প্রধান মেনু খুলুন

নোয়াপাড়া বিধানসভা কেন্দ্র

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা কেন্দ্র

নোয়াপাড়া (বিধানসভা কেন্দ্র) ভারতীয় রাজ্য পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার একটি বিধানসভা কেন্দ্র

নোয়াপাড়া
বিধানসভা কেন্দ্র
নোয়াপাড়া পশ্চিমবঙ্গ-এ অবস্থিত
নোয়াপাড়া
নোয়াপাড়া
নোয়াপাড়া ভারত-এ অবস্থিত
নোয়াপাড়া
নোয়াপাড়া
পশ্চিমবঙ্গ
স্থানাঙ্ক: ২২°৪৯′২০″ উত্তর ৮৮°২২′১১″ পূর্ব / ২২.৮২২২২° উত্তর ৮৮.৩৬৯৭২° পূর্ব / 22.82222; 88.36972স্থানাঙ্ক: ২২°৪৯′২০″ উত্তর ৮৮°২২′১১″ পূর্ব / ২২.৮২২২২° উত্তর ৮৮.৩৬৯৭২° পূর্ব / 22.82222; 88.36972
দেশ ভারত
রাজ্যপশ্চিমবঙ্গ
জেলাউত্তর চব্বিশ পরগনা
কেন্দ্র নং.১০৭
আসনখোলা
লোকসভা কেন্দ্র১৫.ব্যারাকপুর
নির্বাচনী বছর২৪৬,৮৮১ (২০১৮)

এলাকাসম্পাদনা

ভারতের সীমানা পুনর্নির্ধারণ কমিশনের নির্দেশিকা অনুসারে, ১০৭ নং নোয়াপাড়া বিধানসভা কেন্দ্রটি উত্তর ব্যারাকপুর পুরসভা এবং গারুলিয়া পুরসভা,ইছাপুর প্রতিরক্ষা এস্টেট, ব্যারাকপুর ক্যান্টনমেন্ট মোহনপুর এবং সেউলি গ্রাম পঞ্চায়েত গুলি ব্যারাকপুর-২ সমষ্টি উন্নয়ন ব্লক এর অন্তর্গত।[১]

নোয়াপাড়া বিধানসভা কেন্দ্রটি ১৫ নং ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র এর অন্তর্গত।[১]

বিধানসভার বিধায়কসম্পাদনা

নির্বাচন
বছর
কেন্দ্র বিধায়ক রাজনৈতিক দল
১৯৫৭ নোয়াপাড়া পঞ্চানন ভট্টাচার্য প্রজা সোশ্যালিস্ট পার্টি[২]
১৯৬২ যামিনী ভূষণ সাহা ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি[৩]
১৯৬৭ শুভেন্দু রায় ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস [৪]
১৯৬৯ যামিনী ভূষণ সাহা ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী) [৫]
১৯৭১ যামিনী ভূষণ সাহা ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী)[৬]
১৯৭২ শুভেন্দু রায় ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস [৭]
১৯৭৭ যামিনী ভূষণ সাহা ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী)[৮]
১৯৮২ যামিনী ভূষণ সাহা ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী)[৯]
১৯৮৭ যামিনী ভূষণ সাহা ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী) [১০]
১৯৯১ মদনমোহন নাথ ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী) [১১]
১৯৯৬ মদনমোহন নাথ ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী) [১২]
২০০১ মঞ্জু বসু সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস[১৩]
২০০৬ কুশাধ্বাজ ঘোষ ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী) [১৪]
২০১১ মঞ্জু বসু সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস [১৫]
২০১৬ মধুসূদন ঘোষ ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস
২০১৮- উপনির্বাচন সুনিল সিং সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস[১৬]

[১৭]

নির্বাচনী ফলাফলসম্পাদনা

২০১৮ উপনির্বাচনসম্পাদনা

মধুসূদন ঘোষ এর মৃত্যুর পর নোয়াপাড়া বিধানসভা আসনটি খালি ছিল। ২০১৮ সালের উপনির্বাচনে সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী সুনিল সিং এবং এছাড়া গুরুলিয়া পৌরসভার চেয়ারম্যান ১,০১,৭২৯ ভোটের রেকর্ড ভাঙেন এবং তিনি তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিজেপি প্রার্থী সন্দীপ ব্যানার্জীকে ৬৩,০১৮ ভোটের (৫৩.৫১%) ব্যবধানে পরাজিত করেন। সুনিল সিং[১৮] ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের আসনটি সরিয়ে নেন এবং তিনি তার দল সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেন।

উপনির্বাচন ২০১৮:নোয়াপাড়া কেন্দ্র
দল প্রার্থী ভোট % ±%
তৃণমূল কংগ্রেস সুনিল সিং ১,০১,৭২৯ ৫৩.৫১ +১১.৫১
বিজেপি সন্দীপ ব্যানার্জী ৩৮,৭১১ ২০.৩৬ +৭.৩৬
সিপিআই(এম) গার্গি চ্যাটার্জী ৩৫,৪৯৭ ১৮.৬৭
কংগ্রেস গৌতম বোস ১০,৫২৭ ৫.৫৩ -৩৭.৪৭
উপরের কেউ না উপরের কেউ না ৩,৬২৭ ১.৯০
সংখ্যাগরিষ্ঠতা ৬৩,০১৮ ৩৩.১৫
ভোটার উপস্থিতি ১,৯০,০৯১
নিবন্ধিত ভোটার ২,৪৬,৮৮১
বিজেপি থেকে তৃণমূল কংগ্রেস অর্জন করেছে ঘুরে যাওয়া +২৪.৪৯

২০১৬সম্পাদনা

২০১৬ সালের নির্বাচনে, ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের মধুসূদন ঘোষের তৃণমূল কংগ্রেসের মঞ্জু বসুকে পরাজিত করেন কিন্তু মধুসূদন ঘোষের মৃত্যুতে পুনরায় নির্বাচন হয়।

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন, ২০১৬:নোয়াপাড়া কেন্দ্র
দল প্রার্থী ভোট % ±%
কংগ্রেস মধুসূদন ঘোষ ৭৯,৫৪৮ ৪৩.০০
তৃণমূল কংগ্রেস মঞ্জু বসু ৭৮,৪৫৩ ৪২.০০ -১৭.০৩
বিজেপি অমিয় সরকার ২৩,৫৭৯ ১৩.০০ +৮.৫৩
বিএসপি বুলু সরকার
নির্দল উদয় বীর চৌধুরী
ভোটার উপস্থিতি ১৮৫,৯৫৭
তৃণমূল কংগ্রেস থেকে কংগ্রেস অর্জন করেছে ঘুরে যাওয়া

২০১১সম্পাদনা

২০১১ সালের নির্বাচনে, তৃণমূল কংগ্রেসের মঞ্জু বসু তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সিপিআই (এম) -এর কে.ডি.ঘোষকে পরাজিত করেন।

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন, ২০১১:নোয়াপাড়া কেন্দ্র[১৫][১৯]
দল প্রার্থী ভোট % ±%
তৃণমূল কংগ্রেস মঞ্জু বসু ১০০,৩৬৯ ৫৯.০৩ +৮.৬০#
সিপিআই(এম) ডা. কে.ডি. ঘোষ ৫৯,২২১ ৩৪.৮৩ -১২.৯০
বিজেপি স্বপন হালদার ৭,৫৯৪ ৪.৪৭
বিএসপি কৃষ্ণ চন্দ্র সরকার ২,৮৩৭
ভোটার উপস্থিতি ১৭০,০২১ ৮৩.৪৮
সিপিআই(এম) থেকে তৃণমূল কংগ্রেস অর্জন করেছে ঘুরে যাওয়া ২১.৫০#

১৯৭৭-২০০৬সম্পাদনা

২০০৬ সালের রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনে,[১৪] সিপিআই (এম) এর কুশধ্বাজ ঘোষ নোয়াপাড়া বিধানসভা কেন্দ্র থেকে জয়ী হন, তৃণমূল কংগ্রেসের মঞ্জু বসুকে পরাজিত করেন। অধিকাংশ বছরে প্রতিযোগিতাগুলিতে প্রার্থীদের বিভিন্ন ধরনের কোণঠাসা করে ছিল কিন্তু শুধুমাত্র বিজয়ী ও রানার্সকে উল্লেখ করা হচ্ছে। ২০০১ সালে তৃণমূল কংগ্রেসের মঞ্জু বসু সিপিআই (এম) -এর মদন মোহন নাথকে পরাজিত করেন।[১৩] সিপিআই (এম) -এর মদন মোহন নাথ ১৯৯৬ সালে কংগ্রেসের শ্রীশ দাসকে পরাজিত করেন[১২] এবং ১৯৯১ সালে কংগ্রেসের অনন্ত রায়কে পরাজিত করেন।[১১] সিপিআই (এম) -এর যামিনী ভূষণ সাহা ১৯৮৭ সালে কংগ্রেসের শ্রীশ দাসকে[১০] এবং ১৯৮২ সালে আইসিএসের অপূর্ব ভট্টাচার্যকে পরাজিত করেন[৯] এবং কংগ্রেস অপূর্ব ভট্টাচার্যকে ১৯৭৭ সালে পরাজিত করেন।[৮][২০]

১৯৫১-১৯৭২সম্পাদনা

কংগ্রেসের শুভেন্দু রায় ১৯৭২ সালে জয়ী হন।[৭] সিপিআই (এম) -এর যামিনী ভূষণ সাহা ১৯৭১[৬] এবং ১৯৬৯ সালে[৫] জয়ী হন। কংগ্রেসের শুভেন্দু রায় ১৯৬৭ সালে জয়ী হন।[৪] ১৯৬২ সালে সিপিআই এর যামিনী ভূষণ সাহা জয়ী হন।[৩] ১৯৫৭ সালে পিএসপি পঞ্চানন ভট্টাচার্য জয়ী হন।[২] এর আগে কেন্দ্রটি বিদ্যমান ছিল না।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Delimitation Commission Order No. 18" (PDF)পশ্চিমবঙ্গ (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুন ২০১৪ 
  2. "General Elections, India, 1957, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  3. "General Elections, India, 1962, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  4. "General Elections, India, 1967, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  5. "General Elections, India, 1969, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  6. "General Elections, India, 1971, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  7. "General Elections, India, 1972, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  8. "General Elections, India, 1977, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  9. "General Elections, India, 1982, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  10. "General Elections, India, 1987, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  11. "General Elections, India, 1991, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  12. "General Elections, India, 1996, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  13. "General Elections, India, 2001, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  14. "General Elections, India, 2006, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  15. "General Elections, India, 2011, to the Legislative Assembly of West Bengal" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  16. <http://www.myneta.info/westbengal2016/candidate.php?candidate_id=2131
  17. http://www.india.com/news/india/noapara-assembly-bye-election-2018-result-live-news-updates-counting-of-votes-for-west-bengal-bypoll-2872367/
  18. http://www.myneta.info/westbengal2016/candidate.php?candidate_id=2131
  19. "West Bengal Assembly Election 2011"Noapara (ইংরেজি ভাষায়)। Empowering India। সংগ্রহের তারিখ ২৪ এপ্রিল ২০১১ 
  20. "132 - Noapara Assembly Constituency"১৯৭৭ থেকে দল অনুযায়ী তুলনা (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের নির্বাচন কমিশন। সংগ্রহের তারিখ ১৫ অক্টোবর ২০১০