বুধের চৌম্বক ক্ষেত্র

বুধের চৌম্বক ক্ষেত্র হল প্রায় একটি চৌম্বক দ্বিমেরু (অর্থাৎ এই ক্ষেত্রের মাত্র দু’টি চৌম্বক মেরু বিদ্যমান),[৮] যা বুধ গ্রহে [৯] আপাতদৃষ্টিতে সর্বব্যাপী।[১০] ১৯৭৪ সালে মেরিনার ১০ মহাকাশযান থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে এই চৌম্বক ক্ষেত্রটি আবিষ্কৃত হয়। উক্ত মহাকাশযানটির পরিমাপ অনুযায়ী, বুধের চৌম্বক ক্ষেত্রের শক্তি পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্রের শক্তির ১.১ শতাংশ।[১১] ডায়নামো তত্ত্ব দ্বারা এই চৌম্বক ক্ষেত্রটির উৎস ব্যাখ্যা করা যায়।[১২] বো শকের কাছে চৌম্বক ক্ষেত্রটি চৌম্বকমণ্ডল উৎপাদনকারী সৌর বায়ুর বেগ মন্দীভূত করার জন্য যথেষ্ট শক্তিশালী।[১৩]

বুধের চৌম্বক ক্ষেত্র
Mercury Magnetic Field NASA.jpg
বুধের চৌম্বক ক্ষেত্রের আপেক্ষিক শক্তির রেখাচিত্র
Discovery[১]
আবিষ্কারকমেরিনার ১০
আবিষ্কারের তারিখএপ্রিল ১৯৭৪
Internal field[২][৩]
Radius of বুধ২,৪৩৯.৭ ± ১.০ কিমি
Magnetic moment২ থেকে ৬ × ১০১২ টিমি
Equatorial field strength৩০০ এনটি
Dipole tilt০.০°[৪]
Solar wind parameters[৫]
Speed৪০০ কিমি/সে
Magnetospheric parameters[৬][৭]
TypeIntrinsic
Magnetopause distance১.৪ আরএম
Magnetotail length১০–১০০ আরএম
Main ionsNa+, O+, K+, Mg+, Ca+, S+, H2S+
Plasma sourcesসৌর বায়ু
Maximum particle energy৫০ keV পর্যন্ত
Aurora

শক্তিসম্পাদনা

বুধের চৌম্বক ক্ষেত্র পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্রটির প্রায় ১.১ শতাংশের সমান শক্তিশালী।[১১] বুধের বিষুবরেখা অঞ্চলে চৌম্বক ক্ষেত্রের আপেক্ষিক শক্তি প্রায় ৩০০ এনটি, যা বৃহস্পতির প্রাকৃতিক উপগ্রহ গ্যানিমিডের বিষুব অঞ্চলে চৌম্বক ক্ষেত্রের আপেক্ষিক শক্তি অপেক্ষা দুর্বল।[১৪] বুধের অন্তঃস্থল পৃথিবীর তুলনায় দ্রুত শীতল হয়ে কঠিনীভূত হওয়ায় এই গ্রহের চৌম্বক ক্ষেত্র পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্র অপেক্ষা অনেকটা দুর্বলতর।[১৫] অবশ্য পৃথিবীর তুলনায় দুর্বলতর হলেও বুধের চৌম্বক ক্ষেত্র সৌর বায়ুকে বিচ্যুত করে একটি চৌম্বকমণ্ডল সৃষ্টি করার পক্ষে যথেষ্টই শক্তিশালী। বুধের চৌম্বক ক্ষেত্রটির তুলনায় যে আন্তঃগ্রহ চৌম্বক ক্ষেত্রের সঙ্গে এটি পারস্পরিকভাবে ক্রিয়াশীল সেটি অপেক্ষাকৃত সবল হওয়ায় বুধের কক্ষপথে সৌর বায়ুর গতীয় চাপ পৃথিবীর তুলনায় তিন গুণ বেশি হয়।

মেরিনার ১০ অভিযান ও মেসেঞ্জার অভিযানের মধ্যবর্তী সময়ে বুধের চৌম্বক ক্ষেত্রে কোনও গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন এসেছে কিনা তা এক প্রশ্নই থেকে গিয়েছে। ১৯৮৮ সালে মেরিনারের চৌম্বক তথ্যের জে. ই. পি. কনারনি ও এন. এফ. নেস কৃত পর্যালোচনায় আটটি পৃথক পত্রের উল্লেখ পাওয়া যায়, যেগুলিতে দু’টি নিকট মেরিনার ১০ ফ্লাইবাইয়ের গোলকীয় ঐকতান ব্যাখ্যার থেকে প্রাপ্ত চৌম্বক ক্ষেত্রের অন্তত পনেরোটি ভিন্ন ভিন্ন গাণিতিক মডেল পাওয়া যায়, সঙ্গে নথিবদ্ধ কেন্দ্রীভূত চৌম্বক দ্বিমেরু মুহুর্তের সীমা ছিল ১৩৬ থেকে ৩৫০ এনটি-আরএম (আরএম হল বুধের ব্যাসার্ধ ২৪৩৬ কিলোমিটার)। সেই সঙ্গে তাঁরা উল্লেখ করেন যে “বো শক এবং/অথবা ম্যাগনেটোপজ অবস্থানগুলি (শুধুমাত্র) থেকে প্রাপ্ত দ্বিমেরুর পরিগণনাগুলির সীমা প্রায় ২০০ এনটি-আরএম (রাসেল, ১৯৭৭) থেকে প্রায় ৪০০ এনটি-আরএম (স্লাভিন ও হোলজার ১৯৭৯বি)।” তাঁদের সিদ্ধান্ত ছিল, “মডেলগুলির মধ্যে মতানৈক্যের কারণ সাধ্য পর্যবেক্ষণগুলির ব্যাপনস্থল-সিংক্রান্ত বণ্টন কর্তৃক আরোপিত মৌলিক সীমাবদ্ধতাগুলি।”[১৬] ২০১১ সালে আন্ডারসন ও অন্যানেরা উচ্চ-মানের মেসেঞ্জার তথ্য ব্যবহার করে দ্বিমেরু মুহুর্ত পান ১৯৫ ± ১০ এনটি-আরএম। উল্লেখ্য, অল্প কয়েকটি উচ্চ গতিসম্পন্ন ফ্লাইবাইয়ের পরিবর্তে মেসেঞ্জার বহুবার বুধকে প্রদক্ষিণ করেছিল।[১৭]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "MESSENGER Data from Mercury Orbit Confirms Theories, Offers Surprises"The Watchtowers। ২০১১-০৬-০৬। ২০১৩-০২-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-২৬ 
  2. Russell, C. T. (১৯৯২-১২-০৩)। "Magnetic Fields of the Terrestrial Planets" (PDF)UCLA – IGPP। ২০১১-০৯-২৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-২৬ 
  3. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; Magnetic Field and Magnetosphere নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  4. Williams, David, R.। "Dr."Planetary Fact Sheets। NASA Goddard Space Flight Center। ২৮ মার্চ ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  5. James A. Slavin; Brian J. Anderson; Daniel N. Baker; Mehdi Benna; Scott A. Boardsen; George Gloeckler; Robert E. Gold; George C. Ho; Suzanne M. Imber; Haje Korth; Stamatios M. Krimigis; Ralph L. McNutt Jr.; Larry R. Nittler; Jim M. Raines; Menelaos Sarantos; David Schriver; Sean C. Solomon; Richard D. Starr; Pavel Trávníček; Thomas H. Zurbuchen। "MESSENGER Observations of Reconnection and Its Effects on Mercury's Magnetosphere" (PDF)। University of Colorado। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-২৭ 
  6. Reka Moldovan; Brian J. Anderson; Catherine L. Johnson; James A. Slavin; Haje Korth; Michael E. Purucker; Sean C. Solomon (২০১১)। "Mercury's magnetopause and bow shock from MESSENGER observations" (PDF)। EPSC – DPS। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-২৬ 
  7. A. V. Lukyanov; S. Barabash; R. Lundin; P. C. Brandt (আগস্ট ৪, ২০০০)। "Energetic neutral atom imaging of Mercury′s magnetosphere 2. Distribution of energetic charged particles in a compact magnetosphere – Abstract"। Planetary and Space Science। Laurel, Maryland: Applied Physics Laboratory। 49 (14–15): 1677–1684। ডিওআই:10.1016/S0032-0633(01)00106-4বিবকোড:2001P&SS...49.1677L 
  8. Tony Phillips (২০০৮-০৭-০৩)। "New Discoveries at Mercury"Science@Nasa। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-১৬ 
  9. Randy Russell (২০০৯-০৫-২৯)। "The Magnetic Poles of Mercury"Windows to the Universe। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-১৬ 
  10. Williams, David R.। "Planetary Fact Sheet"NASA Goddard Space Flight Center। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-২৫ 
  11. Jerry Coffey (২০০৯-০৭-২৪)। "Mercury Magnetic Field"Universe Today। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-১৬ 
  12. Jon Cartwright (২০০৭-০৫-০৪)। "Molten core solves mystery of Mercury's magnetic field"Physics World। ২০১২-০২-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-১৬ 
  13. Randy Russell (২০০৯-০৬-০১)। "Magnetosphere of Mercury"Windows to the Universe। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-১৬ 
  14. Kabin, K.; Heimpel, M. H.; Rankin, R.; Aurnou, J. M.; Gómez-Pérez, N.; Paral, J.; Gombosi, T. I.; Zurbuchen, T. H.; Koehn, P. L.; DeZeeuw, D. L. (২০০৭-০৬-২৯)। "Global MHD modeling of Mercury's magnetosphere with applications to the MESSENGER mission and dynamo theory" (PDF)Icarus। University of California, Berkeley। 195 (1): 1–15। ডিওআই:10.1016/j.icarus.2007.11.028বিবকোড:2008Icar..195....1K। ২০১২-০৩-২৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-১৬ 
  15. Lidunka Vočadlo; Lars Stixrude। "Mercury: its composition, internal structure and magnetic field" (PDF)UCL Earth Sciences। ২০১১-০৯-২৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-১৬ 
  16. J.E.P. Connerney; N.F. Ness (১৯৮৮)। "Mercury's Magnetic Field and Interior" (PDF)। Faith Vilas; Clark R. Chapman; Mildred Shapley Matthews। Mercury। The University of Arizona Press। পৃষ্ঠা 494–513। আইএসবিএন 978-0-8165-1085-6। ২০১৬-০৯-১০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০১-০১ 
  17. Brian J. Anderson; Catherine L. Johnson; Haje Korth; Michael E. Purucker; Reka M. Winslow; James A. Slavin; Sean C. Solomon; Ralph L. McNutt Jr.; Jim M. Raines; Thomas H. Zurbuchen (সেপ্টেম্বর ২০১১)। "The Global Magnetic Field of Mercury from MESSENGER Orbital Observations"। Science। American Association for the Advancement of Science। 333 (6051): 1859–1862। এসটুসিআইডি 26991651ডিওআই:10.1126/science.1211001পিএমআইডি 21960627বিবকোড:2011Sci...333.1859A 

টেমপ্লেট:Magnetospherics