বেহালা লাইব্রেরি

কলকাতার গ্রন্থাগার, ভারত

বেহালা লাইব্রেরি বা বেহালা টাউন লাইব্রেরি দক্ষিণ কলকাতার বেহালা অঞ্চলের একটি প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী গ্রন্থাগার। ১৯০৩ সালে এই লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে এটি কলকাতা শহরের অন্যতম সমৃদ্ধ ও বৃহদায়তন গ্রন্থাগার।

বেহালা টাউন লাইব্রেরি, কলকাতা

ইতিহাসসম্পাদনা

বেহালা লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠার আগে এই অঞ্চলের প্রধান পাঠাগার ছিল ব্রাহ্মসমাজ পাঠাগার ও হরিভক্তিপ্রদায়িনী সভার নিজস্ব গ্রন্থাগার। এই দুই পাঠাগারের সংগ্রহ ছিল মূলত ধর্মগ্রন্থপ্রধান। সেই কারণে বিংশ শতাব্দীর গোড়ায় ইংরেজি শিক্ষিত তরুণ সমাজ বেহালায় একটি আধুনিক লাইব্রেরি গড়ে তুলতে আগ্রহী হন। অবশেষে ব্রজেন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়, প্রিয়নাথ সরকার, জ্যোতিষচন্দ্র, রায়, সুরেন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়, বিনয়কৃষ্ণ মুখোপাধ্যায়, ননীগোপাল গঙ্গোপাধ্যায়, হরিদাস চট্টোপাধ্যায়, মণিলাল গঙ্গোপাধ্যায় প্রমুখের উদ্যোগে ১ জানুয়ারি ১৯০৩ তারিখে বেহালা টাউন লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠিত হয়।

হরিদাস চট্টোপাধ্যায়ের ডায়মন্ড হারবার রোডস্থ বাসভবনের একটি ঘরে বিনা ভাড়ায় লাইব্রেরির কাজ শুরু হয়। শুরু হয় লাইব্রেরি পরিচালনার জন্য অর্থসংগ্রহ। সুরেন্দ্রনাথ রায়ের সভাপতিত্বে একটি কার্যনির্বাহী সমিতিও স্থাপিত হয়। সম্পাদক হন সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় ও গ্রন্থাগারিক হন মতিলাল বন্দ্যোপাধ্যায়।

১৯০৯ সালে হরিদাস চট্টোপাধ্যায় প্রয়াত হলে অনাথনাথ মুখোপাধ্যায়ের বাড়িতে লাইব্রেরি উঠে আসে। ১৯৩০ সালে বেহালার রায় পরিবারের বাড়ির একতলায় লাইব্রেরি উঠে আসে। ১৯৪৩ সালে কাশিমবাজারের রাজা আশুতোষনাথ রায়, ভাগলপুরের হরিচরণ গঙ্গোপাধ্যায়, বেহালার সৌরীন্দ্রনাথ রায়, নীলমণি মান্না, রাধাচরণ চট্টোপাধ্যায়, গয়াপ্রসাদ মজুমদার ও প্রিয়নাথ সরকারের অর্থসাহায্যে লাইব্রেরির নিজস্ব ভবনের দ্বারোদ্ঘাটন করা হয়। এরপর বেহালার বিভিন্ন বিদ্যোৎসাহী মানুষ নানাভাবে লাইব্রেরিকে সহায়তা করে এটিকে সুসমৃদ্ধ করে তোলেন।

সংগ্রহসম্পাদনা

বেহালা লাইব্রেরির সংগ্রহ কিছু দুষ্প্রাপ্য বইয়ের জন্য প্রসিদ্ধ। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য – ১২৯৫ বঙ্গাব্দে আদি ব্রাহ্মসমাজের প্রেসে মুদ্রিত সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘বোম্বাই চিত্র’, ‘নবীনচন্দ্রের গ্রন্থাবলী’ (১৩০২ বঙ্গাব্দ), মধুসূদন মুখোপাধ্যায় প্রণীত ‘সুশীলার উপাখ্যান’ (১৮৯০ খ্রি.), অক্ষয়কুমার বসু প্রণীত ‘তারাবিজয়’ (১৮৮৫ খ্রি.) , অমৃতলাল বসু রচিত ‘গ্রাম্যবিভ্রাট’ (১৩০৪ বঙ্গাব্দ), চিত্তরঞ্জন দাশ প্রণীত ‘মালঞ্চ’ (১৩০৩ বঙ্গাব্দ), প্রিয়নাথ মুখোপাধ্যায় ও প্রমথনাথ মুখোপাধ্যায় রচিত ‘সচিত্র বুয়র যুদ্ধের ইতিহাস’ (১৩০৭ বঙ্গাব্দ), ‘ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্তের গ্রন্থাবলী’ (১৩০৬ বঙ্গাব্দ), রামপদ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘আমার ডায়েরী’ (১৩২২ বঙ্গাব্দ) ইত্যাদি।

জ্ঞানকোষ সংগ্রহেও এই লাইব্রেরি অগ্রণী। ‘এনসাইক্লোপেডিয়া অব দ্য ওয়ার্ল্ড অ্যান্ড ইটস পিপল’ (২৭ খন্ড), ‘ব্রিটানিকা জুনিয়র এনসাইক্লোপেডিয়া’ (১৫ খণ্ড), ভারতকোষ প্রভৃতি এই লাইব্রেরির সংগৃহীত বিশিষ্ট কোষগ্রন্থ। এছাড়া প্রখ্যাত সাহিত্যিকদের রচনাবলি ও ‘আর্যশাস্ত্র’, ‘বিংশ শতাব্দী’, ‘প্রবাসী’, ‘ঘরোয়া’, ‘গল্পভারতী’ প্রভৃতি পুরনো পত্রিকা এই লাইব্রেরিতে সযত্নে রক্ষিত আছে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা