"শাফী ইমাম রুমী" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(Meghmollar2017 শফি ইমাম রুমী কে শাফী ইমাম রুমী শিরোনামে স্থানান্তর করেছেন: প্রকৃত নাম অনুযায়ী স্থানান্তর)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
 
== মুক্তিযুদ্ধ ==
{{Quote box|width=23%|fontsize=85%|quoted=1|quote=প্রাণপ্রিয় পাশা মামা,<br>অবাক হয়ো না। এটা লেখা হয়েছে আর তােমার কাছে পৌছেছে। আর পড়ার পর চিঠিটা নষ্ট হলে ফেলো। এ নিয়ে আম্মাকেও কিছু লিখো না। তা হলে তাঁদের বিপদে পড়তে হবে। তাড়াহুড়া করে লিখলাম। আমার হাতে সময় খুব কম। বেস ক্যাম্পের উদ্দেশে কাল এখান থেকে চলে যেতে হবে।<br>আমরা একটা ন্যায়সঙ্গত যুদ্ধ লড়ছি। আমরা জয়ী হব। আমাদের সবার জন্য দোয়া করো। কী লিখবো বুঝতে পারছি না- কত কী নিয়ে যে লেখার আছে। নৃশংসতার যত কাহিনী তুমি শুনছ, ভয়াভয় ধংশের যত ছবু তুমি দেখছ, জানবে তার সবই সত্য। ওরা আমাদের নৃশংসতার সঙ্গে ক্ষতবিক্ষত করছে, মানব ইতিহাসে যার তুলনা নেই। আর নিউটন আসলেই যথার্থ বলেছেন, একই ধরনের হিংস্রতা নিয়ে আমরাও তাদের ওপর ঝাপিয়ে পড়ব। এরই মধ্যে আমাদের যুদ্ধ অনেক এগিয়ে গেছে। বর্ষা শুরু হলে আমরা আক্রমণের তীব্রতা বাড়িয়ে দেব।<br>জানি না আবার কখন লিখতে পারব। আমাকে লিখাে না। সােনার বাংলার জন্য সর্বোচ্চ যা পারো, করো। এখনকার মতাে বিদায়।|source=&mdash;সৈয়দ মোস্তফা কামাল পাশাকে লেখা চিঠিতে শফি ইমাম রুমী<ref>{{citeবই bookউদ্ধৃতি|titleশিরোনাম=একাত্তরের চিঠি|yearবছর=২০০৯|publisherপ্রকাশক=প্রথমা প্রকাশন|locationঅবস্থান=ঢাকা|isbnআইএসবিএন=978-984-8765-00-5|pagesপাতাসমূহ=২৫}}</ref>}}
 
যুদ্ধের প্রাথমিক পর্যায়ে, রুমী ধারাবাহিকভাবে তার মা ও বাবাকে নিজের যুদ্ধে যাবার ব্যাপারে রাজি করানোর চেষ্টা করেন। ১৯৭১ সালের ১৯ এপ্রিল মাকে অবশেষে রাজি করিয়ে সীমান্ত অতিক্রমের সুযোগ খুজছিলেন। পরে ২ মে রুমী সীমান্ত অতিক্রমের প্রথম প্রয়াস চালান। কিন্তু প্রতিকূল পরিস্থিতির কারণে তাঁকে ফেরত আসতে হয় এবং দ্বিতীয় প্রচেষ্টায় সফল হন। তিনি সেক্টর-২ এর অধীনে মেলাঘরে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। এই সেক্টরটির পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন [[খালেদ মোশাররফ]] ও [[রশিদ হায়দার]]। প্রশিক্ষণ শেষ করে তিনি ঢাকায় ফেরত আসেন এবং [[ক্র্যাক প্লাটুন|ক্র্যাক প্লাটুনে]] যোগ দেন। ক্র্যাক প্লাটুন হল পাকিস্তান সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে [[গেরিলা]] আক্রমণ পরিচালনাকারী একটি সংগঠন। রুমী ও তার দলের ঢাকায় আসার অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য ছিল [[সিদ্ধিরগঞ্জ পাওয়ার স্টেশন]] হামলা করা। এ সময় তাকে ঝুঁকিপূর্ণ আক্রমণ পরিচালনা করতে হয় যার মধ্যে ধানমণ্ডি রোডের একটি আক্রমণ ছিল উল্লেখযোগ্য।
১,৭৬,৪২২টি

সম্পাদনা