প্রধান মেনু খুলুন

মঙ্গল পাণ্ডে

ভারতীয় মহাবিদ্রোহের শহীদ

মঙ্গল পাণ্ডে (হিন্দি: मंगल पांडे(এই শব্দ সম্পর্কেশুনুন ; ১৯ জুলাই, ১৮২৭ – ৮ এপ্রিল, ১৮৫৭) ছিলেন একজন ভারতীয় সৈনিক, যিনি ১৮৫৭ সালের ভারতীয় সিপাহী বিদ্রোহের সূচনার মূল ভূমিকা পালনকারী। তিনি ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির ৩৪তম বেঙ্গল নেটিভ ইনফ্যান্ট্রি (বিএনআই) সৈন্যদলের (রেজিমেন্টের) সিপাহী ছিলেন। সমকালীন ব্রিটিশ মতামত তাকে বিশ্বাসঘাতক এবং বিদ্রোহী হিসাবে নিন্দা করলেও পাণ্ডে আধুনিক ভারতের একজন নায়ক। ১৯৮৪ সালে, ভারত সরকার তার স্মরণে ডাকটিকিট জারি করেছিল। একাধিক চলচ্চিত্রে তার জীবন ও ক্রিয়াকলাপ চিত্রিত হয়েছে।

মঙ্গল পাণ্ডে
মঙ্গল পাণ্ডে
স্থানীয় নামহিন্দি: मंगल पांडे
ডাকনামমঙ্গল
জন্ম(১৮২৭-০৭-১৯)১৯ জুলাই ১৮২৭
নাগওয়া, বালিয়া জেলা, সমর্পিত ও বিজিত প্রদেশসমূহ, মুঘল সাম্রাজ্য
মৃত্যু৮ এপ্রিল ১৮৫৭(1857-04-08) (বয়স ২৯)
ব্যারাকপুর, কলিকাতা, বেঙ্গল প্রদেশ, ব্রিটিশ ভারত
সার্ভিস/শাখাবেঙ্গল নেটিভ ইনফ্যান্ট্রি
পদমর্যাদাসিপাহী

পরিচ্ছেদসমূহ

প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

মঙ্গল পাণ্ডে ১৮২৭ সালের ২৭ জুলাই তৎকালীন সমর্পিত ও বিজিত প্রদেশের (বর্তমান উত্তরপ্রদেশ) উচ্চ বালিয়া জেলার, নাগওয়া গ্রামের[১][২] এক ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।[৩][৪] তিনি ১৮৪৯ সালে বেঙ্গল সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়েছিলেন। ১৮৫৭ সালের মার্চ মাসে, পাণ্ডে ৩৪তম বেঙ্গল নেটিভ ইনফ্যান্ট্রির ৫ম কোম্পানির একজন বেসরকারি সৈনিক ছিলেন।[৫]

বিদ্রোহসম্পাদনা

 
পাণ্ডে লেফটেন্যান্ট বৌগকে গুলি করছেন।

ভারতের সিপাই বিদ্রোহ বা জাতীয় মহাবিদ্রোহের প্রথম সূত্রপাত ঘটেছিল মঙ্গল পাণ্ডের মাধ্যমে, কলিকাতার উপকন্ঠে উত্তর চব্বিশ পরগণা জেলার ব্যারাকপুরে। সিপাহীদের প্যারেড ময়দানে ১৮৫৭ সালের ২৯ মার্চ উপমহাদেশের প্রথম ইংরেজ বিরোধী অভ্যুত্থানের নেতৃত্ব দেন সিপাই মঙ্গল। ১৮৫৭ সালের ২৯ মার্চের বিকেলে, ৩৪তম বেঙ্গল নেটিভ ইনফ্যান্ট্রির সেনাপতির সহকারি লেফটেন্যান্ট বৌগ অবগত হন যে ব্যারাকপুরে অবস্থিত তার রেজিমেন্টের বেশ কয়েকজন সিপাহী উত্তেজিত অবস্থায় রয়েছে। আরো জানা গেছে, তাদের মধ্যে মঙ্গল পাণ্ডে নামে একজন গাদাবন্দুকে সশস্ত্র প্যারেড ময়দানে রেজিমেন্টের প্রহরী কক্ষের সামনে অবস্থান করছিলেন যিনি সিপাহীদের বিদ্রোহের আহ্বান জানিয়েছিলেন এবং প্রথম একজন ইউরোপিয়কে গুলি করার হুমকি দিয়েছিলেন। পরবর্তী তদন্তে সাক্ষ্যগ্রহণে রেকর্ড করা হয়েছে যে ভাং পানে নেশাগ্রস্থ পান্ডে সিপাহীদের মধ্যে অশান্তি সৃষ্টি করে অস্ত্র আটক করেছিলেন এবং ব্যারাকপুর সেনানিবাসের নিকটবর্তী একটি স্টিমারে আগত ব্রিটিশ সৈন্যদের অবতরণের খবর পেয়ে কোয়ার্টার-গার্ড ভবনে দৌড়ে গিয়েছিলেন।[৬]

বৌগ অবিলম্বে সশস্ত্র হয়ে ঘোড়ায় চড়ে সেখানে উপস্থিত হন। পাণ্ডে ৩৪তম কোয়ার্টার-গার্ডের সামনে থাকা স্টেশন বন্দুকের পিছনে অবস্থান নেয়ে এবং বাগকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। তবে পাণ্ডে লক্ষভ্রষ্ট হলেও, তার ছোড়া গুলি বাগের ঘোড়াকে আঘাত করেছিল এবং ঘোড়া আরোহী বৌগকে মাটিতে ফেলে দেয়। বৌগ দ্রুত নিজেকে রক্ষা করে এবং একটি পিস্তল জব্দ করে গুলি ছুঁড়তে ছুঁড়তে পাণ্ডের দিকে এগিয়ে গেলেন। তবে তিনিও লক্ষভ্রষ্ট হয়েছিলেন। বাগ তার তলোয়ার বের করার আগেই পাণ্ডে তাকে তলোয়ার দিয়ে আক্রমণ করেছিলেন এবং সেনাপতির সহকারির নিকটস্থ হয়ে বৌগের কাঁধে ও ঘাড়ে তলোয়ার আঘাত করে তাকে মাটিতে ফেলে দেন। এরপরই অপর সিপাহী শায়খ পল্টু হস্তক্ষেপ করেছিলেন, এবং পাণ্ডেকে বাঁধা দেবার পাশাপাশি নিজের বন্দুকে গুলি ভরার চেষ্টা করেছিলেন।[৭]

হিউসন নামে একজন ব্রিটিশ সার্জেন্ট-মেজর প্যারেড ময়দানে পৌঁছেন এবং একজন দেশীয় আধিকারিককে ডেকে পাঠান। পাণ্ডেকে গ্রেপ্তারের জন্য তিনি কোয়ার্টার-গার্ডের কমান্ডার ভারতীয় কর্মকর্তা জিমাদার ঈশ্বরী প্রসাদকে নির্দেশ দিয়েছিলেন। এতে জিমাদার জানিয়েছিলেন যে, তার এনসিওরা সাহায্যের জন্য গেছে এবং তিনি একা পাণ্ডেকে নিতে পারবেন না।[৫] উত্তরে হিউসন ঈশ্বরী প্রসাদকে বন্দুকহাতে প্রহরায় নির্দেশ দেন। এসময় বৌগ ময়দানে এসে চিৎকার করে বলে উঠল 'সে কোথায়? সে কোথায়?' জবাবে হিউসন বৌগকে ডেকে বললেন, 'ডানদিকে চলুন স্যার, আপনার জীবনের জন্য। সিপাহীরা আপনার দিকে গুলি চালাবে!'[৮] ঠিক তখনই পাণ্ডে গুলি চালায়।

লেফটেন্যান্ট বৌগের সাথে লড়াই করার সময় হিউসন পাণ্ডের প্রতি অভিযোগ করেছিলেন। পাণ্ডের মুখোমুখি হওয়ার সময় হিউসন পাণ্ডের গাদাবন্দুকের আঘাত পেয়ে পিছন থেকে মাটিতে ছিটকে পড়েন। গুলির শব্দে ব্যারাকের অন্যান্য সিপাহী এগিয়ে এসেছিল; এবং তারা নিরব দর্শকের ভূমিকা পপালন করেছিল। এই মুহুর্তে শাইখ পল্টু দুই ইংরেজকে রক্ষা করার চেষ্টা করার সময় অন্যান্য সিপাহীদের তাকে সহায়তা করার আহ্বান জানান। সেই মুহুর্তে শাইখ পল্টু দুই ইংরেজকে রক্ষা করার চেষ্টা করার সময় অন্যান্য সিপাহীদের তাকে সহায়তা করার আহ্বান জানান। অন্য সিপাহীরা তার পিঠে পাথর ও জুতা নিক্ষেপ করে আক্রমণের চেষ্টা চালিয়েছিল। শাইখ পল্টু নিরাপত্তারক্ষীদের পাণ্ডেকে ধরে রাখতে সহায়তা করার জন্য আহবান করেছিলেন, তবে তারা বিদ্রোহীকে যেতে না দিলে গুলি করে হত্যা করার হুমকি দেয়।[৮]

এরপরে কোয়ার্টার-গার্ডের কিছু সিপাহী অগ্রসর হয়ে দুই কর্মকর্তার সঙ্গে বাদাপ্রাপ্ত হয়। এরপরে তারা শায়খ পল্টুকে হুমকি দেয় এবং পাণ্ডেকে মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দেয়, যাকে তিনি ব্যর্থভাবে আটকে রাখার চেষ্টা করেছিলেন। যদিও, পল্টু প্যান্ডেকে ধরে রাখলেন যতক্ষণ না বৌগ এবং সার্জেন্ট-মেজর মাটি থেকে উঠে দাঁড়াতে সক্ষম হয়েছিলেন। পল্টু নিজে গুরুতর আহত হবার কারণে পাণ্ডে কে ছেঁড়ে দিতে বাধ হযেছিলেন। প্রহরীদের গাদাবন্দুকের বাটে আঘাতপ্রাপ্ত অবস্থায় তিনি নিজেকে একদিকে এবং বৌগ ও হিউসনকে অন্যদিকে সরিয়ে নিয়েছিলেন।[৮]

এরই মধ্যে, ঘটনার একটি প্রতিবেদন কমান্ডিং অফিসার জেনারেল হিয়ার্সির কাছে পৌঁছানো হয়েছিল, যিনি পরে তার দুই অফিসার ছেলের সাথে মাটিতে পড়ে যান। ঘটনাস্থলে গিয়ে তিনি পাহারার উপরে উঠে তার পিস্তল টানেন এবং মঙ্গল পাণ্ডেকে আটক করে তাদের দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দেন। জেনারেল প্রথম আদেশ অমান্যকারীকে গুলি করে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছিলেন। কোয়ার্টার-গার্ডের পড়ে থাকা লোকেরা হেরসিকে পাণ্ডের দিকে এগিয়ে নিয়ে যায়। পাণ্ডে তখন নিজের বন্দুকের নলটি তার বুকে রাখলেন এবং পা দিয়ে ট্রিগার চেপে বন্দুকের গুলিতে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। তিনি তার রেজিমেন্টাল জ্যাকেট জ্বালিয়ে রক্তক্ষরণে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন, তবে মারাত্মক আহত হননি।[৮]

বিচার ও ফাঁসিসম্পাদনা

পাণ্ডে সুস্থ হয়েছিলেন এবং এক সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে তাকে বিচারের আওতায় আনা হয়েছিল। বিদ্রোহকালীন তিনি কোন নেশাজাতীয় দ্রব্যের প্রভাবে ছিলেন কিনা জানতে চাইলে পাণ্ডে বলেছিলেন যে, তিনি নিজেই বিদ্রোহ করেছেন এবং তাকে উত্সাহিত করতে অন্য কোনও ব্যক্তি কোনও ভূমিকা পালন করেননি। বিচারের রায়ে জিমাদার ঈশ্বরী প্রসাদ সহ পাণ্ডেকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। যদিও কোয়ার্টার-গার্ডের তিন শিখ সদস্য পাণ্ডেকে গ্রেপ্তার না করার নির্দেশ দিয়েছিলেন।[৮]

নির্ধারিত তারিখের দশ দিন আগে, ১৮৫৭ সালের ৮ এপ্রিল, প্রকাশ্যে মঙ্গল পাণ্ডের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছিল। পরে ইংরেজ অফিসারদের আদেশ অমান্য করে মঙ্গল পান্ডেকে নিবৃত্ত না করার জন্যে ২১ এপ্রিল জিমাদার ঈশ্বরী প্রসাদকে ফাঁসির মাধ্যমে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছিল।[৮][৯]

উত্তারাধিকারসম্পাদনা

স্মৃতিরক্ষাসম্পাদনা

 
১৯৮৪ সালের ভারতীয় ডাকটিকিটে পাণ্ডে
 
পশ্চিমবঙ্গের ব্যারাকপুর সেনানিবাসে সুরেন্দ্রনাথ ব্যানার্জি সড়কে মঙ্গল পাণ্ডের স্মৃতিস্তম্ভ।

১৯৮৪ সালের ৫ অক্টোবর ভারত সরকার পাণ্ডের স্মরণে তার ছবি সম্বলিত ডাকটিকিট জারি করে। দিল্লি-ভিত্তিক শিল্পী সি আর পাকরাশি ডাকটিকিট এবং এর প্রচ্ছদ নকশা করেছিলেন।[১০]

ব্যারাকপুরে ব্রিটিশ সেনাদের যে স্থানে পাণ্ডে আক্রমণ করেছিলেন এবং পরবর্তী সময়ে তাকে ফাঁসি দেওয়া হয়েছিল সেখানে তার স্মরণে শহীদ মঙ্গল পান্ডে মহা উদ্যান নির্মাণ করা হয়েছে।[১১] পরে ব্যারাকপুর সেনা ক্যাম্প এলাকায় তার একটি আবক্ষ মূর্তি স্থাপন করা হয়েছিল, যা সাধারণত মঙ্গল পাণ্ডে বাগান নামে পরিচিত।

চলচ্চিত্র, মঞ্চ এবং সাহিত্যসম্পাদনা

মঙ্গল পাণ্ডে: দ্যা রাইজিং শিরোনামে বিদ্রোহের ঘটনাটগুলির ক্রম ভিত্তিক একটি চলচ্চিত্রে কেতন মেহতার পরিচালনায় পাণ্ডের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন ভারতীয় অভিনেতা আমির খান, যেটি ২০০২ সালের ১২ আগস্ট মুক্তি পেয়েছিল।[১২]

দ্য রোটি রিভেলিয়ন শীর্ষক পাণ্ডের জীবনীমূলক মঞ্চ নাটকটি রচনা ও পরিচালনা করেছিলেন সুপ্রিয়া করুণাকরণ। "স্পর্শ" নাট্যদল পরিচালিত নাটকটি ২০০৫ সালের জুন মাসে অন্ধ্র প্রদেশ, হায়দ্রাবাদ, অন্ধ্র সরস্বত পরিষদের দ্য মুভিং থিয়েটারে পরিবেশিত হয়েছিল।[১৩]

সামাদ ইকবাল, মঙ্গল পাণ্ডের কাল্পনিক বংশধর, জাদি স্মিথের প্রথম উপন্যাস হোয়াইট টিথের কেন্দ্রীয় চরিত্র। সামাদের জীবনে পাণ্ডের গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব বিস্তার করে এবং যা উপন্যাসের চরিত্রগুলি দ্বারা বারবার উল্লেখ এবং তদন্ত করা হয়।[১৪]

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Misra, Amaresh (২০০৫)। Mangal Pandey, the true story of an Indian revolutionary। Rupa & Co.। 
  2. Lalta Prasad (১৯৮৫)। The Growth of a Small Town: A Sociological Study of Ballia, U.P.। Concept Publishing Company। পৃষ্ঠা 24। GGKEY:1W6UA71WAYZ। 
  3. Kim A. Wagner (২০১০)। The Great Fear of 1857: Rumours, Conspiracies and the Making of the Indian Uprising। Peter Lang। পৃষ্ঠা 82। আইএসবিএন 978-1-906165-27-7 
  4. "উৎসব, ভাষণ, স্যালিউট দেখল দেশবাসী; মঙ্গল পান্ডে পেলেন না একটাও মালা"। ২০ আগস্ট ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  5. David, p. 69
  6. Wagner, p. 82
  7. David, p. 70
  8. Christopher Hibbert (১৯৮০)। The Great Mutiny: India, 1857। Penguin Books। পৃষ্ঠা 68–70। 
  9. "সিপাই বিদ্রোহ এবং মঙ্গল পান্ডে"। ৯ জুন ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  10. "Mangal Pandey"। India Post। সংগ্রহের তারিখ ১০ এপ্রিল ২০১৭ 
  11. Mangal Pandey Park, Amusement Parks / Auditoriums / Clubs, kmcgov.in
  12. ইন্টারনেট মুভি ডেটাবেজে Mangal Pandey: The Rising (ইংরেজি)
  13. "Review of The Roti Rebellion"The Hindu। ৮ জুন ২০০৫। 
  14. Zadie Smith, White Teeth, pp. 210-217

উৎসসম্পাদনা

  • David, Saul (২০০২)। The Indian Mutinyআইএসবিএন 0-141-00554-8 
  • Sen, Surendra Nath (১৯৫৭)। Eighteen fifty-seven। Publications Division, Ministry of Information & Broadcasting, Govt. of India। 
  • Wagner, Kim A.। The Great Fear of 1857. Rumours, Conspiracies and the Making of the Indian Uprisingআইএসবিএন 978-93-81406-34-2 

আরো পড়ুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা