মালদ্বীপের একটি প্রবাল দ্বীপ

প্রবাল দ্বীপ হলো এমন এক প্রকার দ্বীপ যা প্রবাল ছাইভস্ম এবং এজাতীয় জৈব পদার্থ দিয়ে গঠিত হয়েছে।[১] এগুলো গ্রীষ্মমন্ডলীয় এবং উপ-গ্রীষ্মমন্ডলীয় অঞ্চলে দেখা যায়, সাধারণত প্রবাল প্রাচীরের অংশ হিসাবে যা সমুদ্রের নিচে একটি বৃহত্তর অঞ্চল জুড়ে বিস্তৃত।

প্রবাল দ্বীপের প্রভাব ও গুরুত্বসম্পাদনা

 
সমুদ্রের তাপমাত্রা বৃদ্ধি, অ্যাসিডিটি বা দূষণের কারণে প্রবাল ব্লিচ করা।

জীববৈচিত্র্য রক্ষা ও মাছের জনসংখ্যার বৃদ্ধির জন্য প্রবাল গুরুত্বপূর্ণ, সুতরাং প্রবাল প্রাচীরগুলো রক্ষা করাও গুরুত্বপূর্ণ। প্রবাল প্রাচীরগুলো অ্যানথ্রোপোজেনিক প্রভাবের হুমকির মধ্যে রয়েছে, এর কয়েকটি ইতিমধ্যে বিশ্বব্যাপী বড় প্রভাব ফেলেছে।[২]

সংস্থানসম্পাদনা

বিশ্বের বেশিরভাগ প্রবাল দ্বীপপুঞ্জই প্রশান্ত মহাসাগরে অবস্থিত। আমেরিকার জারভিস, বাকের এবং হাওল্যান্ড দ্বীপপুঞ্জ প্রবাল দ্বীপের সুস্পষ্ট উদাহরণ। ভারতের লক্ষদ্বীপের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলটিতে ৩৯ টি প্রবাল দ্বীপপুঞ্জ এবং কয়েকটি ছোট দ্বীপ এবং ব্যাংক রয়েছে। এছাড়াও, কিরিবাতির অন্তর্গত কয়েকটি দ্বীপ প্রবাল দ্বীপ হিসাবে বিবেচিত হয়। মালদ্বীপেও প্রবাল দ্বীপ রয়েছে। সেন্টমার্টিন দ্বীপটি বাংলাদেশের একটি ৮ বর্গকিলোমিটার আয়তনের প্রবাল দ্বীপ। থাইল্যান্ডের পাতায়া এবং কো সামিউয়ের কাছেও প্রবাল দ্বীপপুঞ্জ রয়েছে।[৩]

অনেক প্রবাল দ্বীপ সমুদ্রপৃষ্ঠের চেয়ে কম উচ্চতায় অবস্থান করছে। তাই এগুলো ঝড় এবং সমুদ্রপৃষ্ঠের উত্থানের হুমকিতে রয়েছে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "coral island"। Encyclopædia Britannica। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১২-২৬ 
  2. SEBENS, KENNETH P. (ফেব্রুয়ারি ১৯৯৪)। "Biodiversity of Coral Reefs: What are We Losing and Why?"American Zoologist (ইংরেজি ভাষায়)। 34 (1): 115–133। doi:10.1093/icb/34.1.115আইএসএসএন 0003-1569 
  3. Andréfouët, Serge; Guzman, Hector M. (২০০৫-০৩-০১)। "Coral reef distribution, status and geomorphology–biodiversity relationship in Kuna Yala (San Blas) archipelago, Caribbean Panama"। Coral Reefs (ইংরেজি ভাষায়)। 24 (1): 31–42। doi:10.1007/s00338-004-0444-4আইএসএসএন 0722-4028