বাঁশখালী সমুদ্র সৈকত

বাঁশখালী সমুদ্র সৈকত চট্টগ্রাম বিভাগের বাঁশখালী উপজেলায় অবস্থিত একটি সমুদ্র সৈকত। এটি বাহারছড়া সমুদ্র সৈকত নামেও পরিচিত। এই সৈকতটি বালুচরবেষ্টিত সমুদ্র সৈকত। দেখতে কিছুটা কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের মতোই। এই সৈকতটির দৈর্ঘ্য ৩৭ কিলোমিটার। কক্সবাজারের পর এটিই বাংলাদেশের ২য় দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত।[১]

বাঁশখালী সমুদ্র সৈকত
Panorama of Banshkhali Beach.jpg
সমুদ্র সৈকতটির প্যানারোমা চিত্র
অবস্থানবাঁশখালী উপজেলা, চট্টগ্রাম
সৈকতের দৈর্ঘ্য৩৭ কিলোমিটার (বাংলাদেশের ২য় দীর্ঘতম)

অবস্থানসম্পাদনা

চট্টগ্রাম শহর থেকে এই সৈকতের দুরত্ব প্রায় ৪০ কিলোমিটার। বাঁশখালী উপজেলার ছনুয়া, গন্ডামারা, সরল, বাহারছড়া, খানখানাবাদ এলাকার উপকূলজুড়ে এই সৈকত। সৈকতর পশ্চিম দিক জুড়ে পুরোটাই কুতুবদিয়া চ্যানেল। আর কাছেই কুতুবদিয়া দ্বীপ[২] বাঁশখালীর গুণাগরি বাজার থেকে সরাসরি এই সৈকতে আসা যায়। সাড়ে চারশো বছরের পুরনো বকশি হামিদ মসজিদও এই সৈকত থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।

পরিবেশসম্পাদনা

 
বাঁশখালী সমুদ্র সৈকতে ঝাউবন

২০০৭ সালে ঘূর্ণিঝড় সিডরের পর সৈকতটিতে রোপন করা হয়েছে ঝাউ গাছ এবং তৈরি হয়েছে ঝাউ বাগান। আর সৈকতে পাওয়া যায় লাল কাঁকড়া। বিশেষ করে সকালে এই কাঁকড়াগুলো বেশি চোখে পড়ে। খুব ভালোভাবে এই সৈকত থেকে সূর্যাস্ত উপভোগ করা যায়। শহর থেকে কিছুটা দূরে হওয়ায় এখানে পর্যটকের সংখ্যা তুলনামূলক কম থাকে। বর্ষায় সৈকতটির প্রশস্ততা কিছুটা কমে যায়।[২]

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "বাঁশখালীতে পর্যটনের অপার সম্ভাবনা"। কালের কন্ঠ। ১৪ নভেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৯ নভেম্বর ২০২০ 
  2. "বাঁশখালী সমুদ্র সৈকত"বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন। সংগ্রহের তারিখ ২৯ নভেম্বর ২০২০