প্রফুল্ল চক্রবর্তী

ব্রিটিশ বিরোধী বাঙালি বিপ্লবী

প্রফুল্ল চক্রবর্তী (১৮৯১-১৯০৮) একজন বাঙালি ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনকর্মী। বোমা পরীক্ষাকালে বিস্ফোরনে মারা যান।[১]

প্রফুল্ল চক্রবর্তী
শহীদ প্রফুল্ল চক্রবর্তী
জন্ম১৮৯১
মৃত্যু১৯০৮
দিঘিরিয়া পাহাড়ে বোমা বিস্ফোরনে

প্রারম্ভিক জীবন সম্পাদনা

প্রফুল্ল চক্রবর্তী ছিলেন রংপুর আদালতের পেশকার ঈশানচন্দ্র চক্রবর্তীর পুত্র। পিতা ছিলেন দেশপ্রেমিক মনোভাবাপন্ন। তার একটি কুস্তির আখড়া ছিল, সেখানে প্রফুল্ল চাকী, সুরেশ চক্রবর্তী ও তার পুত্র প্রফুল্ল যোগ দেন।[২] প্রফুল্ল চক্রবর্তী রংপুর জিলা স্কুলের ছাত্র ছিলেন। ছাত্রাবস্থাতে তার সাথে গুপ্ত বিপ্লবী সংগঠনে যোগাযোগ হয়। ১৯০৫-০৬ সালে বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনে তিনি যোগ দেন।[৩]

মৃত্যু সম্পাদনা

বিপ্লবী প্রফুল্ল চক্রবর্তীর মৃত্যু দুর্ভাগ্যজনক ও মর্মান্তিক। ১৯০৮ সালের শুরুর দিকে বিপ্লবী উল্লাসকর দত্তবারীন্দ্রকুমার ঘোষের নেতৃত্বে একটি দল বোমা পরীক্ষা করার জন্যে অধুনা ঝাড়খণ্ড রাজ্যের দেওঘর যায়। সংগে ছিলেন বিভূতিভূষণ সরকার, নলিনীকান্ত গুপ্ত ও সর্বকনিষ্ঠ প্রফুল্ল। দিঘিরিয়া পাহাড়ে বোমা ছোড়ার এই পরীক্ষায় প্রফুল্ল মারা যান ও উল্লাসকর দত্ত মারাত্মক ভাবে আহত হন। বিপ্লবীরা গোপনে তার মৃতদেহকে সেখানে ফেলে রেখে যেতে বাধ্য হয়েছিলেন। পুলিশের খাতায় প্রফুল্ল চক্রবর্তী নিরুদ্দেশ ঘোষিত হয়।[৪]

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. প্রথম খন্ড, সুবোধচন্দ্র সেনগুপ্ত ও অঞ্জলি বসু (২০০২)। সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান। কলকাতা: সাহিত্য সংসদ। পৃষ্ঠা ২৯৮। আইএসবিএন 81-85626-65-0 
  2. রায়, প্রকাশ। "বিস্মৃত বিপ্লবী"। বিপ্লবীদের জীবনী 
  3. ফেরদৌস জামান। "ব্রিটিশবিরোধী বিপ্লবী প্রফুল্ল চাকী"। সংগ্রহের তারিখ ২৪ অক্টোবর ২০১৭ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  4. অশোককুমার মুখোপাধ্যায় (২০১১)। অগ্নিপুরুষ। কলকাতা: আনন্দ পাবলিশার্স। পৃষ্ঠা ৯৯–১০১। আইএসবিএন 81-7756-425-0