Symbol support vote.svgভাল ও আজাকি নিবন্ধ Emojione 1F6E0.svgটেমপ্লেট Emojione1 1F3B6.svgসঙ্গীত Emojione1 1F30B.svgভূপ্রকৃতি Emojione1 1F3AD.svgচলচ্চিত্র 667-baseball.svgক্রীড়া

আপনার জন্য একটি পদক!সম্পাদনা

  পরিশ্রমী পদক
আপনি চমৎকার কাজ করে চলেছেন। বাংলা উইকিতে যদিও কাজ করার জন্য প্রচুর সম্পাদক নেই, তবুও আপনি ও আরও গুটি কয়েকজনের অবদান দেখে আমিও চালিয়ে যেতে উৎসাহ পাই। এভাবেই বাংলা উইকিতে যতক্ষণ ও যতদিন শক্তি-সামর্থ্যে কুলোয়, চালিয়ে যাবেন এই কামনা রইল। আফতাবুজ্জামান (আলাপ) ০৩:৫৫, ৪ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)
@আফতাবুজ্জামান ভেবেছিলাম নতুন বছরে লম্বা বিরতিতে যাবো। উইকিভালবাসা দিয়ে আবারো টেনে ধরলেন। কিভাবে বুঝেন ভাই? যাই হোক। নতুন বছরের শুরুতে আরেকটা পদক পেয়ে ভাল লাগছে। আবারো অনুপ্রাণীত হইলাম। আপনার জন্য শুভকামনা। নতুন বছরের শুভেচ্ছা :) ‍‍‍‍~ ফায়সাল বিন দারুল (২০২২) ০৪:২৯, ৪ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)

আজাকি প্রসঙ্গেসম্পাদনা

নিচের আলোচনাটি সমাপ্ত হয়েছে। অনুগ্রহপূর্বক এটি পরিবর্তন করবেন না। পরবর্তী মন্তব্যসমূহ যথাযথ আলোচনার পাতায় করা উচিত। এই আলোচনাটিতে আর কোনও সম্পাদনা করা উচিত নয়।


তাফসীরে নুরুল কুরআন আজাকি না হওয়া প্রসঙ্গে একটি কারণ দর্শিয়েছেন। আমি উত্তর দেওয়ার সময় দেখলাম সেটা গায়েব হয়ে গেছে। সেজন্য আপনাকে আলাপ পাতায় বিরক্ত করতে আসলাম। অনুগ্রহপূর্বক কারণটা একটু ব্যাখ্যা করুন। অপ্রকাশিত/দুর্বল বলতে?–ধর্মমন্ত্রী (আলাপ) ১৮:৫৬, ৪ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)

@Owais Al Qarni প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। বিরক্ত হইনি। গবেষণা কোন সীকৃত জার্নালে আসেনি, যেমন Journal of Islamic Studies, Studia Islamica ইত্যাদি।শুধুমাত্র অনলাইনে উপলব্ধ আছে।অথবা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের মাসিক অথবা বার্ষিক জার্নালের সূত্র নয়। এধরণের সূত্রগুলি যাচাইযোগ্যতা কম। রিসার্চগেটে এইরকম অনেক থিসিস পরে আছে, কিন্তু এইগুলি অনলাইনে পাওয়া গেলেও প্রকাশিত নয়। আপনি হয়তো নাবুঝেই সূত্রটিকে ব্যবহার করেছেন। তাছাড়া আপনি অন্য কোন প্রকাশিত তথ্যসূত্র দেননি। এধরণের অপ্রকাশিত গবেষণা অভিসন্দর্ভ হতে তথ্য না নেয়ার অনুরোধ থাকলো। ‍‍‍‍~ ফায়সাল বিন দারুল (২০২২) ১৯:১০, ৪ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)
পুনশ্চঃ @Owais Al Qarni বলা বাহুল্য যেসূত্র দিয়েছেন, আপনি তো প্রাথমিকভাবে অনলাইনে দেখার মত তথ্যসূত্রও দেননি। সেটার পিডিএফ লিঙ্ক, আমি করে দিয়েছিলাম। তাইনা? আমি নিজেই আপনার নিবন্ধের তথ্যসূত্র একটু জোড়ালো করে দিয়েছিলাম। লিঙ্ক নেই এমন সুত্র আপনি কি গুড ফেইথে আজাকি'তে রাখার উপযুক্ত মনে করেছিলেন? ‍‍‍‍~ ফায়সাল বিন দারুল (২০২২) ১৯:১৮, ৪ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)
আমি আসলে ক্লিয়ার হতে পারছি না। একটি পিএইচডি অভিসন্দর্ভ যেটা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিসিয়াল সাইটে প্রকাশিত হয়েছে সেটা দুর্বল হয় কীভাবে? এটা কী রিসার্চগেটের মত সোশ্যাল সাইট? এর ভিতরেও তো প্রচুর সূত্র রয়েছে। যাক, সূত্রের অপ্রতুলতা থাকলেও সেটা একটু উল্লেখ করে দিলে ভালো হতো। আমি আরও দুইটা সূত্র যোগ করে দিচ্ছি।–ধর্মমন্ত্রী (আলাপ) ১৯:২৫, ৪ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)
@Owais Al Qarni আপনি বলছেন, এর ভিতরেও প্রচুর সূত্র আছে, তাহলে সেগুলি আগে দেননি কেন? পাঠক কি আপনার দূর্বল সুত্রের ভিতরে গিয়ে সূত্র খুঁজতে যাবে? ভাবুন তো। ‍‍‍‍~ ফায়সাল বিন দারুল (২০২২) ১৯:৪৭, ৪ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)
এটা আপনার দোষ। কারণ ইতঃপূর্বে দেখেছি আপনি আজাকি নিবন্ধে কমতি থাকলে সেটা নিজে ঠিক করে দেন অথবা একটা সাজেশন দেন। সেজন্য একটু আলসেমি চলে এসেছে। :) যাক, কিন্তু তথ্যসূত্রটা দুর্বল সেটা আমার বুঝে আসতেছে না। কারণ সাধারণ একটা জাতীয় পত্রিকা, জার্নাল বা বইয়ের চেয়ে আমার কাছে এরকম পিএইচডি অভিসন্দর্ভগুলো তথ্যসূত্র হিসেবে অত্যধিক (১০০ গুণ) সবল মনে হয়। কারণ একটা জাতীয় পত্রিকায় যেকেউ লিখতে পারে, এজন্য বিশেষ কোনো যোগ্যতার প্রয়োজন নাই, আবার পত্রিকাগুলো পক্ষদুষ্ট হতে পারে। আবার একটা বইও যেকেউ লিখে যেকোনো প্রকাশনী থেকে প্রকাশ করতে পারে। কিন্তু বাংলাদেশে একটা পিএইচডি গবেষণা করতে হলে তাকে স্নাতকোত্তর বা এমফিল সম্পন্ন করতে হয়। ভর্তি পরীক্ষা দিতে হয়। ক্ষেত্রবিশেষে আরও অনেক যোগ্যতা লাগে। বিষয়বস্তুর মেরিট থাকতে হয়। একটা দীর্ঘ সময় লাগে, তার চেয়ে বড় কেউ গবেষণা কর্মটির তত্ত্বাবধান করেন, যাচাইয়ের জন্য বিভিন্ন কমিটি থাকে, অনেক কিছুর পর থিসিসটি প্রকাশ করা হয়। এরকম থিসিসগুলোর প্রতি লাইনে লাইনে তথ্যসূত্র থাকে। তাহলে তো তথ্যসূত্র হিসেবে সেটা অত্যধিক সবল হওয়ার কথা ছিল। আর এটা সব জায়গায় উপলব্ধও নয়। শুধুমাত্র অফিসিয়াল সাইটে উপলব্ধ, কপিরাইট করা। আবার থিসিসে ভুল তথ্য/জালিয়াতি/লেখা চুরি থাকলেও কঠোর শাস্তি হতে দেখেছি। এসব মিলিয়ে আমার কাছে পিএইচডি অভিসন্দর্ভগুলো এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটেনিকা বা এ জাতীয় প্রকাশনার চেয়ে একটু নিচে এবং অন্যসব সূত্রের চেয়ে সবল মনে হয়। আপনি কোন দৃষ্টিতে এটাকে দূর্বল বলছেন?–ধর্মমন্ত্রী (আলাপ) ২০:২২, ৪ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)
@Owais Al Qarni
১.১. অবশেষে একটা দিন পাওয়া গেল। এই আলাপে দোষ দেয়ায় দশ মিনিট আগেও আপনার একটা আজাকি প্রস্তাবিত নিবন্ধের কমতি ধরিয়ে দিয়েছিলাম। আজাকি নিবন্ধে কমতি থাকলে আপনারটা নয়, সবার কমতি ঠিক দিই, বিশেষ করে এক্ষেত্রে যারা নতুন। নতুন বলে নয়, আজাকিতে অনেক অভিজ্ঞ ব্যবহারকারীও প্রথমবার এসে এই ব্যাপারটার মুখোমুখি হন। সবাইকে প্রথম প্রথম তাদের কমতি ধরিয়ে দেই কারণ একটাই- পরবর্তীতে যেন সেই ব্যবহারকারী ভালমত আজাকি'তে মনোনায়ন দিতে পারেন। ২০২১ সালের জুন-বর্তমান পর্যন্ত আজাকির সফল ও বিফল মনোনায়নের সংগ্রহশালায় গিয়ে দেখতে পারেন। অনেকেই মনোনায়ন নির্দেশনা না পড়েই মনোনায়ন দিয়ে যান, তাদেরকেও আমি নির্দেশনা অনুযায়ী পরামর্শ দিয়েছি, কমতি থাকলে ধরিয়ে দিয়েছি।
১.২. আপনার ১৫-২০ টা মনোনায়নের মধ্যে ৯+ টা প্রস্তাব আমি ঠিক করে দিয়েছি। একদম পর্যালোচনা ব্যতীত আপনার প্রস্তাবনা সরাসরি আজাকি'র জন্য উত্তীর্ণ হয়েছে, এমন ৩টি হবে হয়তো। এতোদিনে আজাকি'তে কিধরনের নিবন্ধ ও কেমন প্রস্তাবনা হবে, সেটা আপনার বুঝে ফেলার কথা। তা না করে আমি যদি ভুল না করি, তাহলে আপনি সম্প্রতি (হয়তো অতীতেও) প্রত্যেক নিবন্ধ লিখেই গণহারে আজাকিতে প্রস্তাব রাখছেন। নিবন্ধটি আজাকি মনোনায়ন নীতিমালা হিসেবে প্রস্তাব রাখার উপযুক্ত কিনা তা বোধকরি যাচাই করছেন না। ক্ষেত্রবিশেষে নির্দেশনার ব্যত্যায় ঘটিয়ে আপনার জন্য "আইনের ফাঁক-ফোকর" বের করা বা বিশেষ সুবিধা চাচ্ছেন। ঘটনা কি? আপনি এখন ১৫+ আজাকি নিবন্ধ প্রণেতা, ৫টি ভাল নিবন্ধের অবদানকারী, ২৩ হাজারের বেশি সম্পাদনাকারী অভিজ্ঞ ব্যবহারকারী। আপনাকে এখনো ধরিয়ে দিতে হচ্ছে কেন? সুতরাং অন্যকে দোষ না দিয়ে নিজের দোষ খুজুন। নিজেই নিজের কমতি পূরণ করুন। একটা লম্বা বিরতিতে যাওয়ার ইচ্ছা ছিল। যাওয়ার আগে অভিজ্ঞ ব্যবহারকারী হিসেবে আপনাকে আজাকি পর্যালোচনার অনুরোধের ইচ্ছা ছিল, কিন্তু এখন আর আস্থা রাখতে পারছি না। আফসোস!
২.১. পিএইচডি গবেষণাপত্র নিয়ে আপনার ধারণা খুবই সরল ও সাধারণ। একটা সময় আমিও আপনার মত ধারণা পোষণ করতাম। আপনি যেমনটি ভেবেছেন তেমনটি আসলে হওয়া উচিত। কিন্তু বাস্তব অবস্থা তেমন নয়। তাফসীরে নূরুল কুরআন নিবন্ধে আপনার ব্যবহার করা গবেষণাপত্রটি দিয়েই উদাহরণ দিই। এটার নামঃ বাংলা ভাষায় তাফসীর চর্চা : বিশেষত তফসীরে নূরুল কোরআন। থিসিসের টাইটেল, থিসিসের মূল উদ্দেশ্যকে নির্দেশ করে। এই শিরোনাম শোনার সাথে সাথে সবার মনে হবে তিনি নুরুল কোরান তফসির নিয়ে গবেষণা করে এই তফসিরের বিশেষত্ব, কি কারণে তফসিরটি বাংলা ভাষায় মৌলিক ও পুর্ণাঙ্গ হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ কাজ?(মোহাম্মদ আকরাম খাঁ, খাঁন বাহাদুর আবদুর রহমান খাঁ, ও মাওলানা শামছুল হক ফরিদপুরী তার আগেই পূর্নাঙ্গ তফসির চর্চা করে ফেলেছেন।) অন্য তফসিরগুলি হতে এটি কোন কোন দিক দিয়ে আলাদা - এই ফাইন্ডিংস গুলি বের করেছেন। প্রতিটা গবেষণার উদ্দেশ্যই ফাইন্ডিংস নিয়ে আসা।এটা পড়ে দেখলাম। পাঁচটা অধ্যায়ের মধ্যে প্রথম তিনটি চ্যাপ্টার গুরুত্বপূর্ণ রাখার পর (চতুর্থ অধ্যায় বাদে) তার মূল গবেষণার বিষয় নিয়ে মাত্র একটি অধ্যায়ে তফসিরের বর্ণনা করে গেছেন। তফসিরটির ১৫ টি বৈশিষ্ট দিয়েছেন মাত্র টিকাসহ ৫ পৃষ্ঠায়! অথচ এটির বৈশিষ্ট নিয়ে আলাদা একটি অধ্যায় হওয়ার কথা। এটি কেন বাংলাভাষায় মৌলিক (অন্যভাষা হতে অনূদিত নয়) ও পূর্নাঙ্গ তফসির তার প্রমাণাদি দিতে পারতেন ,আলাদা অধ্যায় করে। নাই। গবেষণার প্রাপ্তি ও গবেষণায় কোন দূর্বলতা থাকলে তা উপসংহার অধ্যায় করে উল্লেখ করে হয়, তা না করে তিনি কোনরকমে গবেষণাপত্রটি করে দিয়েছেন। তার সুপারভাইজারও তাকে অনেক ছাড় দিয়েছেন।
২.২. আমার উপরের কথাগুলি আপনাকে চিন্তিত করতে পারে। আপনি নিজে অনার্সের বা মাস্টার্সের গবেষণাপত্র না করে থাকলে, রিসার্চ মেথডলজি না পড়লে হয়তো আমার এইকথা গুলি বুঝতে অসুবিধা হবে। এসব বাদ দিন তাহলে। সবচেয়ে দৃষ্টিকটু ত্রুটি, গবেষণাপত্রের প্রতি পাতায় পৃষ্ঠা নাম্বার নেই। উপসংহার নামে আলাদা অধ্যায় নেই। গ্রন্থপঞ্জি লিখতে গিয়ে কোন স্বীকৃত শৈলী (যেমন: এপিএ শৈলী) অনুসরণ করেননি। স্কুলের ছাত্রদের মত বই আর সাময়িকীর তালিকা দিয়েছেন মাত্র। এটা কিভাবে একটা পিএইচডি গবেষণাপত্র হয়? এসব তো একটা গবেষণাপত্রের ন্যুনতম মান নির্ধারণের উপকরণ। উনার সুপারভাইজার কি এসব দেখেননি? ব্যক্তিগতভাবে আমার মনে হয়েছে, আমার অনার্সের সেকেন্ড আর থার্ড ইয়ারের ফিল্ড রিসার্স আর মেজর এসাইনমেন্টের চেয়ে এটা একটা খারাপ গবেষণাপত্র।
২.৩. আপনি এইগবেষনাপত্রের সূত্রের ভিত্তিতে "বাংলা ভাষায় প্রথম পূর্ণাঙ্গ তাফসীর গ্রন্থ" মর্মে প্রাথমিক সম্পাদিত নিবন্ধটি মনোনায়ন দিয়েছেন। গবেষক পুরো নিবন্ধে কোথাও এতো গবেষণার পরেও এই কথাটি জোর দিয়ে উল্লেখই করেননি। যে তথ্যের সপক্ষে সূত্র সমর্থন করে না, সেটা কিভাবে এখানে জোড়ালো সূত্র হয়? গবেষণাপত্রের সূচীপত্র থেকে পঞ্চম অধ্যায়ের পৃষ্ঠা নাম্বার দেখে তুলে দিয়েছেন, ২৭১-৩৬০। এ পাতাগুলির কোথাও বাংলা ভাষায় প্রথম পূর্ণাঙ্গ তাফসীর গ্রন্থ" উল্লেখ নেই। আপনি একজন সয়ংক্রিয় পরীক্ষক ও নিরীক্ষক অধিকারপ্রাপ্ত সম্পাদক হিসেবে এটা যাচাই করার দরকার ছিল। বোধকরি অন্যমনস্ক থাকার কারণে যাচাই করেননি। আপনার প্রশ্ন ছিল- আপনি কোন দৃষ্টিতে এটাকে দূর্বল বলছেন? এবার আপনার প্রশ্নের উত্তরে আসি। এটা দূর্বল তথ্যসূত্র নয়, এটা ভুল সূত্র। ভুল ও ত্রুটিপূর্ণ সূত্র দিয়ে একটা নিবন্ধকে আজাকি মনোনীত করা হতো আরেকটা ভুল। ‍‍‍‍~ ফায়সাল বিন দারুল (২০২২) ০৬:৫২, ১৯ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)
আপনার কোনো দোষ নাই। এটা আমার আলসেমি। আপনি আজাকি নিয়ে সিরিয়াস, এক্ষেত্রে আর কাউকে দেখা যায় না। এই ধারণা আমার কাছে বদ্ধমূল হয়ে গেছে। যার কারণে আজাকি নিয়ে আমার অবস্থা: হলে হবে, না হলে পরে ঠিক করে দেব এরকম। বুঝতেই পারছেন। তবে নুরুল কুরআনই প্রথম পূর্ণাঙ্গ তাফসীর। এটি কয়েক জায়গায় উল্লেখিত হয়েছে। পৃষ্ঠার উল্লেখ না থাকায় দেওয়া সম্ভব হয় নি। তবে আরেকটি সূত্র এই তথ্যটি সমর্থন করবে। ধন্যবাদ।–ধর্মমন্ত্রী (আলাপ) ০৭:১৭, ১৯ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)
@Owais Al Qarni পুনরায় প্রস্তাব রাখতে পারেন। ‍‍‍‍~ ফায়সাল বিন দারুল (২০২২) ০৭:৩৭, ১৯ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)
দিচ্ছি। তবে আরেকটি বিষয় নজরে পড়ল। উপরে আপনার দোষ বলতে, আপনার প্রশংসা করা উদ্দেশ্য। আপনার রিপ্লাই পড়ে মনে হল আপনি এটাকে আক্ষরিক অর্থেই নিয়েছেন। তা কিন্তু নয়। আবারও ধন্যবাদ।–ধর্মমন্ত্রী (আলাপ) ০৮:১৬, ১৯ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)
@Owais Al Qarni ভাইডি, আমি সাধারণত রাগ হলে সেটা সাথে সাথে ঝেড়ে ফেলি। রাগ পুষে রাখার সময় নেই। আমি আপনাকে ব্যক্তিগতভাবে চিনিনা। উইকি ছাড়া অন্যকোথাও আপনার সাথে আমি সামাজিকভাবে যুক্ত নই। তাই এখানে আপনি আমি যা লিখি তাই আমাদের ভাবের একমাত্র প্রকাশ। সমস্যা হচ্ছে, আমাদের লেখা বক্তব্যের সাথে আসে আমরা কিধরনের আবেগ দেখাচ্ছি, সেটা এখানে ইমোজি ব্যবহার না করলে বা নিজে না বলে দিলে বোঝা সম্ভব না। আমরা দুইজনই এখানে নিজের খেয়ে পরের মোষ তাড়াতে এসেছি (আমরা সেচ্ছাসেবী)। আমি আপনার ইম্প্রেশন, এক্সপ্রেশন দেখতে পাচ্ছিনা,তাই আমার বক্তব্য পরিষ্কার করার ধরন আপনার কাছে আক্ষরিক মনে হতে পারে। এজন্যে আমাদের এমন কিছু লেখা উচিত নয় যেটা আমাদের সম্পর্কে অন্যদের কাছে নিজেদের ইমেজ খারাপ হয়, বা সেই বক্তব্য পরে কেউ আমাদের কোন ভুল বা খামতির বিরুদ্ধে সূত্র হিসেবে ব্যবহার করতে পারে। যেমন আপনি "আইনের ফাঁক-ফোকর" এর কথা বলেছেন, সেটা কি মজা করে বলেছেন, না সিরিয়াস হয়ে বলেছেন, তা কিন্তু বোঝার উপায় নেই। খালি চোখে এই কথাটাকে যে কেউ ঋণাত্মক হিসেবে নিতে পারে। আমাদের এই ধরনের কথা লেখার আগে সতর্ক হওয়া উচিত।
আপনি বাংলা উইকি'র একজন পরিশ্রমি ও দেওবন্দ আন্দোলন নিয়ে অবদান রাখা গুরুত্বপূর্ণ সম্পাদক। তবে মাঝে মাঝে সম্পাদনা করতে করতে আমরা উইকিতে নিজেদের অযথা চাপে ফেলে দিই (আমার ধারণা, আপনি অনেকগুলি নিবন্ধ লেখার পরিকল্পনা করে নিজেই চাপে পড়ে আছেন, নাও হতে পারে, এটা শুধুই ধারণা)। নিজের সৃষ্ঠ চাপের কারণে আপনি ইদানিং ভাল নিবন্ধের প্রস্তাব না রেখেই পর্যালোচনা করতে বলেছেন, আগে শুরু হওয়া নিবন্ধ সম্প্রসারণের জন্য আপনার খেলাঘরে নিয়েছেন, এগুলো নিয়ে কথা হয়েছে। আমি সাধারণত এসব নিয়ে কথা বা মন্তব্য করি না, কিন্তু দেখি তো! আপনার অবদান রাখা আমার পছন্দ, কিন্তু আপনাকে নিয়ে এসব আলোচনা হওয়ার কথা না (আমি আশা করিনি)। সুতরাং ঠান্ডা মাথায় লিখুন, অবদান রাখুন। আর ভাই, মজার ছলে কিংবা হালকা কথা লিখলে পাশে ব্র্যাকেটে এক্সপ্লেইন করে দিয়েন, তাইলে সব ঠিক!) আমি আপনি একসময় থাকবো না, কিন্তু আমাদের কাজ উইকিতে থেকে যাবে।নতুনরা আমাদের এই আলাপ দেখে মনে রাখবে না, মনে রাখবে অবদান দেখে। তাই ঠান্ডা মাথায় সময় নিয়ে অবদান রাখুন, তাড়াহুড়া নেই। জাযাকাল্লাহ্‌ খাইরান! শুভকামনা।:) ‍‍‍‍~ ফায়সাল বিন দারুল (২০২২) ২১:২৫, ১৯ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)
ধন্যবাদ। আমি এই আলোচনার শুরুতে একটা ইমোজি দিয়েছিলাম, :)। আপনার নজরে পড়ে নি মনে হয়। আসলে আমি শুরু থেকেই নিয়মিত অবদান রেখে যাচ্ছি, যার কারণে আমার ভুল-ত্রুটি বেশি নজরে পড়ার কথা। বলতে দ্বিধা নাই, গঠনমূলক আর্টিকেল কী সেটা থেকে শুরু করে সূত্র খোঁজা সবকিছু আমি উইকিতে সম্পাদনা করতে করতে শিখেছি। আপনি লক্ষ করলে দেখবেন, আমার একেবারে শুরুর আর্টিকেলগুলোও উইকিপিডিয়ায় বিদ্যমান সাধারণ মান অনুযায়ী। এখন যদি সেই শুরু থেকে ইতিহাস টানা হয়, তখন আর জবাব দেওয়ার কিছু থাকে না।–ধর্মমন্ত্রী (আলাপ) ২১:৫২, ১৯ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)
@Owais Al Qarni তাইতো! যাই হোক, ভাল অবদান রাখা চালিয়ে যান। :) ‍‍‍‍~ ফায়সাল বিন দারুল (২০২২) ২৩:০৬, ১৯ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)

উপরের আলোচনাটি সমাপ্ত হয়েছে। অনুগ্রহপূর্বক এটি পরিবর্তন করবেন না। পরবর্তী মন্তব্যসমূহ যথাযথ আলোচনার পাতায় করা উচিত। এই আলোচনাটিতে আর কোনও সম্পাদনা করা উচিত নয়।

নিরীক্ষকসম্পাদনা

সুধী! আপনার অ্যাকাউন্টের সাথে "নিরীক্ষক" ব্যবহারকারী অধিকার যুক্ত করা হয়েছে, যা আপনাকে সুরক্ষিত পাতাসমূহে অন্য ব্যবহারকারীদের করা অপেক্ষমান সম্পাদনাসমূহ পর্যবেক্ষণ করার সুবিধা দিবে। পর্যালোচনার জন্য অপেক্ষায় থাকা অমীমাংসিত পরিবর্তনসহ পাতাসমূহ এখানে পাবেন এবং অমীমাংসিত পরিবর্তন সুরক্ষা চালু করা সমস্ত পাতাসমূহের স্বয়ংক্রিয় একটি তালিকা এখানে রয়েছে।

মনে রাখবেন এই অধিকারটি আপনার অবস্থার কোন পরিবর্তন ঘটাবে না বা আপনার নিবন্ধ সম্পাদনাতেও প্রভাব ফেলবে না। আপনি যদি এই ব্যবহারকারী অধিকারটি না চান তাহলে যেকোন সময় যেকোন প্রশাসককে অপনার অ্যাকাউন্ট থেকে অধিকারটি প্রত্যাহারের জন্য অনুরোধ করুন।

আরো দেখুন:

উইকিউক্তিয়ান হোন!সম্পাদনা

১১ জুলাই ২০১৯ খ্রিস্টাব্দে কাতালান উইকিউক্তির একটি প্রতিযোগিতামূলক এডিটাথনে...
সেই এডিটাথনে ১৭জন প্রতিযোগী অংশ নিয়েছিলেন।
তারা যুক্ত করেন ২৪৬টি উদ্ধৃতি।

আমাদের উইকিমিডিয়া প্রকল্পগুলো বাংলায় এখনো ততটা জমে উঠেনি। উইকিবইয়ে তিন থেকে চারজন সক্রিয় সদস্য পাওয়া যেতে পারে। উইকিভ্রমণ এখনো গোছানো হয়ে উঠেনি। এরই মধ্যে উইকিউক্তির কার্যক্রম ঝামেলার মনে হতে পারে। কিন্তু আসলে উইকিউক্তির প্রয়োজনীয়তা যেভাবে রয়েছে, তদ্রুপ এর কার্যক্রমও অনেকটাই সহজ।

তেমন সাজানো গোছানোর বিষয় নেই। কোনো বিশেষ ভুল-চুকের জন্য আলাদা ঝামেলা নেই। কেবল উক্তিগুলো (তা-ও এক বিষয়ে হাজার দিক দেখা আবশ্যক নয়) যুক্ত করা ও সম্পাদনা করা। আর প্রশাসনিক দিক থেকে কপিরাইট এবং উক্তিযোগ্যতার বিষয়টি পর্যালোচনা করা।

উইকিউক্তি বাংলার জন্য আবেদন করা হয় ২০০৭ সালের ৭ ডিসেম্বর। মঞ্জুর করা হয় ২০০৭ সালের ১৯শে ডিসেম্বর। এরপর মিডিয়াউইকির বার্তা অনুবাদ না করায় আবেদন গ্রহণ করা হয়নি। ইনকিউবেটরে আসার পর ২০১১ সালের থেকেই প্রকল্পটি পরিচর্যা ব্যতীত পড়ে আছে।

ইনকিউবেটরে কখনো কাজ করেননি?

নতুনরা কীভাবে নিবন্ধ তৈরি করবেন তা জানার জন্য এই টিউটোরিয়ালটি দেখতে পারেন। অথবা এখানেও দেখতে পারেন। যেকোন সমস্যায় আলোচনাসভায় বার্তা রাখুন।

সামান্য অবদান রাখুন!
  • নিয়মিত উইকিউক্তিয়ান হলে আপনি প্রতিদিন কমপক্ষে একটি ভুক্তি বা উক্তি যুক্ত করুন। মাসে কমপক্ষে ১০০টি সম্পাদনা আপনার মাথায় থাকা কাম্য। এরচেয়ে বেশি হলে আরো উত্তম।
  • নিয়মিত উইকিউক্তিয়ান হওয়া সম্ভব না হলে মাসে কমপক্ষে ২০টি সম্পাদনা করবেন।
  • কোনো ব্যক্তিত্ব, স্থান বা আবহ সম্পর্কে উইকিপিডিয়া পাতা অনুবাদ বা সম্পাদনা করছেন? সেসম্পর্কে উক্তিগুলো ইংরেজি উইকিউক্তি থেকে ইনকিউবেটরে থাকা বাংলা উইকিউক্তিতে অনুবাদ করুন।

যেকোনো সমস্যায় আমাকে বার্তা দিন অথবা ইমেইল করুন। --~ খাত্তাব , , ... ১৮:৩৭, ১৭ জানুয়ারি ২০২২ (ইউটিসি)