"পতাকা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
 
== ইতিহাস ==
 
বাংলা "পতাকা" একটি সংস্কৃতজাত শব্দ। ‘পত্‌’ ধাতু থেকে এর উৎপত্তি। যথা:√ √ /পত্‌ + আক + আ = পতাকা। এটি স্ত্রী-বাচক শব্দ। পত্‌ অর্থ ধাবিত হওয়া, উড্ডীন হওয়া ইত্যাদি। ধ্বন্যাত্মক সম্পর্কও রয়েছে; কারণ পতাকা বাতাসে উড়লে 'পত্‌ পত্‌' শব্দ হয়। লাতিন শব্দ 'ভেক্সিলাম' [''vexillum'' ({{IPA-en|vɛkˈsɪləm}};] থেকে ইংরেজীইংরেজি ভাষার ''ফ্ল্যাগ'' শব্দের উৎপত্তি, যার অর্থ '''নিশান''' (উর্দ্দু: '''ঝাণ্ডা''' hf) এবং প্রতিশব্দ '''কেতন''', '''ধ্বজা''', '''বৈজয়ন্তী'''। খ্রিস্টপূর্ব ৫৫০ থেকে ৩৩০ অব্দে পারস্যে এক ধরনের পতাকার প্রচলন ছিল। যুদ্ধক্ষেত্রে সেনাদল সমন্বয়ের কাজে প্রথম পতাকা ব্যবহার হয়েছিল। মধ্যযুগে পতাকার ব্যাপক প্রচলন শুরু হয়। শুধু রাষ্ট্রীয় প্রতীক হিসেবেই নয়, বিভিন্ন কাজের সমন্বয়ের জন্য নানা আয়তন, রং ও নকশায় এটা তৈরি করা হতো। ১৩ শতকে ডেনমার্কে রাষ্ট্রীয় পতাকার প্রচলন ঘটে। এটাকেই সবচেয়ে পুরনো রাষ্ট্রীয় পতাকা হিসেবে ধরা হয়। ১৬৩০ খ্রিষ্টাব্দের পর এ ধরনের পতাকা তৈরিতে লাল, নীল ও সাদা রংয়ের ব্যবহারই বেশি দেখা যায়। ১৭৭৭ খ্রিষ্টাব্দের ১৪ জুন [[যুক্তরাষ্ট্র|যুক্তরাষ্ট্রের]] জাতীয় পতাকা আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি লাভ করে। ১৭৯৪ খ্রিষ্টাব্দের [[ফ্রান্স|ফ্রান্সে]] জাতীয় পতাকার উদ্ভব ঘটে। ১৯৭১ খ্রিষ্টাব্দের ২ মার্চ [[বাংলাদেশ|বাংলাদেশের]] পতাকা প্রথম উত্তোলন করা হয়। ভারতে এই পতাকাটিকে সাধারণত "তেরঙা" বা "ত্রিবর্ণরঞ্জিত পতাকা" বলা হয়। [[পিঙ্গালি ভেঙ্কাইয়া]] কৃত [[ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস|ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের]] "স্বরাজ" পতাকার ভিত্তিতে এই পতাকাটির নকশা প্রস্তুত করা হয়েছিল।
 
== বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা ==
১,৭৪,২৯৯টি

সম্পাদনা