চিত্রনাট্যকারএমিলিও কার্বালিদো
রবার্তো গ্যাভালডন
শ্রেষ্ঠাংশেইগনাসিও লোপেজ তারসো
পিনা পেলিসার
সুরকাররাউল লাভিস্তা
চিত্রগ্রাহকগ্যাব্রিয়েল ফিগুয়েরা
সম্পাদকগ্লোরিয়া শোয়েম্যান
প্রযোজনা
কোম্পানি
ক্লাসা ফিল্মস মুন্দিয়ালেস
এস্তুদিওস চুরুবুস্কো
মুক্তি
  • মে ১৯৬০ (1960-05) (কান)
  • ৯ জুন ১৯৬০ (1960-06-09) (মেক্সিকো)
স্থিতিকাল৯০ মিনিট
দেশমেক্সিকো
ভাষাস্পেনীয়

এটি প্রথম মেক্সিকান চলচ্চিত্র হিসাবে শ্রেষ্ঠ বিদেশী ভাষার চলচ্চিত্র বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পায়।[২] এটি ১৯৬০-এর কান চলচ্চিত্র উৎসবেও স্থান পেয়েছিল।[৩]

কাহিনী সংক্ষেপ

সম্পাদনা

ইভ এর মৃত্যু দিবসের প্রাক্কালে ঔপনিবেশিক মেক্সিকোর মাকারিও নামের এক দরিদ্র আদিবাসী কাঠুরের জীবনকে কেন্দ্র করে ছবির কাহিনী গড়ে উঠেছে, সে এতই গরীব ও ক্ষুধার্ত ছিল যে জীবনের প্রতি তিক্তবিরক্ত হয়ে পড়েছিল। তার অর্থনৈতিক অবস্থা তাকে এবং তার পরিবারকে অনাহারের কিনারে নিয়ে গেছে। টার্কির ঝলসান মাংসের মিছিল দেখার পর তার স্বপ্ন একটি পুরো টার্কির ঝলসান মাংস খাওয়া। সে স্ত্রী এবং সন্তানদের সামনে ঘোষণা করে যে তাঁর স্বপ্ন বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত সে খাবে না। তার উদ্বিগ্ন স্ত্রী একটি টার্কি চুরি করে এবং মাকারিওর পাহাড়ে কাজ করারযাওয়ার আগে তা উপহার দেয়।

যাইহোক মাকারিও যখন টার্কি খেতে প্রস্তুত করে সে সময় তিন ব্যক্তি তার কাছে উপস্থিত হয়। প্রথমজন হলো একজন ভাল ভদ্রলোকের ছদ্মবেশে শয়তান, সে টার্কির টুকরো পাওয়ার জন্য মাকারিওকে প্ররোচিত করে। দ্বিতীয়টি একজন বৃদ্ধের ছদ্মবেশে ঈশ্বর। মাকারিও দুজনের সাথেই টার্কি ভাগ করতে অস্বীকার করে, যেহেতু সে বিশ্বাস করে যে তারা উভয়রেই তারা যা চায় তা পাওয়ার প্রয়োজনীয় উপায় তাদের রয়েছে।

যখন তার নিকটে তৃতীয় একজন তার মতোই কৃষক উপস্থিত হলো তখন সে আনন্দের সাথে লোকটির সাথে টার্কি ভাগ করে নেয়। তৃতীয় ব্যক্তিটি নিজে মৃত্যু ছাড়া আর কেউ নয়। মৃত্যুর কাছে বিষয়টি অবিশ্বাস্য লাগলো যে মাকারিও কেন তার টার্কিটি শয়তান এবং ঈশ্বরের সাথে নয় তার সাথে ভাগ করে নিয়েছে। মাকারিও জানায়, "আপনি যখনই উপস্থিত হবেন, অন্য কিছু করার জন্য সময় নেই।" মাকারিও মনে করেছিল যে তাঁর মৃত্যু আসন্ন। মৃত্যু খুশি হয় এবং ক্ষতিপূরণ হিসাবে মাকারিওকে তার "বন্ধু" বলে নাম দেয় এবং তাকে এমন এক অলৌকিক পানি দেয় যা যে কোন রোগ ভাল করতে পারে। যদি অসুস্থ ব্যক্তির পায়ের কাছে মৃত্যু উপস্থিত হয়, তবে সে এই পানির দ্বারা ভাল হতে পারবে - তবে যদি ব্যক্তির মাথার কাছে মৃত্যু উপস্থিত হয় তবে সে মারা যাবে। এই "বন্ধুত্ব" বছরের পর বছর স্থায়ী হয়, তবে তারা কখনও একে অপরের সাথে কথা বলেনি, কেবল তাকিয়েছে।

মৃত্যু ইঙ্গিত দেয় যে মাকারিও সেই দিনের পরে তার সাথে দেখা করবে। মাকারিও বাড়ি ফিরে এসে দেখে তার ছেলে কূপের ধারে পড়ে ঠাণ্ডা হয়ে আছে। মাকারিও তার ছেলের উপরে পানিটি দেওয়ার চেষ্টা করে এবং অবশেষে এটি একটি অলৌকিক নিরাময়কারী হিসাবে পরিচিতি লাভ করে, এমন হৈচৈ সৃষ্টি হয় যে গির্জা নিজেই তাকে ধর্মবিরোধী বলে অভিযুক্ত করে, এমনকি ভাইসরয় তার ছেলের নিরাময়ের জন্য তাকে তলব করে। সে ছেলেকে বাঁচাতে পারলে তাকে স্বাধীনতার প্রতিশ্রুতি দেয়, অন্যথায় তাকে পুড়িয়ে ফেলার হুমকি দেয়।

মাকারিওর দুর্ভাগ্য, মৃত্যুকে "বাচ্চাকে নিয়ে যেতে হয়েছিল," তাই হতাশ হয়ে মাকারিও কেবল মৃত্যুর গুহায় প্রবেশের প্রার্থনা করে এবং পালানোর চেষ্টা করে (কাকাহুয়ামিল্পা গুহায় চিত্রায়িত) এবং তার "উপহার"কে পণ্যদ্রব্য হিসাবে পরিণত করার জন্য তিরস্কৃত হয়। মৃত্যু তাকে মোমবাতিগুলি দেখায় যা দিয়ে গুহাটি ভরে আছে, হাজার হাজার মোমবাতির প্রতিটিই এক একজন ব্যক্তির জীবনের প্রতিনিধিত্ব করে। মোম তৈরি এবং মোমবাতির দৈর্ঘ্য প্রদত্ত ব্যক্তির জীবনকালের গুণিতক। মৃত্যু তখন মাকারিওর চোখের সামনে ভাইসরয়ের ছেলের মোমবাতি ছাঁটিয়া ফেলে। মাকারিও যখন দেখে তার মোমবাতিটি কতটা ছোট, সে এটিকে বাঁচাতে মৃত্যুর কাছে প্রার্থনা করে কিন্তু মৃত্যু তা অস্বীকার করে। হতাশায় মাকারিও তার মোমবাতিটি ছিনিয়ে এনে গুহা থেকে বের হয়ে যায়, পেছনে মৃত্যুর চিৎকার তাকে থামাতে পারে না।

শেষ দৃশ্যে দেখা যায় গোধূলি শুরু হয়েছে যেদিন মাকারিও মৃত্যুর সাথে টার্কি ভাগ করে নিয়েছিল। সে বাড়িতে আসেনি এবং তাঁর স্ত্রী এবং কিছু গ্রামবাসী মাকারিওকে বনের বাইরে স্থিরভাবে মৃত অবস্থায় খুঁজে পায়, পাশে টার্কির দুটি বিভক্ত অংশ রয়েছে: যার মধ্যে এক অংশ খাওয়া হয়েছে এবং অন্যটি অক্ষত রয়েছে, যেন সে একটি পুরো টার্কি খাওয়ার স্বপ্ন পূরণ না করে মারা যায়।

অভিনয়ে

সম্পাদনা

আরও দেখুন

সম্পাদনা
  • শ্রেষ্ঠ বিদেশী ভাষার চলচ্চিত্র বিভাগে ৩৩ তম একাডেমি পুরস্কারের জন্য জমা দেওয়া চলচ্চিত্রের তালিকা
  • শ্রেষ্ঠ বিদেশী ভাষার চলচ্চিত্র বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের জন্য জমা দেওয়া মেক্সিকান চলচ্চিত্রের তালিকা

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. IMDb film data base.
  2. "The 33rd Academy Awards (1961) Nominee and Winners"oscars.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১০-২৯ 
  3. "Festival de Cannes: Macario"festival-cannes.com। ২০১২-০২-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০২-১৫ 

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা