বানর

স্তন্যপায়ী প্রাণী

বানর, বান্দর বা বাঁদর এক প্রকারের স্তন্যপায়ী প্রাণী। মূলত সিমিয়ান প্রাইমেট গণের তিনটি দলের মধ্যে দুইটির সদস্যরা সাধারণ ভাবে বানর নামে পরিচিত। এই দলগুলি হলো, নতুন পৃথিবীর বানর, পুরাতন পৃথিবীর বানর এবং নরবানর। এদের প্রধানত দেখা যায় দক্ষিণ এশিয়াউত্তর আফ্রিকায়। বানর বুদ্ধিমান ও সামাজিক জন্তু; অধিকাংশ প্রজাতিই গাছে বাস করে। নিরামিষভোজী হলেও এদের বাসস্থান ও খাদ্যে পর্যাপ্ত বৈচিত্র্য আছে। বাংলাদেশে ১০ প্রজাতির প্রাইমেটের মধ্যে রয়েছে ৫ প্রজাতির বানর। পৃথিবীতে বর্তমানে বিদ্যমান ১৯ প্রজাতির বানরের মধ্যে এক প্রজাতি ছাড়া অন্য সবগুলি ছড়িয়ে আছে এশিয়ায় আফগানিস্তান থেকে জাপান, ফিলিপাইন থেকে বোর্নিও পর্যন্ত।

'বানর'
সময়গত পরিসীমা: Oligocene–Present
Cebus albifrons edit.jpg
A young male White-fronted Capuchin (Cebus albifrons).
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: প্রাণী জগৎ
পর্ব: কর্ডাটা
শ্রেণী: স্তন্যপায়ী
বর্গ: প্রাইমেট in part
উপগোষ্ঠী
বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে বানরের আবাসস্থল লাল বর্ণে চিহ্নিত।

ব্যুৎপত্তিসম্পাদনা

অনুমান করা হয় বানরের উৎপত্তি সুদূর ৩.৫-৪ মিলিয়ন বছর পূর্বে।

আবাসস্থলসম্পাদনা

বর্তমানে দুই দলের বানর রয়েছে। যারা হল নব বিশ্বের বানর আর পুরাতন বিশ্বের বানর। নব বিশ্বের বানরেরা দক্ষিণ আমেরিকায় বাস করে। পুরাতন বিশ্বের বানরেরা আফ্রিকা এবং এশিয়ায় বাস করে। নব বিশ্বের বানরেরা পুরাতন বিশ্বের বানরদের থেকে ছোট। বানরদের প্রজাতির মধ্যে সবচেয়ে ছোট প্রজাতি হল পাইগিমিই মারমোসেট। সাধারণত এদের দৈর্ঘ্য হয়ে থাকে ১২ থেকে ১৫ সেন্টিমিটার । এদের ওজন প্রায় ১২০গ্রাম। এরা ব্রাজিল, কলম্বিয়াইকুয়েডরে বাস করে।


গঠনসম্পাদনা

বানরদের লম্বা হাত ও পা আছে যার সাহায্যে এরা এক গাছ থেকে অন্য গাছে লাফ দেয়। যে সব বানরদের লম্বা লেজ আছে তারা তাদের লম্বা লেজ দিয়ে গাছে ঝুলে থাকতে পারে। বানরের দেহ লোমে আবৃত। উষ্ণ রক্তের প্রাণী। হৃৎপিণ্ড চার প্রকোষ্ঠ বিশিষ্ট।

শ্রেণীবিন্যাসসম্পাদনা

বানরের প্রজাতিগুলি হচ্ছে:

মানুষের সাথে সম্পর্কসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

বাংলা‌দে‌শে যে সব এলাকায় বানর র‌য়ে‌ছে