প্রধান মেনু খুলুন

দ্বিতীয় রামিসেস (বিভিন্নভাবে উচ্চারিত "'রামিসিস" (/ˈræməsz/)[৫] বা "রামসেস" (/ˈræmsz/ or /ˈræmzz/);[৬] জন্ম আনু. খ্রিস্টপূর্ব ১৩০৩; মৃত্যু জুলাই বা আগস্ট ১২১৩ খ্রিস্টপূর্ব; শাসনকাল ১২৭৯–১২১৩ খ্রিস্টপূর্ব), রামিসেস দ্য গ্রেট বা মহান রামিসেস হিসেবেও পরিচিত, ছিলেন মিশরের উনবিংশতম রাজবংশের তৃতীয় ফারাও রাজা। প্রায়শই তাকে মিশরীয় সাম্রাজ্যের সবচেয়ে মহান, সবচেয়ে উদযাপিত ও সবচেয়ে শক্তিশালী ফারাও হিসেবে বিবেচনা করা হয়।[৭] তার উত্তরসূরিগণ এবং পরবর্তী মিশরীয়রা তাকে "মহান পূর্বপুরুষ" বলে সম্বোধন করতেন। দ্বিতীয় রামাসিস ক্যানানে মিশরীয় নিয়ন্ত্রণ পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করে লিভ্যান্টে বহুসংখ্যক সামরিক অভিযানের নেতৃত্ব দেন। দক্ষিণে নুবিয়াতেও তিনি অভিযান পরিচালনা করেছিলেন বলে বাইত আল-ওয়ালি এবং জারফ হুসেইনের রচনায় উল্লেখ পাওয়া যায়।

১৪ বছর বয়সে, রামাসিসের পিতা দ্বিতীয় সেটি রামাসিসকে প্রিন্স রিজেন্ট বা ভবিতব্য রাজা হিসেবে নিয়োগ দেন।[৭] ঐতিহাসিকগণের ধারনামতে, তিনি তার কৈশোরের শেষার্ধে সিংহাসনে অধিষ্ঠিত হন এবং ১২৭৯ থেকে ১২১৩ খ্রিস্টপূর্ব পর্যন্ত মিশর শাসন করেন।[৮] মৃত্যুকালে তার বয়স কত ছিল তা নিয়ে নানান মত রয়েছে; খুবসম্ভব তা ৯০ বা ৯১ বছর সম্ভাব্য হিসেবে ধরা হয়।[৯][১০] দ্বিতীয় রামিসেস তার শাসনকালে ফারাওদের মধ্যে সবচেয়ে বেশিবার সেড উৎসব উৎযাপন করার সৌভাগ্য লাভ করেন।[১১] মৃত্যুর পর, তাকে ভ্যালি অব দ্য কিংসের একটি সমাধিতে কবরস্থ করা হয়;[১২] পরবর্তীতে তার দেহকে একটি রাজ সংগ্রহশালায় স্থানান্তর করা হয়, যেখানে ১৮৮১ সালে তা আবিষ্কৃত হয়, এবং বর্তমানে এটি কায়রো জাদুঘরে সংরক্ষিত রয়েছে।[১৩]

তার রাজত্বকালের প্রথমার্ধে তিনি নগর, মন্দির এবং সৌধ নির্মাণে মনযোগী ছিলেন। তিনি নীল ডেল্টায় তার নতুন রাজধানী এবং সিরিয়ায় তার অভিযানের প্রধান ঘাঁটি হিসেবে পাই-রামিসেস নামে একটি নগরী স্থাপন করেন। গ্রিক উৎসে তিনি "অজিম্যান্ডিয়াস" নামে পরিচিত,[১৪] রামাসিসের সিংহাসনের নামের একটি অংশের গ্রিক প্রতিবর্ণীকরণ থেকে, Usermaatre Setepenre, যার অর্থ "রা-এর ন্যায়বিচার রা এর শক্তিশালী নির্বাচন"।[১৫]

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে দ্বিতীয় রামিসেসসম্পাদনা

পার্সি বিশে শেলি'র কবিতা "অজিম্যান্ডিয়াস" এর মূল বিষয়বস্তু হল রামিসেস। ডিওডোরাস সিকালাস তার একটি ভাস্কর্যের মূলে লেখেন যে: "আমি হলাম রাজাদের রাজা, অজিম্যান্ডিয়াস। কেও যদি জানে আমি কত মহান এবং কোথায় আমি শায়িত আছি, তবে সে আমার কোন একটি কর্মকে অতিক্রম করে দেখাক।"[১৬] শেলীর কবিতায় এই উক্তিটি উল্লেখিত রয়েছে।

রামাসিসের জীবন অনেক কাল্পনিক চরিত্র রুপায়নে উৎসাহিত করেছে, যার অন্যতম হল ফরাসি লেখক ক্রিশ্চিয়ান জ্যাকের রচিত ঐতিহাসিক ধারাবাহিক উপন্যাস "রামেসিস সিরিজ"; সচিত্র উপন্যাস ওয়াচমেন, যাতে আর্দ্রিয়ান ভেইডট নামক চরিত্র দ্বিতীয় রামিসেসকে তার অযিম্যান্ডিয়াস নামক অলটার-ইগোকে উৎসাহিতকরণে ব্যবহার করে।; নরম্যান মিলার'র উপন্যাস এন্সিয়েন্ট ইভিনিং, যা ব্যপকভাবে দ্বিতীয় রামাসিসের জীবনের উপর ভিত্তি করে রচিত, যদিয়ও তা ছিল নবম রামিসেসের শাসনকালে মিশরীয় জীবনযাত্রার দৃষ্টিকোণ অনুযায়ী; এবং অ্যানি রাইস'র বই দ্য মামি, অর রামিসেস দ্য ড্যাম্নড (1১৯৮৯), যাতে রামিসেস ছিল মূল চরিত্র।

এক্সোডাসের ফারাও রাজা হিসেবেসম্পাদনা

এক্সোডাসের ফারাও রাজাদের মধ্যে দ্বিতীয় রামিসেস হলেন অন্যতম চরিত্র। ১৯৫৬ সালের টেন কমান্ডমেন্টস চলচ্চিত্রে ইউল ব্রাইনার রামাসিসের চরিত্রে অভিনয় করেন, এখানে রামিসেসকে প্রধান খলচরিত্র হিসেবে দেখানো হয়।[১৭] এনিম্যাটেড চলচ্চিত্র দ্য প্রিন্স অব ইজিপ্ট (১৯৯৮), এতেও রামাসিসের চরিত্র রূপায়িত হয়েছে(কণ্ঠ র‍্যালফ ফিয়েনেস), যেখানে তাকে নবী মুসার পালক ভাই ও ছবির মূল খলনায়ক হিসেবে দেখানো হয়েছে। অতি সম্প্রতি, জয়েল এডগারটন ২০১৪ সালের চলচ্চিত্র এক্সোডাস: গডস অ্যান্ড কিংস তে রামাসিসের ভূমিকায় অভিনয় করেন।

দ্য টেন কমান্ডমেন্টস: দ্য মিউজিকাল (২০০৬) চলচ্চিত্রে কেভিন আর্লি রামিসেস চরিত্রে অভিনয় করেন।

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Clayton 1994, p. 146.
  2. Tyldesly 2001, p. xxiv.
  3. "Mortuary temple of Ramesses II at Abydos"। ২০০৮-১২-২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-১০-২৮ 
  4. Anneke Bart। "Temples of Ramesses II"। ২০০৮-০৪-২৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৪-২৩ 
  5. "Rameses"Webster's New World College Dictionary। Wiley Publishing। ২০০৪। 
  6. "Ramses"Webster's New World College Dictionary। Wiley Publishing। ২০০৪। 
  7. Putnam (1990)
  8. Rice (1999) p.165
  9. von Beckerath (1997), pp.108 and 190
  10. Brand (2000), pp.302-305
  11. O'Connor & Cline (1998) p.16
  12. Christian Leblanc। "Gerard"। ২০০৭-১২-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৪-২৩ 
  13. Rice (1999) p.166
  14. (Greek Text) Diodorus Siculus, Bibliotheca Historica, 1.47.4 at the Perseus Project
  15. "Ozymandias"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৩-৩০ 
  16. RPO Editors। "Percy Bysshe Shelley: Ozymandias"University of Toronto Department of English। University of Toronto Libraries, University of Toronto Press। ২০০৬-১০-১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৬-০৯-১৮ 
  17. John Ray। "Ramesses the Great"। BBC history। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৫-৩০ 

গ্রন্থপঞ্জিসম্পাদনা

  • Balout, L., Roubet, C. and Desroches-Noblecourt, C. (১৯৮৫)। La Momie de Ramsès II: Contribution Scientifique à l'Égyptologie 
  • Bietak, Manfred (১৯৯৫)। Avaris: Capital of the Hyksos - Recent Excavations। London: British Museum Press। আইএসবিএন 0-7141-0968-1 
  • von Beckerath, Jürgen (১৯৯৭)। Chronologie des Pharaonischen Ägypten। Mainz: Philipp von Zabern। 
  • Brand, Peter J. (২০০০)। The Monuments of Seti I: Epigraphic, Historical and Art Historical Analysis। NV Leiden: Brill। আইএসবিএন 90-04-11770-9 
  • Brier, Bob (১৯৯৮)। The Encyclopedia of Mummies। Checkmark Books। 
  • Clayton, Peter (১৯৯৪)। Chronology of the PharaohsThames & Hudson 
  • Dodson, Aidan; Dyan Hilton (২০০৪)। The Complete Royal Families of Ancient Egypt। Thames & Hudson। আইএসবিএন 0-500-05128-3 
  • Grajetzki, Wolfram (২০০৫)। Ancient Egyptian Queens– a hieroglyphic dictionary। London: Golden House Publications। আইএসবিএন 0-9547218-9-6 
  • Grimal, Nicolas (১৯৯২)। A History of Ancient Egypt। Oxford: Blackwell। আইএসবিএন 0-631-17472-9 
  • Kitchen, Kenneth (১৯৮৩)। Pharaoh Triumphant: The Life and Times of Ramesses II, King of Egypt। London: Aris & Phillips। আইএসবিএন 0-85668-215-2 
  • Kitchen, Kenneth Anderson (২০০৩)। On the Reliability of the Old Testament। Michigan: William B. Eerdmans Publishing Companyআইএসবিএন 0-8028-4960-1 
  • Kitchen, Kenneth Anderson (১৯৯৬)। Ramesside Inscriptions Translated and Annotated: Translations. Volume 2: Ramesses II; Royal Inscriptions। Oxford: Blackwell Publishers। আইএসবিএন 0-631-18427-9  Translations and (in the 1999 volume below) notes on all contemporary royal inscriptions naming the king.
  • Kitchen, Kenneth Anderson (১৯৯৯)। Ramesside Inscriptions Translated and Annotated: Notes and Comments. Volume 2: Ramesses II; Royal Inscriptions। Oxford: Blackwell Publishers। 
  • Kuhrt, Amelie (১৯৯৫)। The Ancient Near East c.3000–330 BC। Vol. 1। London: Routledge 
  • O'Connor, David; Eric Cline (১৯৯৮)। Amenhotep III: Perspectives on his reign। University of Michigan Press। 
  • Putnam, James (১৯৯০)। An introduction to Egyptology 
  • Rice, Michael (১৯৯৯)। Who's Who in Ancient Egypt। Routledge। আইএসবিএন 0-415-15448-0 
  • Herbert Ricke; George R. Hughes; Edward F. Wente (১৯৬৭)। The Beit el-Wali Temple of Ramesses II 
  • RPO Editors। "Percy Bysshe Shelley: Ozymandias"University of Toronto Department of English। University of Toronto Libraries, University of Toronto Press। ২০০৬-১০-১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৬-০৯-১৮ 
  • Siliotti, Alberto (১৯৯৪)। Egypt: temples, people, gods 
  • Skliar, Ania (২০০৫)। Grosse kulturen der welt-Ägypten 
  • Stieglitz, Robert R. (১৯৯১)। "The City of Amurru"। Journal of Near Eastern Studies। The University of Chicago Press। 50.1 
  • Tyldesley, Joyce (২০০০)। Ramesses: Egypt's Greatest Pharaoh। London: Viking/Penguin Books। 
  • Westendorf, Wolfhart (১৯৬৯)। Das alte Ägypten (জার্মান ভাষায়)। 
  • Can. Assoc. Radiol. J. 2004 Oct;55(4):211–7, PMID 15362343
  • The Epigraphic Survey, Reliefs and Inscriptions at Karnak III: The Bubastite Portal, Oriental Institute Publications, vol. 74 (Chicago: University of Chicago Press, 1954

আরও পড়ুনসম্পাদনা

  • Hasel, Michael G. 1994. “Israel in the Merneptah Stela," Bulletin of the American Schools of Oriental Research 296., pp. 45–61.
  • Hasel, Michael G. 1998. Domination and Resistance: Egyptian Military Activity in the Southern Levant, 1300–1185 BC. Probleme der Ägyptologie 11. Leiden: Brill Publishers. আইএসবিএন ৯০-০৪-১০৯৮৪-৬
  • Hasel, Michael G. 2003. "Merenptah's Inscription and Reliefs and the Origin of Israel" in Beth Alpert Nakhai ed. The Near East in the Southwest: Essays in Honor of William G. Dever, pp. 19–44. Annual of the American Schools of Oriental Research 58. Boston: American Schools of Oriental Research. আইএসবিএন ০-৮৯৭৫৭-০৬৫-০
  • Hasel, Michael G. 2004. "The Structure of the Final Hymnic-Poetic Unit on the Merenptah Stela." Zeitschrift für die alttestamentliche Wissenschaft 116:75–81.
  • James, T. G. H. 2000. Ramesses II. New York: Friedman/Fairfax Publishers. A large-format volume by the former Keeper of Egyptian Antiquities at the British Museum, filled with colour illustrations of buildings, art, etc. related to Ramesses II

বহিঃসংযোগসম্পাদনা